আশাশুনিতে আমন ধান চাষীদের মাথায় হাত


408 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
আশাশুনিতে আমন ধান চাষীদের মাথায় হাত
জুলাই ৩০, ২০১৫ আশাশুনি
Print Friendly, PDF & Email

গোপাল কুমার, আশাশুনি :
আশাশুনি উপজেলার বড়দল-খাজরা ইউনিয়নের আমন ধান চাষীদের মাথায় হাত উঠেছে। টানা বর্ষণে তলিয়ে গেছে বীজ তলা। সরেজমিনে ঘুরে দেখা গেছে, এলাকার হাজার হাজার একর জমির পানি নিস্কাশনের  জন্য গদাইপুর-তুয়ারডাঙ্গা ও বামনডাঙ্গা স্লুইচ গেটে ব্যবহার হয়ে থাকে। কিন্তু অত্র স্লুইচ গেটের খাল দুইধার খন্ড খন্ড করে বেধে নেওয়ায় পানি সরবরাহে খালের মধ্যস্থল দিয়ে সামান্য একটু ড্রেন থাকায় দারুনভাবে ব্যহত হচ্ছে। যাহা প্রভালশালী মহলের দখলে রয়েছে। কিছু অংশ ছাড়া থাকলেও তাহাও রয়েছে প্রভাবশালীদের দখলে নেট পাটা দিয়ে রেখেছে। কোন কোন জায়গায় বাধ দিয়ে রেখেছে। ফলে পানি নিস্কাশন দারুণভাবে ব্যহত হচ্ছে। এ সময় চাষীরা জানায় তাদের প্রথম বীজতলা নষ্ট হয়ে গেছে। তারা পুনরায় আবার অতি কষ্টে বীজ ধান কিনে পুনরায় বীজ তলা প্রস্তুত করলেও তাহাও নষ্ট হয়ে যায়। এছাড়া কয়েকজন কৃষক জানায় দু দুবার বীজবপন করেছি কিন্তু বীজ তলা তৈরী করতে পারিনি। এখন আর নতুন করে বীজ কিনবার মত সামর্থ আমাদের আর নেই। ঐ সময় চাষীরা আরও অভিযোগ করে বলেন স্লুইচ গেটের পানি নিস্কাশনের খাল সরকার কেন যে ইজারা দেন তা আমাদের জানা নেই। এলাকা ঘুরে দেখা গেছে, হেতাইলবুনিয়া, তুয়ারডাঙ্গা, বাইনতলা, গদাইপুর, হেতাইলখালী, কদমতলা, ঘুঘুমারী, সুরেরাবাদ, তেলিখালী, মাদিয়া, লক্ষ্মীখোলা, কদমতলা,  জেলপাতুয়া, গোয়ালডাঙ্গা, বেগুনখালী, নড়েরাবাদ, বামনডাঙ্গা, সহ উপজেলার বুধহাটা কুল্যা, কাদাকাটি ইউনিয়নের আমধান চাষীরা রয়েছে ঘোর বিপাকে।