আশাশুনিতে তলপেটে লাথি মেরে হত্যা করলো অন্তঃসত্তা গৃহবধুর ৭ মাসের বাচ্চা !


757 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
আশাশুনিতে তলপেটে লাথি মেরে হত্যা করলো অন্তঃসত্তা গৃহবধুর ৭ মাসের বাচ্চা !
জুন ১৪, ২০২১ আশাশুনি ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

এস কে হাসান :
সাতক্ষীরার আশাশুনি উপজেলার কাকবাসিয়া গ্রামে জমিজমা সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে সংঘর্ষে ৭ মাসের অন্তঃসত্তা গৃহবধু জোৎস্না আরার (২৫) পেটের বাচ্চা মারাগেছে। সোমবার ভোরে সাতক্ষীরা সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় জোৎস্না আরা মৃত বাচ্চা প্রসব করেন। প্রতিপক্ষরা গৃহবধু জোৎস্নার তলপেটে লাথি মারায় বাচ্চাটি আঘাত পেয়ে মারা যায় বলে জানাগেছে। পুলিশ মৃত বাচ্চাটিকে উদ্ধার করেছে। আর জোৎ¯œা আরা সাতক্ষীরা হাসপাতালে মৃত্যু সাথে পাঞ্জা লড়ছে। গত শনিবার (১২ জুন) বিকালে সংঘর্ষের ঘটনাটি ঘটে।

জোৎ¯œার স্বামী বিল্লাল হোসেন জানায়, দীর্ঘকাল নানার বাড়ির জমিতে বসবাস করে আসছে জোৎ¯œার স্বামী বিল্লাল হোসেনসহ তারা তিন ভাই। ওই জমি নিয়ে বিরোধ চলে আসছে একই গ্রামের মৃত মজিদ সানার ছেলে সাঈদ সানার সাথে। সম্প্রতি সাঈদ সানা সেখানে জমি দাবি করে আশাশুনি থানায় লিখিত অভিযোগ করেন। আশাশুনি থানা পুলিশ শান্তিশৃংখলা বজায় রাখার স¦ার্থে উভয় পক্ষকে থানায় হাজির হওয়ার নোটিশ দেয়। থানার বসাবসি করে বিরোধপূর্ণ ওই জমি স্থানীয় আমিন দিয়ে মাপজরিপের সিদ্ধান্ত হয়। সে মোতাবেক গত ১২ জুন মাপ জরিপ চলাকালে উভয় পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ শুরু হয়। প্রতিপক্ষের লোকজন বিল্লাল হোসেন ও তার ভাই আলমগীরকে বেদম মারপিট করলে জ্ঞান হারিয়ে মাটিতে পড়ে যায়। তাদের চিৎকারে আলমগীরের স্ত্রী সাবিনা (২০) ও ৭ মাসের অন্তঃসত্তা জোৎ¯œা (২৫) ঠেকাতে গেলে সাঈদ ও হালিম তান্ডব চালিয়ে অন্তঃসত্তা জোৎস্নার তলপেটে লাথি মেরে এবং রক্তাত্ত জখম করে। হামলাকারীরা আলমগীরের স্ত্রী সাবিনাকে টেনে-হেছড়ে নির্যাতন চালায়। হমলাকারীরা ঘরের দরজা ভেঙ্গে ভিতরে প্রবেশ করে তান্ডব চালায়।

এক পর্যায়ে স্থানীয়রা জোৎ¯œা আরাসহ আহতদেরকে উদ্ধার করে প্রথমে আশাশুনি হাসপাতালে ভর্তি করে। সেখানে অবস্থার অবনতি হওয়ায় জোৎস্নাসহ তাদেরকে সাতক্ষীরা সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সোমবার সকালে জোৎ¯œা মৃত বাচ্চা প্রসব করেন।

কাকবাসিরা গ্রামের সাঈদ হোসেন জানান, জোৎ¯œা ও তার স্বামী প্রথমে তাদের উপর হামলা চালায়। হামলায় আমার ভাইসহ ৫ জন জখম হয়েছে। আহতরা সবাই হাসপাতালে ভর্তি রয়েছে। জোৎ¯œার তলটেপে লাথি মারার অভিযোগ সঠিক মিথ্যে। সংঘর্ষের ঘটনায় আমরাও থানায় মামলা করেছি।

এ ব্যাপারে আশাশুনি থানার ওসি গোলাম কবির জানায়, জমিজমা নিয়ে বিরোধকে কেন্দ্র করে সেখানে উভয় পক্ষের সংঘর্ষ হয়। প্রতিপক্ষের হামলায় জোৎস্না আরা মারাত্বক ভাবে জখম হয়। তিনি ৭ মাসের অন্তঃসত্তা ছিলেন। তার তলপেটে আঘাত লাগার কানে হাসপাতালে ভর্তি হওয়ার পর সোমবার সকালে মৃত বাচ্চা প্রসব করে জোৎস্না আরা। এ ব্যাপারে উভয় পক্ষের মামলা হয়েছে। বাচ্চা মারা যাওয়ার ঘটনায় যথাযথ ধারায় মামলাটি রেকর্ড করা হয়েছে। পুলিশ আসামীদেরকে ধরার চেষ্টা করছে।