আরও হামলার আশঙ্কা যুক্তরাজ্যের


312 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
আরও হামলার আশঙ্কা যুক্তরাজ্যের
অক্টোবর ৯, ২০১৫ জাতীয় ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

অনলাইন ডেস্ক
বাংলাদেশে থাকা পশ্চিমা দেশের নাগরিকদের ওপর ‘আরও হামলা’ হতে পারে বলে সতর্ক করেছে ব্রিটিশ পররাষ্ট্র দফতর।

ব্রিটিশ ফরেন অ্যান্ড কমনওয়েলথ অফিসের ওয়েবসাইটে দেওয়া এক সতর্কবার্তায় এ কথা বলা হয়েছে। বাংলাদেশে সন্ত্রাসী হামলার ‘উচ্চ ঝুঁকি রয়েছে’ বলে উল্লেখ করা হয়েছে এতে।

বাংলাদেশ সফরকারিদের ‘বিশেষ সতর্কতা’ অবলম্বনের পরামর্শ দিয়ে এতে বলা হয়, ‘যেসব অনুষ্ঠানে বিশেষ করে পশ্চিমা দেশের নাগরিকরা জড়ো হন, সেগুলোতে যোগদানের সময় সতর্কতা অবলম্বন করতে হবে।’

সতর্কবার্তাটির প্রথমদিকে জরুরি প্রয়োজন ছাড়া বাংলাদেশের পার্বত্য চট্টগ্রামের তিন জেলা ভ্রমণে নিষেধ করা হয়। তবে চট্টগ্রামের অন্যান্য অঞ্চল ও শহর এই নিষেধাজ্ঞার বাইরে বলে উল্লেখ করা হয় এতে। বাংলাদেশের অন্যান্য অংশে ভ্রমণের ক্ষেত্রে ‘সতর্কতা জারি করা আছে কি-না’ তা দেখে নেওয়ার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে।

আরও হামলার আশঙ্কা যুক্তরাজ্যের
সতর্কবার্তায় দেওয়া বাংলাদেশের মানচিত্র যাতে পার্বত্য চট্টগ্রামকে অন্য রঙে দেখানো হয়েছে
উল্লেখ্য, গত ২৮ সেপ্টেম্বর রাতে রাজধানীর গুলশানে ইতালির নাগরিক সিজার তাভেলা খুনের ঘটনায় বাংলাদেশে বসবাসরত যুক্তরাষ্ট্রের নাগরিকদের জন্য ভ্রমণ সতর্কবার্তা জারি করে যুক্তরাষ্ট্র। তখন যুক্তরাজ্যসহ একাধিক পশ্চিমা দূতাবাসের পক্ষ থেকে উদ্বেগ প্রকাশ করা হয়। এর পাঁচ দিনের মাথায় রংপুরের কাউনিয়ায় গুলি করে হত্যা করা হয় জাপানের নাগরিক হোশি কোনিওকে। গত ৬ অক্টোবর সারাদেশে বিদেশিদের নিরাপত্তার বিষয়ে কূটনীতিকদের আশ্বস্ত করে সরকার।

ওই দিন বিকেলে রাষ্ট্রীয় অতিথি ভবন পদ্মায় বাংলাদেশে কর্মরত বিভিন্ন দেশের রাষ্ট্রদূত, হাইকমিশনার, মিশন প্রধান এবং দাতা সংস্থার প্রধানদের ব্রিফ করেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ এইচ মাহমুদ আলী। পরে এ বিষয়ে ঢাকায় ব্রিটিশ হাইকমিশনার রবার্ট গিবসন সাংবাদিকদের বলেন, ‘বিদেশি হত্যাকাণ্ডের পর বাংলাদেশ সরকার যেসব পদক্ষেপ নিয়েছে এতে আমরা কৃতজ্ঞ।’ পরে পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ এইচ মাহমুদ আলী বলেন, ‘নিরাপত্তা ব্যবস্থার ক্ষেত্রে যে ধরনের পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে তাতে কূটনীতিকরা সন্তুষ্ট। তবে তারা সারাদেশে বিভিন্ন স্থানে কর্মরত বিদেশিদের নিরাপত্তা জোরদার করার জন্য বলেছেন। সরকার অবশ্যই সারাদেশে বিদেশিদের নিরাপত্তা রক্ষায় ব্যবস্থা নেবে।’

ইতালি ও জাপানের দুই নাগরিকের হত্যাকাণ্ডের পরই মধ্যপ্রাচ্যভিত্তিক জঙ্গিগোষ্ঠী ইসলামিক স্টেট (আইএস) দায় স্বীকার করে বিবৃতি দেয় বলে আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমে খবর প্রকাশিত হয়। তবে সরকারের দাবি আইএসের এমন দাবির কোনো ভিত্তি পাওয়া যায়নি।