আশাশুনির বুধহাটা বাজারে অবৈধভাবে সড়ক দখল !


446 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
আশাশুনির বুধহাটা বাজারে অবৈধভাবে সড়ক দখল !
অক্টোবর ২৭, ২০১৮ আশাশুনি ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

* সড়ক দখলমুক্ত করার আবেদন

॥ এস,কে হাসান ॥

আশাশুনি উপজেলার ঐতিহ্যবাহী বুধহাটা বাজারের অভ্যন্তরিন সড়কগুলো ব্যবসায়ীদের অবৈধ দখলে থাকায় জনদুর্ভোগ চরম আকার ধারণ করেছে। সড়কগুলো অবৈধ দখলমুক্ত করতে উপজেলা নির্বাহী অফিসার বরাবর আবেদন করা হয়েছে।
বাজারটিতে প্রতিদিনি হাজার হাজার মানুষের আগমন ঘটে থাকে। বাজার অভ্যন্তরের সড়কগুলো পথচারী চলাচল ও ছোট যানবাহন চড়ে ক্রেতা-বিক্রেতাদের যাতয়াতের কথা। সাথে সাথে দোকানের মালামাল বহনের জন্য ব্যবাহারের কথা। কিন্তু সড়কগুলো অবৈধ দখল নিয়ে ব্যবসায়ীরা পথের মধ্যে দোকান বসানোয় পথচারী ও যানবাহন ঢোকানো সম্ভব হয়না। আবার অতিকষ্টে যানবাহন প্রবেশ ও পথচারী চলাচল করতে গেলে শুরু হয় ভয়াবহ জট। ফলে দীর্ঘক্ষণ যানবাহন আটকা পড়ে থাকে এবং পথচারীরা খুবই কষ্টকর পরিস্থিতির মোকাবিলা করে থাকেন। বাজারের প্রায় সকল সড়ক বা গলিপথে অবৈধ দখলের নজির থাকলেও সবচেয়ে পীড়াদায়ক হয়ে দেখা দিয়েছে, বাস স্ট্যান্ড হতে স্কুল সড়ক হয়ে নীমতলা মোড় থেকে খেয়াঘাট পর্যন্ত, নীমতলা থেকে কাঁচা বাজার পর্যন্ত, কাঁচা বাজার থেকে গাজী মার্কেটের মোড় পর্যন্ত এবং খেয়াঘাট মোড় থেকে গরুহাট সড়কের আগ পর্যন্ত। এসব সড়কে ফলফলাদির দোকান, পোল্ট্রির দোকান, আখের দোকান, ভাজার দোকান, পোশাকের দোকানসহ বহু চটফড়িয়া ও ছোট ছোট খাটের উপর দোকান রয়েছে। এসব দোকানের কোন কোনটি একেবারে সড়কের মাঝ খানে, কোন কোনটি সড়কের এক পাশের অংশ বিশেষ দখল নিয়ে এবং কোন কোনটি ফুটপথ দখল নিয়ে বসানো হয়েছে। অনেক স্থানে স্থায়ী দোকানের সামনের স্থান দখল করে নেওয়া হয়েছে। দোকানে রৌদ্র-বর্ষার হাত থেকে রক্ষা পেতে পলিথিন বা অন্য কিছৃু দিয়ে ছাউনি দেওয়া ও দড়ি দিয়ে বেঁধে রাখায় যানবাহন চলাচলে প্রতিবন্ধকতার সৃষ্টি হয়ে থাকে। অবৈধ দখলখারীরা টাকা দিয়ে জায়গার দখল পেয়েছি, আমাদের ব্যবসা বন্দ করবে কে? এমন ঔদ্ধত্ব্যপূর্ণ বক্তব্য ছুড়ে দিয়ে থাকে। এব্যাপারে বুধহাটা ইউপি চেয়ারম্যান আ ব ম মোছাদ্দেক জানান, অবৈধ দখল মুক্ত করতে অনেক ভাবে চেষ্টা করা হয়েছে, আইন শৃংখলা কমিটির সভায় উত্থাপন করা হয়েছে, কিন্তু কাজের কাজ কিছুই হয়নি। বাজারটিতে সিসি ক্যামেরা বসানো হয়েছে, কিন্তু দোকানের উপর দিয়ে পথ বন্দ করে পলিথিন ছেয়ে রাখায় সিসি ক্যামেরায় ছবি ধারণ সম্ভব হয়না। ফলে চোর ধরা ও আইন শৃংখলা রক্ষা করা সম্ভব হচ্ছেনা। এব্যাপারে কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহনের জন্য উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের আশু হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন ব্যবসায়ী ও এলাকাবাসী।

##