আশাশুনির সংবাদ ॥ কচুয়া গার্লস স্কুলে শিশু সমাবেশ অনুষ্ঠিত


421 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
আশাশুনির সংবাদ ॥ কচুয়া গার্লস স্কুলে শিশু সমাবেশ অনুষ্ঠিত
আগস্ট ১২, ২০১৬ আশাশুনি ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

এস,কে হাসান ঃ আশাশুনি উপজেলার কুল্যা ইউনিয়নের কচুয়া গার্লস হাই স্কুলে শিশু সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে। (শুক্রবার) সকাল ১০.৩০ টায় এ সমাবেশের আয়োজন করা হয়।
আশাশুনি এডিপি ওয়ার্ল্ড ভিশন বাংলাদেশ স্পন্সরশীপ প্রজেক্টের আয়োজনে সমাবেশে ১৫০ জন স্পন্সর শিশু অংশ নেয়। শিশু আইন, শিশুর অধিকার, শিশু শ্রম, শিশু নির্যাতন ও শিশু বিবাহ সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা রাখেন, এড. মুনিরউদ্দিন, আশাশুনি প্রেসক্লাব সভাপতি জি এম মুজিবুর রহমান, স্পন্সরশীপ টীমলিডার সুবাস মন্ডল, শিক্ষক করুনাময় সানা. শিক্ষক ইউনুছ আলি ও চাইল্ড ফোরাম লিডার পবিত্র সরকার। শিশুরা তাদের অধিকার ও আইনী বিশ্লেষণ শোনার পর অধিকার প্রতিষ্ঠায় সচেতনতার সাথে কাজ করার পাশাপাশি শিশু বিবাহ, শিশু শ্রম ও শিশু নির্যাতন প্রতিরোধে পিতা-মাতাসহ একে অন্যের মাঝে মতবিনিময় করার অঙ্গীকার ব্যক্ত করেন।
###

কাদাকাটি ইউনিয়নে স্লুইস গেটের
খাল অবৈধ দখলের অভিযোগ

এস,কে হাসান আশাশুনি ঃ
আশাশুনি উপজেলার কাদাকাটি ইউনিয়নে স্লুইস গেটের খাল অবৈধ দখল নিয়ে পয়ঃ নিস্কাশনে বাধা সৃষ্টি করায় এলাকায় জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়েছে। এব্যাপারে উপজেলা প্রশাসনসহ উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের আশু হস্তক্ষেপ কামনা করা হয়েছে।
কাদাকাটি ইউনিয়নসহ পাশ্ববর্তী দরগাহপুর ও কুল্যা ইউনিয়নের হাজার হাজার ঘরবাড়ি, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, হাজার হাজার একর আবাদী ফসলী জমি ও মৎস্য ঘেরের পানি নিস্কাশনের কাজে ব্যবহৃত হয়ে থাকে মোকামখালী, সৈয়দপুর খাল ও হলপোতা খাল। খালের স্লুইস গেটের খালের মুখে ও খালের পাশে অবৈধ দখল ও মাটির বাঁধ বা নেটপাটা দিয়ে বিশেষ একটি মহল মাছ চাষ ও মাছ ধরার কাজ করে যাচ্ছে। ফলে খাল সংকীর্ণ হয়ে পড়েছে। পলি জমে খালের নাব্যতা হ্রাস পাওয়ায় পানি নিস্কাশন বাধাগ্রস্থ হচ্ছে। অবৈধ দখলকারীরা খালের পাশের জমি বাঁধতে বাঁধতে জমিতে পরিণত করেছে কিংবা মাছ চাষের ঘেরে পরিণত করেছে। হলদেপোতা কালভার্টের মুখে এবং উভয়পাশে একাধিক স্থানে নেটপাটা ও জাল পেতে মাছ ধরা হচ্ছে। ফলে বৃহৎখালের পানির ¯্রােত বাধাগ্রস্থ হয়ে জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হচ্ছে। বৃষ্টির পানির পাশাপাশি পাশ্ববর্তী তালা উপজেলা এলাকার পানি এই এলাকায় আসতে শুরু করায় কাদাকাটি ও কুল্যা ইউনিয়নে ব্যাপকভাবে পানি বৃদ্ধি হচ্ছে। এতে কৃষকরা অজানা আতঙ্কে ভুগছে। চলতি আমন মৌসুমে ধান চাষ করতে পারবে কিনা এনিয়ে সংশয়গ্রস্ত কৃষকরা হতাশ হয়ে পড়েছে। ঘরবাড়িও জলমগ্ন হয়ে বিধ্বস্থ হওয়ার উপক্রম হতে চলেছে। অপরদিকে মোকামখালী স্লুইস গেটের বাইরের পাট না থাকায় জোয়ারের পানি কমবেশী ভিতরে উঠছে। ফলে বৃষ্টির পানির পাশাপাশি নদীর পানিতে এলাকা ছয়লাব হয়ে যাচ্ছে। তাছাড়া বিশেষ একটি মহল স্লুইস গেট দখলে নিয়ে ব্যক্তিস্বার্থে ব্যবহার করছে বলে অভিযোগ রয়েছে। এব্যাপারে পাউবো কর্তৃপক্ষ, উপজেলা প্রশাসন ও সংশ্লিষ্ট সকলের হস্তক্ষেপ কামনা করা হয়েছে।

