‘আবাদচন্ডিপুরের দেবাশীষের জমি জোর করে দখল করতে চায় শেখ শাজাহান গং’


324 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
‘আবাদচন্ডিপুরের দেবাশীষের জমি জোর করে দখল করতে চায় শেখ শাজাহান গং’
মে ২৭, ২০১৮ ফটো গ্যালারি সাতক্ষীরা সদর
Print Friendly, PDF & Email

স্টাফ রিপোর্টার ::
পৈতৃক সূত্রে পাওয়া ২ একর ৮৯ শতক জমি ভোগদখলে রেখে সেখানে মৎস্য ঘের পরিচালনা করে আসছেন শ্যামনগরের পানখালি (আবাদচন্ডিপুর) গ্রামের ভীষ্ম দেব মন্ডলের ছেলে দেবাশীষ মন্ডল। যথাসময়ে এ জমির মিউটেশনও হয়েছে। অথচ একই এলাকার সৈয়দ আলীর ছেলে শেখ শাজাহান হোসেন, তার ছেলে রাজু শেখ এবং শাহাদাত হোসেনের ছেলে তৌহিদ ও শহীদ ওই সম্পত্তি দখলের জন্য জাল ও ভূয়া কাগজপত্র তৈরী করেছে। তারা ১ একর ৪৫ শতক জমি মাঠ পরচা দেখিয়ে তা দখলের পায়তারা শুরু করেছে।
রোববার সাতক্ষীরা প্রেসক্লাবে এক সংবাদ সম্মেলন করে একথা জানান পানখালি গ্রামের দেবাশীষ মন্ডল। তিনি বলেন এ বিষয়ে বুড়িগোয়ালিনী ইউনিয়ন ভূমি অফিসে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, শেখ শাজাহান হোসেন গং যে মাঠ পরচা দেখাচ্ছে, অফিসের মুড়ি বইতে তার কোন নাম নেই। অথচ গায়ের জোরে এই সম্পত্তি দখলের জন্য তারা মরিয়া হয়ে উঠেছে। ঘের থেকে তারা মাছ ধরে নিয়ে যাচ্ছে। বাধা দিলে খুন জখমের ভয় দেখাচ্ছে এমনকি দেশছাড়া করারও হুমকি দিচ্ছে। ওই সম্পত্তিতে থাকা মন্দিরটিও ধ্বংস করে দেওয়ার হুমকি দিয়েছে তারা। দেবাশীষ মন্ডল আরও বলেন, শাজাহান শেখ বুড়িগোয়ালিনী ইউনিয়নের দুর্নীতিবাজ ভূমি অফিসার আবু সুফিয়ানকে টাকা দিয়ে ম্যানেজ করে ৫২১/১ নম্বর খন্ড দেখিয়ে একটি ভূয়া রিপোর্ট তৈরী করেছে। অথচ অফিসে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, ৫২১/১ দাগের কোন অস্তিত্ব নেই। ভূমি অফিসার জালিয়াতির আশ্রয় নিয়েছেন।
সংবাদ সম্মেলনে দেবাশীষ আরও বলেন, এ বিষয়ে বুড়িগোয়ালিনী ইউপি চেয়ারম্যানের উপস্থিতিতে একটি শালিস বসে। কাগজপত্র পর্যালোচনা করে শালিস কর্তৃপক্ষ দেবাশীষের ২ একর ৮৯ শতক জমি বুঝিয়ে দেওয়ার নির্দেশ দেয়। কিন্তু তার পরও তারা জমি দখলের চেষ্টা চালাচ্ছে। এ নিয়ে দেবাশীষ শ্যামনগর থানায় নিরাপত্তা চেয়ে একটি জিডি করেছেন, নম্বর ৮৯৮, তারিখ ১২.১২.২০১৭।
সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন, গত ২২ মে গভীর রাতে শেখ শাজাহান, তার ছেলে রাজু শেখ, শাহাদাত হোসেনের ছেলে তৌহিদ ও শহীদ সহ ১০/১২ জনের একটি বাহিনী ওই ঘেরে মাছ ধরতে যায় এবং মন্দিরটি ভাংচুরের চেষ্টা করে। এতে বাধা দেওয়ায় দেবাশীষের মেয়ের মাথায় তারা হাতুড়ি দিয়ে আঘাত করে। এরপর থেকে দেবাশীষ মন্ডল ও তার পরিবার নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন। তিনি এ বিষয়ে প্রতিকার দাবি করে সাতক্ষীরা পুলিশ সুপারের দৃষ্টি আকর্ষন করেছেন।

##