আনুলিয়ায় চেয়ারম্যান প্রার্থী ড. শিহাবের মতবিনিময় সভা


79 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
আনুলিয়ায় চেয়ারম্যান প্রার্থী ড. শিহাবের মতবিনিময় সভা
ডিসেম্বর ১, ২০২১ আশাশুনি ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

এস কে হাসান ::

আশাশুনি উপজেলার আনুলিয়া ইউনিয়নের নৌকা প্রত্যাশী চেয়ারম্যান প্রার্থী ড. শিহাব উদ্দিন নির্বাচনী মতবিনিময় সভা করেছেন। মঙ্গলবার (৩০ নভেম্বর) সকালে ঢাকায় রওয়ানা হওয়ার প্রাক্কালে ইউনিয়নের বিভিন্ন পর্যায়ের দলীয় নেতাকর্মী ও সমর্থকদের নিয়ে তিনি মতবিনিময় করেন।
মতবিনিময়কালে প্রার্থী ড. শিহাব উদ্দিন বলেন, আমি ১৯৮৯ সাল ও পরবর্তীতে রাজশাহী বিশ্বাবিদ্যালয় ছাত্রলীগ মনোনীত দু’ দুবার সাধারণ সম্পাদক ছিলেন। ১৯৯৪ তেকে ২০০৩ সাল পর্যন্ত আনুলিয়া ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক, ২০০৪ থেকে ২০১৭ পর্যন্ত উপজেলা আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ছিলাম। সবশেষ ২০১৭ সাল থেকে উপজেলা আওয়ামীলীগের স্বাস্থ্য ও জনশক্তি বিষয়ক সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করে আসছি। রাজনীতির পাশাপাশি আমি মহান শিক্ষকতার পেশা গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব সফলতার সাথে পালন করে আসছি। অন্যান্য কলেজে শিক্ষকতার পরে বর্তমানে বড়দল আফতাব উদ্দিন কলেজিয়েট স্কুলের অধ্যক্ষ হিসাবে কর্মরত আছি। ইউনিয়নবাসী ইউনিয়নে নেতৃত্ব দেওয়ার জন্য বারবার দাবী করে আসছিলেন। তাদের দাবী এবং ইউনিয়নের সার্বিক অবস্থা বিবেচনা করে আমি এবছর নৌকা প্রতীকের প্রার্থী হিসাবে চেয়ারম্যান ইলেকশান করার লক্ষ্যে মাঠে নেমেছি। আগামী ৫ জানুয়ারি’২২ আশাশুনি উপজেলায় নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। নির্বাচনে আমিসহ আওয়ামীলীগের ৪ জন প্রার্থীর নাম কেন্দ্রে গেছে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা যদি আমাকে মনোনীত করে নৌকা প্রতীক দেন তাহলে আমি বিজয় অর্জন করে ইউনিয়নকে ডিজিটাল ও মডেল ইউনিয়ন পরিণত করতে যাকিছু করণীয় তা করার পরিকল্পনা ও প্রত্যাশা আমার রয়েছে। তিনি আক্ষেপ করে বলেন, ইউনিয়নের শিক্ষার ক্ষেত্রে দুরাবস্থা, রাস্তাঘাটের দুর্গতি, আইন শৃংখলাসহ সকল ক্ষেত্রে চরম অব্যবস্থাপনা লক্ষ্যকরা গেছে। স্কুলের জায়গায় পাবলিকের দোকান ঘর নির্মান করার মত কাজও করা হয়েছে। স্কুলটি আমার পিতা ১৯৭২ সালে সাড়ে ৪ বিঘা জমিদান করে প্রতিষ্ঠা করেছিলেন। স্কুলে শেখ রাসেল ডিজিটাল ল্যাব রয়েছে। স্কুলের জমি কয়েকজন অবৈধ দখল করে আসছে। কাউকে সমালোচনা করতে চাইনা, তবে নেতৃস্থানীয়দের কারনে আমরা উন্নয়ন ও অগ্রগতি থেকে থমকে গেছে সে কথা বলার অপেক্ষা রাখেনা। তিনি সকলকে আশ্বস্থ করে বলেন, আমি নৌকা নিয়ে চেয়ারম্যান হতে পারলে, ইউনিয়নের সকল মানুষ নিরাপদে ও শান্তিতে থাকবে। শিক্ষার্থী, কৃষকসহ সাধারণ মানুষ খুবই বঞ্চিত। আমি নির্বাচিত হতে পারলে, মাদক, সন্ত্রাস, বাল্য বিবাহ, যুলুম নির্যাতন রোধ করতে চাই। অধিকার ও ন্যায্য হক থেকে বঞ্চিত মানুষদের হক আদায় ও অদিকার প্রতিষ্ঠার জন্য আমার সংগ্রাম চলবে। আমি দলীয় সিদ্ধান্তের প্রতি সবসময় অনুগত। তাই যাকেই নৌকা দেওয়া হবে তাকেই আমাদেরকে ভোট দিতে কার্পন্য করবো না বলে তিনি অঙ্গীকার ব্যক্ত করেন।