আশাশুনির সংবাদ॥ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের পরিচালনা পর্ষদে পুনঃরায় সভাপতি নির্বাচিত উপজেলা চেয়ারম্যান মোস্তাকিম


809 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
আশাশুনির সংবাদ॥ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের পরিচালনা পর্ষদে পুনঃরায় সভাপতি নির্বাচিত উপজেলা চেয়ারম্যান মোস্তাকিম
মে ১৬, ২০১৬ আশাশুনি ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

গোপাল কুমার, আশাশুনি :
আশাশুনি মডেল মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের দ্বি-বার্ষিক পরিচালনা পর্ষদের সভাপতি পদে পুনঃরায় নির্বাচিত হয়েছেন উপজেলা চেয়ারম্যান এবিএম মোস্তাকিম। এ নিয়ে তিনি ৬ষ্ঠ বারের মত বিনা প্রতিদ্বন্দিতায় নির্বাচিত হলেন। সোমবার মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসে অনুষ্ঠিত নির্বাচনে অভিভাবক সদস্য প্রভাষক মিজানুর রহমানের প্রস্তাবে শিক্ষক প্রতিনিধি ও অভিভাবক সদস্যদের সর্ব-সম্মতিক্রমে  উপজেলা চেয়ারম্যানকে পুনঃরায় নির্বাচিত করা হয়। এসময় উপস্থিত ছিলেন মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার সুলতান মাহমুদ, প্রধান শিক্ষক আশরাফুন্নাহার নার্গিস, শিক্ষক প্রতিনিধি আসিব ইকবাল, নারায়ন চন্দ্র পাল, আরিফা খাতুন, দাতা সদস্য আব্দুল গনি, অভিভাবক সদস্য রবিউল ইসলাম, রামিম  আব্দুল্লাহ, ফাতেমা খাতুন, জি,এম আল-ফারুক প্রমুখ।##

গ্রামের জ্যোৎনা ঢাকার নিয়ন আলোর মোহে ঘর ভাঙ্গল মিজানুরের

গোপাল কুমার, আশাশুনি:
গ্রামের জ্যোৎনা ঢাকার নিয়ন আলোর মোহে ঘর ভাংগল মিজানুরের হৃদয়ের ভালবাসার ঘরে ঢুকেছে মামলা  মোকদ্দমার কাল ছায়া। যাকে মন প্রাণ দিয়ে ভালবাসা নিজেকে বাচাতে তার বিরুদ্ধেই থানায় সাধারণ ডায়েরি করতে হলো প্রেমিক স্বামীকে। স্ত্রীকে অকৃত্রিম ভালবাসার এ পুরস্কার পেল উপজেলার প্রতাপনগর গ্রামের মহিদুর রহমান বাচ্চুর পুত্র মিজানুর রহমান। স্ত্রীর প্রত্যাখানে তার বিরুদ্ধে থানায় ৩৪৪নং সাধারণ ডায়েরির অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, মিজানুরের শ্যামনগর থানার বড় কুপোট গ্রামের অজির রহমান ঘোমারীর কন্যা জ্যোৎনা আক্তার (১৮) সাথে ৯মাস আগে বিয়ে হয়। ২১ এপ্রিল সে বায়না ধরে ঢাকায় তার বড় ভাই রাজুর বাসায় বেড়াতে যাবে। নতুন বউয়ের বায়না ফেলতে না পেরে সেখানে নিয়ে যায় মিজান। ঢাকায় ১৫দিন অবস্থানের পর  জ্যোৎনার চালচলন ধীরে ধীরে বদলাতে থাকে। সে আর মিজানকে সহ্য করতে পারছিলনা।
গত ৫মে মিজান তার স্ত্রীকে গ্রামের বাড়ী ফিরে যাওয়ার জন্য বললে  জ্যোৎনা সাফ জানিয়ে দেয়, গ্রামে যাওয়া দুরের কথা তার সাথে সে ঘরই করবে না। তাকে এক পর্যায়ে ঢাকার বাসা থেকে অপমান করে বের করে দেয়। ভালবাসার স্ত্রীর কাছ থেকে এ ঘৃনা আর বিশ্বাস ঘাতকার নীল ছোবলে মিজানের মেন ভেঙ্গে পড়ে। সে ভাবতে থাকে ইট, কাট, পাথরের ঢাকায় থেকে মায়া মমতার ভালবাসার স্ত্রী তার বিরুদ্ধে মামলা মোকদ্দমা করতে পারে। তাই নিজে বাদী হয়ে নিজেকে বাচাতে আশাশুনি থানায় মিজান একটি সাধারণ ডায়েরি করেছেন। আমার স্ত্রী  জ্যোৎনা ফিরে পেতে চাই। ###

আশাশুনির পল্লীতে এক ভুমিহীনের জমি জবর দখলের অভিযোগ

গোপাল কুমার, আশাশুনি :
আশাশুনির পল্লীতে এক ভুমিহীনের ভোগদখলীয় জমি জবর দখল নেওয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে। ভুমিহীন সাহেব আলী স্ত্রী তাছলিমা খাতুন জানান বিগত ২৫/৩০ বছর পূর্বে কয়রা উপজেলার সাতহালি গ্রামের সাহেব আলীর সাথে তার বিবাহ হয়। কিন্তু ৯৮ সালের বন্যায় স্বহায় সম্বল হারিয়ে নিঃস্ব হয়েছি। পরবর্তী ৯৯ সালে আশাশুনির বড়দল ইউনিয়নের দক্ষিণ বড়দলে ওয়াপদার খাস জমিতে বসবাস করে আসছি। কিন্তু ১০/১২ দিন পূর্বে আমার ভেগদখলীয় খাস জমিতে জোর পূর্বক ঘর বেধে দখল নিয়েছে মধ্যম বড়দল গ্রামের মৃত এলেম সরদার এর পুত্র আতারুল সরদার। ভুমিহীন অসহায় তাছলিমা খাতুন প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন। ##