আজ কপিলমুনির স্থপতি রায় সাহেব’র ৮৪তম মৃত্যু দিন


378 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
আজ কপিলমুনির স্থপতি রায় সাহেব’র ৮৪তম মৃত্যু দিন
জানুয়ারি ১৭, ২০১৯ খুলনা বিভাগ ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

পলাশ কর্মকার, কপিলমুনি :
আজ শুক্রবার দক্ষিণ খুলনার মহা দানবীর রায় সাহেব বিনোদ বিহারী সাধুর ৮৪ তম মৃত্যু দিবস। তিনি ছিলেন একজন সমাজ সংস্কারক ও জ্ঞান পিপাষু ব্যক্তি। তাঁর স্পর্শে কপিলমুনিতে গড়ে উঠেছিল অসংখ্য জনহিতকর প্রতিষ্ঠান।

জানাযায়, বাং ১২৯৬ সনের ২৬ বৈশাখ; তৎকালীন অবিভক্ত বাংলার বর্তমান খুলনা জেলার দক্ষিণাঞ্চলের অজপাড়া গাঁ কপিলমুনিতে তাঁর জন্ম। পিতা যাদব চন্দ্র সাধু সাধু, মাতা সহচরী দেবী, শৈশব ও কিশোর জীবন পেরুতে না পেরুতেই তাঁর সমাজ সাধনার দিন শুরু হয়। তিনি মাত্র ১৩ বছর বয়সে নিজেকে ব্যবসায় জড়িয়ে ফেলেন, তৎকালীন সময়ে ব্যবসার প্রসার বাড়াতে তিনি কোলকাতার সাথে যোগাযোগ স্থাপন করে কপিলমুনির উন্নয়ন কাজ শুরু করেন। তাঁর ব্যবসায়ীক উপার্জনের পয়সা দিয়ে বৃহত্তর কপিলমুনির মানুষের শিক্ষা, স্বাস্থ্য ও বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠানের ব্যবস্থা করেছেন। মায়ের নামে সহচরী বিদ্যামন্দির (বর্তমানে স্কুল এন্ড কলেজ), ২০ শয্যা বিশিষ্ট চিকিৎসালয় যা তৎকালীন ভারতের বীর বাহাদুর যদু নাথ সরকার কর্তৃক দারোদঘাটিত হয়। পাশাপাশি এলাকার বেকারত্ব ঘুচাতে প্রতিষ্ঠা করেন অমৃতময়ী টেকনিক্যাল স্কুল। তাঁর উন্নয়নের পুরষ্কার হিসেবে তৎকালীন সরকার তাঁকে রায় সাহেব উপাধিতে ভূষিত করেন। যখন খুলনা অঞ্চলে বিদ্যুৎ এর ব্যবস্থা ছিল না তখন তিনি সুদুর কোলকাতা থেকে কপিলমুনি বাজারকে আলোকিত করতে জেনারেটরের মাধ্যমে আলোর ব্যবস্থা করেন।

এলাকার মানুষদের সুপেয় পানি পান করানোর জন্য তিনি খনন করেন ‘সহচরী সরোবর’ নামে একটি বৃহৎ পুকুর (বর্তমানে বালির মাঠ)। ক্ষনজন্মা এই মহা মনিষিকে অত্র এলাকার সকল মানুষ মহা মানব হিসেবে স্মরণ করে থাকেন। তাঁর নিজ অর্জিত অর্থ দ্বারা ক্রয়কৃত প্রায় ৫০একর সম্পত্তির উপর প্রতিষ্ঠা করেন ‘বিনোদগঞ্জ’ যা এখন কপিলমুনি বাজার নামে পরিচিত। বিনোদগঞ্জ, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, হাসপাতাল, খেলার মাঠ ও বিনোদনের জন্য পাবলিক স্টেডিয়াম সবই তাঁর স্মৃতি বহন করে। তিনি ব্যবসায়ীদের স্বার্থ রক্ষায় একই সময় প্রতিষ্ঠা করেন উৎকর্ষ সমিতি ও সিদ্ধেশ্বরী ব্যাংক। ব্যবসায়ীরা তাঁদের প্রয়োজনে উক্ত ব্যাংক থেকে অর্থ গ্রহন করতেন। এলাকার উন্নয়নের স্বার্থে তিনি স্ট্রেট ব্যাংক অব ইন্ডিয়ায় বহু টাকা সঞ্চয় করেন, কিন্তু দেশ ভাগের পর তার রাখা অর্থ ফেরৎ পাওয়া যায়নি।

