আশাশুনিতে দুই মহিলার বাড়িতে হামলা, ভাংচুর


188 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
আশাশুনিতে দুই মহিলার বাড়িতে হামলা, ভাংচুর
আগস্ট ৮, ২০২০ আশাশুনি ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

আসাদুজ্জামান :
সাতক্ষীরার আশাশুনি উপজেলার তেতুলিয়া গ্রামের খোলপেটুয়া নদীর চরভরাটি জমিতে বসবাসকারি দুই নারীর বাড়িতে কওমী মাদ্রাসার ছাত্রসহ গ্রামবাসিদের হামলা, ভাংচুর ও মারপিটের ঘটনায় থানায় এজাহার দায়ের করা হয়েছে। শনিবার দুপুরে তেতুলিয়া গ্রামের আবু হাসানের স্ত্রী নির্যাতিত রোজিনা খাতুন বাদি হয়ে ১৭ জনের নাম উলে¬খসহ অজ্ঞাতনামা আরো ২২ জনকে আসামী করে উক্ত এজাহার দায়ের করেন। পুলিশ বলছেন, ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারের পক্ষ থেকে থানায় একটি অভিযোগপত্র জমা দেয়া হয়েছে। দ্রুত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

ঘটনার বিবরণে জানা যায়, ঘরের চালে ঢিল ছোড়ার অভিযোগে শুক্রবার ভোরে তেতুলিয়া হামিইউছুনুর কওমি মাদ্রাসার ছাত্র নজরুল ইসলামকে ডেকে নিয়ে বাড়িতে আটক রেখে তার কাছে টাকা দাবী করে না পেয়ে তার শরীরে আলকাতরা মাখিয়ে ছেড়ে দেয়ার অভিযোগে কোহিনুর বেগম ও তার মেয়ে রোজিনার বাড়িতে হামলা চালায় একই গ্রামের রুবেলের নেতৃত্বে উক্ত মাদ্রাসার ছাত্রসহ কয়েক’ শ এলাকাবাসী। এ সময় তারা তাদের বাড়ি, একটি ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ও পোল্ট্রি ফার্মে হামলা, ভাঙচুর ও লুটপাট চালায়।

শুক্রবার সকাল ৯টা থেকে দুপুুর ১২টা পর্যন্ত সেখানে এ হামলা ও ভাংচুরের ঘটনা ঘটে। এ হামলায় তাদের ছয়জনসহ মোট ১০ জন আহত হন। লুটপাট করা হয় নগদ টাকা ও সোনার গহনাসহ প্রায় দুই লক্ষাধিক টাকার মালামাল। পরে আশাশুনি থানার ওসির নেতৃত্বে পুলিশ গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনেন। আহতদের উদ্ধার করে পুলিশ হাসাপাতালে ভর্তি করেন।

এদিকে, এ ঘটনায় তেতুলিয়া গ্রামের আবু হাসানের স্ত্রী রোজিনা খাতুন বাদি হয়ে ১৭জনের নাম উল্লেখসহ অজ্ঞাতনামা আরো ২২ জনের বিরুদ্ধে শনিবার দুপুরে থানায় একটি এজাহার জমা দিয়েছেন বলে জানা গেছে।

আশাশুনি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) গোলাম কবীর বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারের পক্ষ থেকে থানায় একটি অভিযোগপত্র জমা দিয়েছেন। দ্রুত এটির কার্যকরী ব্যবস্থা নেয়া হবে এই পুলিশ কর্মকর্তা আরো জানান।##