আশাশুনির ইউনাইটেড মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে ছাত্রীকে কু প্রস্তাবের দেওয়ার প্রতিবাদে মানববন্ধন


407 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
আশাশুনির ইউনাইটেড মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে  ছাত্রীকে কু প্রস্তাবের দেওয়ার প্রতিবাদে মানববন্ধন
জানুয়ারি ৭, ২০১৬ আশাশুনি ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

কৃঞ্চ ব্যানার্জী : সাতক্ষীরার আশাশুনি উপজেলার খাজরা ইউনাইটেড মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক সাইদার রহমানের বিরুদ্ধে এক এসএসসি পরীক্ষার্থী  ছাত্রীকে কু প্রস্তাব দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে। এঘটনা জানাজানি হওয়ার পর ওই স্কুলের প্রধান শিক্ষক পালাতোক রয়েছে বলে জানাগেছে। এ বিষয়ে ছাত্রী বাদি হয়ে প্রধান শিক্ষককে অভিযুক্ত করে আশাশুনি থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন।

খাজরা ইউনাইটেড মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি বিপ্লব কান্তি দাশ ও সহকারী প্রধান শিক্ষক  আকুল কৃষ্ণ বাছাড় জানায়, বৃহস্পতিবার  সকাল সাড়ে ৭টার দিকে ওই এস এস সি পরীক্ষার্থী স্কুলে প্রাইভেট পড়তে আসলে প্রধান শিক্ষক সাইদার রহমান ছাত্রীকে কু প্রস্তাব দেন ও তার রুমের ভিতরে নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করে। বিষয়টি ছাত্রী সহকারি শিক্ষিকা শরিফা নাসরিন কে জানালে তিনি ম্যানেজিং কমিটি ও সহকারী প্রধান শিক্ষককে অবহিত করেন।

assasuni photo 2
এদিকে, বৃহস্পতিবার দুপুর ১২টায় শাস্তি ও অপসরণের দাবিতে বিদ্যালয় প্রাঙ্গনে বিক্ষোভ সমাবেশ ও মানববন্ধন করা হয়েছে। মানববন্ধন খাজরা ইউনাইটেড মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি বিপ্লব কান্তি দাশের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথির বক্তব্য দেন  খাজরা ইউপি চেয়ারম্যান এস এম শাহানেওয়াজ ডালিম, বিশেষ অতিথি যুবলীগ নেতা ও বিদ্যুৎ শাহি সদস্য সাইফুল ইসলাম। অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য দেন সহকারী প্রধান শিক্ষক আকুল কৃষ্ণ বাছাড়, শিক্ষক মশিউর রহমান, মফিজুল ইসলাম, দেবব্রত সানা, শরিফা নাসরিন ও আনারুল ইসলাম প্রমূখ।  মানববন্ধনে  বিদ্যালয়ের শত শত ছাত্র-ছাত্রী, শিক্ষক ও  অভিভাবকরা অংশ গ্রহন করেন।
এসময় বক্তরা লম্পট প্রধান শিক্ষকের দ্রুত শাস্তির দাবি জানান। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক সহকারি শিক্ষক জানায়, পূর্বের একাধিক বার খাজরা ইউনাইটেড মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ও কম্পিউটার শিক্ষিকার বিরুদ্ধে একাধিক অভিযোগ উঠেছে।
এ বিষয়ে আশাশুনি থানার এস আই আব্দুল রশিদ জানায়, অভিযোগের ভিত্তিতে আমি ঘটনা স্থান পরিদর্শন করেছি। মেয়েটির মুখে সব শুনেছি, আমি থানায় গিয়ে ওসি স্যারকে সব বলে ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

এ বিষয়ে খাজরা ইউনাইটেড মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক সাইদার রহমান জানায়, মেয়েটির একটি ছেলের সাথে সম্পর্ক রয়েছে। আমি বাঁধা দেওয়ায় আমার বিরুদ্ধে অভিযোগ করেছে।