অন্ধকারের অবসান


504 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
অন্ধকারের অবসান
আগস্ট ১৯, ২০১৮ ফটো গ্যালারি শ্যামনগর
Print Friendly, PDF & Email

বিজয় মন্ডল ::

বর্তমান সরকারের নানা উন্নয়ন কর্মকাণ্ড এবং ডিজিটালাইজেশনের সু-প্রভাবে বর্তমান পৃথিবীতে বাংলাদেশ একটি সুপরিচিত আলোকিত দেশ।
এতো দ্রুত পৃথিবীর কোন দেশ আলো ছড়াতে পেরেছে বলে জানা নেই।

বাংলাদেশের অধিকাংশ মানুষ গ্রামে বসবাস করে। আর গ্রামে মূলত দরিদ্র শ্রেণীর মানুষের সংখ্যাই বেশি। বিভিন্ন কারনে বাংলাদেশের অধিকাংশ গ্রামই কম উন্নয়নের দেখা পান। একথা গ্রামের মানুষজনের কাছে স্বাভাবিক হয়ে উঠেছে অনেক আগেই।

যোগাযোগ ব্যবস্থা- রাস্তা ঘাট, শিক্ষা, চিকিৎসা, নিরাপদ পানি, বাসস্থান, বিদ্যুৎ ইত্যাদি খাতে শহরের তুলনায় গ্রামে উন্নয়ন অনেক কম।

কিন্তুু কেন এই বৈষম্য?
দেশের বর্তমান প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আওয়ামী লীগ সরকার ক্ষমতায় আসার পর থেকে প্রশ্নটা মুছে যেতে শুরু করে দেশের হাজার হাজার গ্রামের খেটে খাওয়া, কৃষক শ্রমিক সহ সাধারণ মানুষের মন থেকে।

কারন বর্তমান সরকার যেভাবে দেশের সার্বিক উন্নয়ন জোরদার করেছেন তাতে শহরের সাথে সাথে দেশের গ্রাম গুলো আলো ছড়াতে শুরু করেছে।

এখন প্রত্যান্ত গ্রামে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, চিকিৎসা সেবাকেন্দ্র, এবং গৃহ নির্মাণ সহ ঘরে ঘরে পৌঁছে দেওয়া হচ্ছে বিদ্যুৎ। গ্রামের মানুষদের বিভিন্ন ভাতা প্রদান সহ করা হচ্ছে কাজের ব্যবস্থা।

এখন গ্রামের এমন কোন মানুষ খুঁজে পাওয়া মুশকিল যে সরকারের কোন সুবিধা বা সহযোগিতা পাননি। যাহোক- বর্তমান সরকারের একটি বড় ঘোষণা ছিলো দেশের প্রতিটি ঘরে ঘরে বিদ্যুৎ পৌছে দেওয়া।

সে লক্ষ্যে কাজও চলছে অনেক দ্রুত গতিতে। আশা করা যায় আগামি দু-তিন বছরের মধ্যে তা শতভাগ অর্জন করতে পারবে সরকার।

এছাড়া প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা অনুযায়ী তার পক্ষ্য থেকে গ্রামাঞ্চলের দারিদ্র শ্রেণীর মানুষের জন্য ব্যবস্থা করা হচ্ছে বিনামূল্যে সৌরবিদ্যুৎ। যেসব পরিবারের ছেলে মেয়েরা আলোর অভাবে ঠিকমত পড়াশোনা করতে পারেনা। অন্ধকারে দিন কাটায় তাদের চিহ্নিত করে বিনামূল্যে বিতরন করা হচ্ছে এ বিদ্যুৎ।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার এ নির্দেশনা বাস্তবায়নে নিরন্তর কাজ করে যাচ্ছেন সাতক্ষীরা-৪ আসনের সংসদ সদস্য এস এম জগলুল হায়দার।

নানা ব্যাস্ততার মধ্যে আলোর অভাবে কষ্ট পাওয়া ছাত্র – ছাত্রীদের কষ্ট দূর করতে এবং পরিবার গুলোতে বিরাজ করা অন্ধকারের অবসান ঘটাতে রবিবার গভীর রাতে তাদের বাড়িতে সোলার বিদ্যুৎ নিয়ে হাজির হন তিনি।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে সাংসদ জগলুল হায়দার জানান, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী প্রত্যেক ঘরে ঘরে বিদ্যুৎ পৌঁছে দেওয়ার লক্ষ্যে নিরলস কাজ করে যাচ্ছি। আমার নির্বাচনী এলাকার যে সকল বাড়িতে এখনও বিদ্যুৎ পৌঁছানো সম্ভব হয় নি, সেই সকল বাড়িতে আলোর অভাবে ছাত্র – ছাত্রীদের রাতে পড়াশুনা করতে দূর্ভোগ পোহাতে হয়।

তাদের কষ্ট দূর করতে আজ গভীর রাতে তাদের বাড়িতে বঙ্গবন্ধুর ছবি এবং সোলার প্যানেল নিয়ে যাই। ছাত্র – ছাত্রীরা তাদের বাড়িতে আলোর ব্যবস্থা হওয়ায় ভীষণ খুশি হয়। তাদের কাছে বঙ্গবন্ধু, বঙ্গবন্ধু পরিবারের সকল শহীদ সদস্য এবং মাননীয় প্রধানমন্ত্রী দেশরত্ন শেখ হাসিনার জন্য দোয়া চাই।