আইপিএলে যাচ্ছেন মুস্তাফিজ


452 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
আইপিএলে যাচ্ছেন মুস্তাফিজ
এপ্রিল ৯, ২০১৭ খেলা ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

অনলাইন ডেস্ক ::
অবশেষে সব জল্পনা-কল্পনার অবসান হয়েছে। আইপিএলের দশম আসরে খেলার জন্য বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি) থেকে ছাড়পত্র পেয়েছেন মুস্তাফিজুর রহমান। সবকিছু ঠিক থাকলে ১১ এপ্রিল তিনি মুম্বাইয়ে সানরাইজার্সের সঙ্গে যোগ দেবেন। শ্রীলংকা থেকে একটি সফল সফর শেষ করে ৭ এপ্রিল সকালে দলের সঙ্গে ঢাকায় ফেরেন মুস্তাফিজ। এরপর মিরপুর বিসিবি একাডেমিতে বিশ্রাম নিয়ে সন্ধ্যায় নিজ বাড়ি সাতক্ষীরার উদ্দেশে রওনা হয়ে যান কাটার মাস্টার। যশোর পর্যন্ত বিমানযাত্রায় তার সঙ্গী ছিলেন দক্ষিণাঞ্চলের আরেক ক্রিকেটার মেহেদী হাসান মিরাজ।

মুস্তাফিজের ছাড়পত্র পাওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করেন বিসিবির মিডিয়া কমিটির চেয়ারম্যান জালাল ইউনুস, ‘মুস্তাফিজকে অনাপত্তিপত্র দেওয়া হয়েছে। তার ভিসা প্রসেসিং চলছে। সে যদি সময়মতো ভিসা পেয়ে যায় তাহলে ১১ এপ্রিল সে ঢাকা ছাড়তে পারবে। তখন ১২ এপ্রিল সানরাইজার্স হায়দরাবাদের পরবর্তী ম্যাচ খেলতে কোনো সমস্যা হবে না।’ হায়দরাবাদের তৃতীয় ম্যাচ ১২ এপ্রিল, সেদিন তারা মুম্বাইয়ের ওয়াংখেড়ে স্টেডিয়ামে স্বাগতিক মুম্বাই ইন্ডিয়ান্সের মুখোমুখি হবে। তবে দলের সঙ্গে যোগ দেওয়ার পরের দিনই মুস্তাফিজকে মাঠে নাও নামাতে পারে হায়দরাবাদ কর্তৃপক্ষ। অবশ্য ৯ এপ্রিল নিজেদের মাঠে গুজরাট লায়ন্সের বিপক্ষে বোলিং ঠিকঠাক না হলে তাকে মাঠে নামাতেও পারে। না হলে কলকাতা নাইট রাইডার্সের বিপক্ষে ১৫ এপ্রিল ইডেন গার্ডেন্সে এবারের আইপিএলের প্রথম ম্যাচ খেলতে পারেন মুস্তাফিজ। তাহলে সাকিবের সঙ্গে লড়াইও হয়ে যেতে পারে কাটার মাস্টারের। মুস্তাফিজ শ্রীলংকা থেকে দেশে ফিরলেও আগেভাগে ছাড়পত্র পেয়ে যাওয়ায় কলম্বো থেকেই ভারত চলে গেছেন সাকিব।

শ্রীলংকা সফরের মাঝপথে ভারতীয় একটি ম্যাগাজিন খবর দিয়েছিল যে, এবার আইপিএল নাও খেলতে পারেন মুস্তাফিজ। বাঁহাতি এ পেসার অবশ্য পরের দিনই ওই সংবাদ উড়িয়ে দিয়ে বলেছিলেন, আইপিএলে খেলবেন না, এ কথা তিনি বলেননি। বিসিবি অনুমতি দিলে অবশ্যই আইপিএলে খেলতে যাবেন তিনি। এরপর বোর্ড সভাপতি নাজমুল হাসান বলেছিলেন, ফিট থাকলে অবশ্যই মুস্তাফিজকে আইপিএল খেলার অনুমতি দেওয়া হবে। তবে শ্রীলংকা সফরের পর ডাক্তারের পরামর্শমতো কয়েক দিন বিশ্রাম নিয়ে আইপিএলে যাওয়ার পরামর্শ দিয়েছিলেন। মুস্তাফিজকে নিয়ে যখন এসব কথা চলছিল তখন হায়দরাবাদের এক কর্মকর্তা বলেছিলেন, তাদের হাতে এবার পর্যাপ্ত বিকল্প আছে। আফগান লেগস্পিনার রশিদ খানকে তাদের এবারের বোলিং চমক হিসেবে উল্লেখ করেছিলেন। কোচ টম মুডি অবশ্য এসব কথায় কান দিতে নারাজ। তিনি মুস্তাফিজকে তার দলের অবিচ্ছেদ্য অংশ হিসেবে বর্ণনা করেছেন। গত পরশু ভারতীয় একটি ওয়েবসাইটে সানরাইজার্স অধিনায়ক ডেভিড ওয়ার্নারও দুই বোলারের প্রয়োজনীয়তার কথা উল্লেখ করেছেন, ‘ফিজ (মুস্তাফিজ) ও রশিদের মতো দু’জন বোলারকে দলে পাওয়া কিন্তু দারুণ বিষয়। দু’জনেরই দুর্দান্ত বোলিং অ্যাকশন এবং দু’জনই রোমাঞ্চ তৈরি করে। তাদের খেলা সত্যিই বেশ কঠিন।’ তবে শেষের ওভারগুলোতে মুস্তাফিজের বোলিংকে আলাদাভাবে দেখছেন ওয়ার্নার, ‘ফিজ ও ভুবির জুটিটা অসাধারণ। মানুষ উন্মুখ হয়ে থাকে তাদের বোলিং দেখার জন্য। একজন খেলোয়াড়ের জন্য এর চেয়ে ভালো বিষয় আর কী হতে পারে!’

তবে হায়দরাবাদ কর্তৃপক্ষ চাইলেও এবার মুস্তাফিজকে বেশি দিন পাবে না। আগামী জুনে চ্যাম্পিয়ন ট্রফিতে অংশ নেবে বাংলাদেশ। এর আগে আয়ারল্যান্ডে ত্রিদেশীয় সিরিজ খেলবে টাইগাররা। দুটি টুর্নামেন্টের প্রস্তুতির জন্য ইংল্যান্ডের সাসেক্সে দুই সপ্তাহের ক্যাম্প করবে বাংলাদেশ দল। সে জন্য ২৬ এপ্রিল বাংলাদেশ জাতীয় দল ইংল্যান্ডের উদ্দেশে উড়াল দেবে। তাই এ মাসের শেষ দিকে আইপিএল থেকে ফিরতে হবে মুস্তাফিজকে।