আম গাছে এসেছে মুকুল : এবারও সাতক্ষীরার আম রপ্তানী হবে যুক্তরাজ্যে


1186 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
আম গাছে এসেছে মুকুল : এবারও সাতক্ষীরার আম রপ্তানী হবে যুক্তরাজ্যে
ফেব্রুয়ারি ১৯, ২০১৬ ফটো গ্যালারি সাতক্ষীরা সদর
Print Friendly, PDF & Email

ইব্রাহিম খলিল :
এসেছে ঋতুরাজ বসন্তকাল। ফাল্গুনের শুরুতেই আম গাছে মুকুল থাকবেনা, ফুলের গন্ধ ছড়াবেনা, মৌমাছির দল মধু আহরনে বের হবেনা এমনতো তো হতে পারে না। এখন সাতক্ষীরার সর্বত্র আম্রকাননে মুকুলের ফুটন্ত ডালপালা উকি মেরে বের হতে শুরু হয়েছে। আমগাছের মুকুলের সুঘ্রাণে উপচে যাচ্ছে জেলার আকাশ বাতাশ। শীতের সমাপ্তি লগ্নে সাতক্ষীরা জেলার গাছে গাছে ভরপুর হয়ে উঠতে শুরু করেছে আমের মুকুল।
জেলায় এবার আমের আবাদ করা হয়েছে ৩৬২১ হেক্টর জমিতে। এর মধ্যে বাগানের সংখ্যা ৪২৬৭ টি। চাষির সংখ্যা ৯৭৬০ জন। আম উৎপাদনের লক্ষ মাত্রা নির্ধারন করা হয়েছে ৫০ হাজার ১০০ মেট্রিক টন।
সাতক্ষীরা জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর সুত্রে জানা যায়, জেলায় ৩৬ হাজার ২১ হেক্টর জমিতে আমের আবাদ হয়েছে। এর মধ্যে সাতক্ষীরা সদর উপজেলায় ১১৮৮ হেক্টর জমিতে, কলারোয়া উপজেলায় ৩৫০ হেক্টর জমিতে ৩৫০, তালা উপজেলায় ৬৫০ হেক্টর জমিতে ৬৫০ হেক্টর জমিতে, দেবহাটা উপজেলায় ৩৬৮ হেক্টর জমিতে, কালিগঞ্জ উপজেলায় ৮০৫ হেক্টর জমিতে, আশাশুনি উপজেলায় ১২০ হেক্টর জমিতে ও শ্যামনগর উপজেলায় ১৪০ জমিতে আমের আবাদ করা হয়েছে।

সাতক্ষীরায় উৎপাদিত আম অনেক সুস্বাদু হওয়ায় আমের কদর রয়েছে পুরো দেশজুড়ে। এই সাতক্ষীরা অঞ্চলের আম দেশীয় বাজারের পাশাপাশি বিদেশেও রপ্তানী হয়েছে অর্থাৎ যুক্তরাজ্যের বাজারে। সাতক্ষীরার বিভিন্ন এলাকাজুড়ে ভিন্ন ভিন্ন প্রজাতির ল্যাংড়া, গোপালভোগ, হিমসাগর, লোকনা, মহনভোগ, ফজলি, আশ্বিনা, রুপালী, মল্লিকা, সহ বিভিন্ন প্রকার আমের চাষ হয়। মৌসুমের শুরুতেই আমগাছের মুকুল টেকাতে পরিচর্যার পাশাপাশি ওষুধ স্প্রে করছে আমচাষীরা যাতে মুকুল ঝরে না পড়ে। আবহাওয়া ভালো থাকলে এই মৌসুমে আমের বাম্পার ফলন হবে বলে আশা করছে তারা। এই আমচাষে সাধারনত ব্যাক্তি মালিকানার পাশাপাশি লিজে আমগাছ নিয়ে আমচাষ করে জীবীকা নির্বাহ করেন অনেকে।

আমচাষী সদরের আমিনুর রহমান আলম জানান, এ ব্যাপারে উপযুক্ত প্রশিক্ষণ ও সচেতনামূলক প্রচারনা সরকারী বেসরকারী ভাবে চালালে আমগাছ মহা উন্নয়ন সম্ভবনাময় চাষ হয়ে উঠবে সাতক্ষীরাবাসীর জন্য। তিনি দুই বিঘা জমিতে আমের আবাদ করেছেন। তিনি তার বাগানে হিমসাগর, ল্যাংড়া, গোপালভোগ রুপালি ও মল্লিকার আবাদ করছেন। এখনও তার বাগানে খুবই ভালো ভাবে আমের মুকুল আসতে শুরু করেছে। যতি কোন প্রাকৃতিক দুর্যোগ না হয় তাহলে তার বাগানে প্রচুর পরিমান আম হবে বলে তিনি আশাবাদ ব্যাক্ত করেন।
সাতক্ষীরা কৃষি সম্প্রসারন বিভাগের উপ-পরিচালক কৃষিবিদ আব্দুল মান্নান জানান, জেলায় এবার ৩৬২১ হেক্টর জমিতে আমের আবাদ হয়েছে। আম চাষের ব্যাপারে প্রান্তিক পর্যায়ে তাদের কর্মকর্তারা এবং বেসরকারীভাবে কিছু প্রতিষ্ঠানের পক্ষ থেকে আমচাষীদের মৌলিক প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়েছে।  তিনি আরও বলেন, এবারও স্থানীয় চাহিদা মেটানোর পাশাপাশি যুক্তরাজ্যের বাজারে আম রপ্তানী করা সম্ভব হবে এমনটাই আশাবাদ ব্যক্ত করেছেন কৃষি বিভাগের এই কর্মকর্তা।