কোলকাতা সদর থেকে ৬মাইল উত্তরে আগরপাড়া নামক স্থানে ব্যবসার সুবাদে বসবাস করার জন্য বহু টাকা ব্যয়ে একটা বাগান বাড়ি ক্রয় করেন। সে সময় সেখানে স¦-পরিবারে বসবাস শুরু করেন। এক বছরের বেশি সময় চললো এ ভাবেই। কিন্তু ছোট বেলার অভ্যাস কর্মশূন্য হয়ে থাকতে পারেন না তিনি। সেখানে বসবাস করাটা তাঁর জন্য ছিল এমন যে, এক দিকে কর্মশুন্যতা, অন্যদিকে শহুরে বদ্ধজীবন যাপন। তাই তিনি চলে আসেন জম্মভূমি কপিলমুনিতে। কিন্তু ভাগ্যটা এতই প্রতিকুল যে, এখানে ফিরেও তিনি বেরীবেরী রোগে আক্রান্ত হলেন। কলকাতার সকল চিকিৎসকের সাধনা বিফল করে বাং ১৩৪১ সনের ৩রা মাঘ মাত্র ৪৫ বছর বয়সে ধরনী ত্যাগ করেন তিনি।

কপিলমুনি ইউপি চেয়ারম্যান মোঃ কওছার আলী জোয়ার্দার বলেন, ‘ক্ষণজন্মা এই মহা মানবের মৃত্যু দিবসে স্থানীয় স্বর্গীয় রায় সাহেব বিনোদ বিহারী স্মৃতি সংরক্ষণ পরিষদের পক্ষ থেকে র‌্যালী, মাল্যদান ও আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়েছে।

কপিলমুনি বিনোদ স্মৃতি সংসদের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি এড. দিপংকর সাহা বলেন, ‘আজ শুক্রবার সংগঠনটির পক্ষ থেকে সকাল সাড়ে ৮ টার রায় সাহেবের প্রতিকৃতিতে মাল্যদান, ৯ টায় র‌্যালী ও দুপুরে হাসপাতালের রোগীদের মাঝে খাদ্য বিতরণ করা হবে।

#

কপিলমুনিতে রাত্রকালীণ ৮ দলীয় শটপিচ ক্রিকেট টুর্ণামেন্ট
কপিলমুনি প্রতিনিধি ঃ
কপিলমুনি জুয়েলার্স সমিতি কর্তৃক আয়োজিত রাত্রকালীন ৮ দলীয় শটপিচ ক্রিকেট টুর্নামেন্টে মাছ কাটা ব্যবসায়ী সমিতি চ্যাম্পিয়ন ও হার্ডওয়ার ব্যবসায়ী সমিতি রানার্সআপ অর্জন করে।
বুধবার সন্ধ্যা সাড়ে ৭ টায় কপিলমুনি মেহেরুন্নেছা বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে ব্যাপক উৎসাহ উদ্দীপনার মধ্যদিয়ে জুয়েলার্স ব্যাবসায়ী এ আয়োজন করে। ৮ দলীয় শটপিচ ক্রিকেট টুর্নামেন্ট অনুষ্ঠানে জুয়েলার্র্স সমিতির সভাপতি মানিক লাল সিংহের সভাপতিত্বে ও সহ-সাধারণ সম্পাদক পলাশ কর্মকারের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন সাধারণ সম্পাদক সন্তোষ সরকার। প্রধান অতিথির বক্তৃতা করেন ইউপি চেয়ারম্যান মোঃ কওছার জোয়াদ্দার, বিশেষ অতিথি ছিলেন কপিলমুনি মেহেরুন্নেছা বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষিকা রহিমা আক্তার শম্পা, উপজেলা আওয়ামীলীগ নেতা আনন্দ মোহন বিশ্বাস বলেন, কপিলমুনি পুলিশ ফাঁড়ির ইন্সপেক্টর সঞ্জয় দাশ, কপিলমুনি ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক, শেখ ইকবাল হোসেন খোকন, কপিলমুনি প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক ও যুবলীগনেতা গাজী আঃ রাজ্জাক রাজু, কপিলমুনি সিটি প্রেসক্লাবের সভাপতি এম আজাদ, সহ-সাঃ সম্পাদক তপন পাল, সাংবাদিক শেখ মোসলেহ উদ্দিন বাদশা, পবিত্র মন্ডল, প্রবাসী দিগন্তের বার্তা সম্পাদক শেখ সেকেন্দার আলী, এ কে আজাদ, আব্দুল মজিদ গাজী, কপিলমুনি কলেজ ছাত্রলীগের সভাপতি আজমল হোসেন বাবু, কপিলমুনি ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সভাপতি ইমরান মোল্লা, হরিঢালী ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সভাপতি খন্দকার পাপ্পু, বিপ্লব দত্ত, কার্ত্তিক দত্ত, পলাশ দে, প্রদীপ দত্ত প্রমুখ।