###
শ্রীউলার কলিমাখালী সড়কের
দুরাবস্থায় ভোগান্তি চরমে

এস,কে হাসান ঃ আশাশুনি উপজেলার শ্রীউলা ইউনিয়নের কলিমাখালী সড়কের চরম দুরাবস্থায় এলাকাবাসী বিপাকে পড়েছে। এক বছর আগে রাস্তাটি খুড়ে রাখলেও কাজ না করায় সড়কটি হাঁটু পানিতে তলিয়ে গেছে।
কলিমাখালী চৌরাস্তা থেকে কলিমাখালী স্লুইস গেট পর্যন্ত প্রায় ২ কিঃমিঃ সড়কটি এলাকাবাসীর যাতয়াতের একমাত্র পথ। এই সড়ক দিয়ে এলাকার মানুষের পাশাপাশি কলিমাখালী ফাজিল মাদরাসা, কলিমাখালী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় (৮ম শ্রেণিতে উন্নীত) ও নসিমাবাদ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ছাত্রছাত্রীসহ বিভিন্ন মৎস্যসেট ও বাজারের প্রয়োজন মিটাতে মানুষ যাতয়াত করে থাকে। সড়কটি ইটের সোলিং করা ছিল। প্রায় এক বছর আগে সড়কটি কার্পেটিং করার নামে ইটের সোলিং এর ইট উঠিয়ে ফেলান হয়। তখন ঘোষণা ছিল ৮/১১/১৫ থেকে ৮/১১/১৬ তারিখের মধ্যে কাজ শেষ হবে। ঠিকাদার মাহফুজুর রহমান শ্রমিক লাগিয়ে রাস্তার ইট খুড়ে উঠিয়ে নেওয়ার পর কিছু অংশে বালি ফেলানোর পর অজ্ঞাত কারণে কাজ বন্দ হয়ে যায়। কাজ আর শুরু করা হয়নি। বর্তমানে রাস্তার উপরে কোথাও কোথাও হাটি পানিতে ভরে আছে। কোথাও কোথাও ব্যাপক কাদায় ভরে আছে। ফলে ছাত্রছাত্রীসসহ সর্বস্তরের মানুষকে হাটু পানি ঠেলে কিংবা কর্দমাক্ত অবস্থায় পথে চলাচল করতে বাধ্য হচ্ছে। এব্যাপারে এলাকাবাসী উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের আশু হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।
####