আর কখনও সাজবে না সাতক্ষীরার মুক্তামণি !


769 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
আর কখনও সাজবে না সাতক্ষীরার মুক্তামণি !
মে ২৪, ২০১৮ ফটো গ্যালারি সাতক্ষীরা সদর
Print Friendly, PDF & Email

স্টাফ রিপোর্টার ::
বিরল রোগে আক্রান্ত মুক্তামনির সাজগোজ অনেক প্রিয় ছিলো। ডান হাতে সমস্যা থাকলেও বা হাতে ব্রেসলেট পরতো। ছোট বেলা থেকেই মুক্তামণির সাজগোজের অভ্যাস ছিলো। সুন্দর পোশাক পরতেও পছন্দ করে সে। সেই কবে চার বছর আগে কনে সেজেছিল। মোবাইল ফোনে মেয়ের সাত বছর বয়সের সেই ছবি দেখালেন বাবা মো. ইব্রাহীম হোসেনের কাছে। তখনও এত ফুলে যায়নি তার হাত, ধরেনি পোকাও। কিন্তু একটু ফোলা ছিল। ছবিটিতে দেখা গেলো, মুক্তামণির বাঁ-হাতভর্তি লাল-নীল রঙের চুড়ি। গলায় তিন লহরের গয়না। ডানহাতের আঙুলে তিনটি আংটি। লাল জামার সঙ্গে মিলিয়ে সোনালি জরির ওড়না। নকল চুলের একপাশে বিনুনি আর মাথার সামনে রঙ-বেরঙের গয়না। আছে টিপ-লিপস্টিকও। সব মিলিয়ে বউয়ের সাজে মুক্তামণি।
কনের সাজে সাত বছরের মুক্তামণি ‘সেই শেষবার। তারপর আর এমন করে সাজা হয়নি ওর। আর এভাবে সাজার স্বপ্ন দেখেনি আমার মেয়ে’ বলতে বলতে ধরে আসে মায়ের গলা। এভাবেই তিনি বলতে থাকলেন, ‘এই লাল ওড়না দুই বোনের জন্য এক পহেলা বৈশাখে কিনে আনছিল ওদের বাবা। মেয়েরা সাজতে পছন্দ করে বলে ওদের বাবা প্রচুর সাজগোজের জিনিস কিনে আনে। আর ওর মিন্দি (মেহেদি) দেওয়া না দেখলে আপনি বিশ্বাস করিবেন না। ঘাড় দিয়ে চেপে আরেক হাতে সে মিন্দি দেয়, কারও দেওয়া তার পছন্দ হয় না।’ বিরল রোগে আক্রান্ত হওয়ায় সাতক্ষীরার মুক্তামণির মৃত্যুর খবর সবার হৃদয় ছুঁয়েছে। এই ছবি এখন পরিবারে জন্য সারাজীবনের জন্য স্মৃতি হয়ে থাববে। আর কখন সাজবে সাজবে না। মেহেদী রঙ দিয়ে নিজের হাত নিজে সাজাবে না কখনও।