আশাশুনি ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে চুড়ান্ত ফলাফল আ’লীগ দলীয় ৯, বিএনপি-১ ও স্বতন্ত্র-১


1815 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
আশাশুনি ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে চুড়ান্ত ফলাফল আ’লীগ দলীয় ৯, বিএনপি-১ ও স্বতন্ত্র-১
মার্চ ২৩, ২০১৬ আশাশুনি ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

এস,কে হাসান :
ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে আশাশুনি উপজেলার ১১ ইউনিয়নের চুড়ান্ত ফলাফল পাওয়া গেছে। নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে আ’লীগ মনোনীত প্রার্থীদের মধ্যে ৯জন, বিদ্রোহী প্রার্থী ১জন ও বিএনপি দলীয় প্রার্থী একজন বিজয় লাভ করেছে।
উপজেলার কয়েকটি ইউনিয়নে কিছু কিছু অনিয়ম, সংঘর্ষ, বোমা বিস্ফোড়ন ও কারচুপির অভিযোগ ছাড়া শান্তিপূর্ণভাবে ভোট গ্রহণ সম্পন্ন হয়েছে। চেয়ারম্যান পদে শোভনালী ইউনিয়নে প্রভাষক মোনায়েম হোসেন (নৌকা প্রতীক) ৮৫০৯ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হন। প্রতিদ্বন্দ্বিপ্রার্থী আছিফুর রহমান তুহিন (ধানের শীষ প্রতীক) ৭৪৮৩, লুৎফর রহমান (হাতপাখা) ৩৩৬, সাইফুল্লাহ (লাঙ্গল) ১২৭ ও পান্না কায়সার (চশমা) ৩১ ভোট। বুধহাটা ইউনিয়নে আ ব ম মোসাদ্দেক (নৌকা প্রতীক) ১০২১৬ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হন। প্রতিদ্বন্দ্বি আলহাজ্ব আব্দুল হান্নান (ধানের শীষ প্রতীক) ৭৯৮১ ও শরিফা খাতুন ফুটফুটি (ঘোড়া) ১৯৭ ভোট। কুল্যা ইউনিয়নে এস এম রফিকুল ইসলাম (ধানের শীষ প্রতীক) ৯৭৭৪ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন। প্রতিদ্বন্দ্বিদের মধ্যে আ’লীগ বিদ্রোহী প্রার্থী এস এম দেলোয়ার হোসাইন (ঘোড়া) ৬৫১০, আবু সাইদ  নৌকা) ১৫১৩, ইয়াকুব আলি (হাতপাখা) ৪৬৮ ভোট। দরগাহপুর ইউনিয়নে শেখ মেয়ারাজ আলী (নৌকা প্রতীক) ৫২৪০ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন। প্রতিদ্বন্দ্বি শেখ তারিকুল হাসান (ধানের শীষ) ৪৩৩২ এস এম জমির উদ্দিন  ঘোড়া) ১৪৮৭, জাহাঙ্গীর হোসেন (আনারস) ৩২০, মাহবুবর রহমান (হাতপাখা) ১২১, সাইফুদ্দিন খান (মটরসাইকেল) ১১৫ ও সোহেল মামুন (টেবিল ফ্যান) ৯১ ভোট। বড়দল ইউনিয়নে আব্দুল আলিম মোল্যা (নৌকা প্রতীক) ৪৬৪১ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন। প্রতিদ্বন্দ্বি বিদ্রোহী প্রার্থী আব্দুল হান্নান মন্টু সরদার (আনারস) ৪২২০, আজহারুল ইসলাম (ধানের শীষ) ৩৬৭৯, আ’লীগ বিদ্রোহী প্রার্থী আঃ রউফ গাজী  ঘোড়া) ২২৯৪, বিশ্বজিৎ মন্ডল  ঢোল) ৮৫৮, আবুল কালাম সানা  মোটর সাইকেল) ৮০৭, সবুর সরদার (হাতপাখা) ১৩৩ ও আঃ গফুর (চশমা) ৪৫ ভোট। আশাশুনি সদর ইউনিয়নে আ’লীগ বিদ্রোহী প্রার্থী স ম সেলিম রেজা মিলন (চশমা প্রতীক) ৫০৪১ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন। প্রতিদ্বন্দ্বি এ্যাড. শহীদুল ইসলাম পিন্টু (নৌকা) ৪৮৫৬, বিদ্রোহী প্রার্থী ঢালী মোঃ সামছুল আলম (আনারস) ২৬০৭, আবু হেনা মোস্তফা কামাল (ধানেরশীষ) ১৮৯০ ও আজাদ হোসেন টুটুল (লাঙ্গল) ৫৪ ভোট। শ্রীউলা ইউনিয়নে আবু হেনা সাকিল (নৌকা প্রতীক) ৫১৪৯ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন। প্রতিদ্বন্দ্বি বিদ্রোহী প্রার্থী দীপঙ্কর বাছাড় দিপু (চশমা) ৪৩৫৮, বিদ্রোহী প্রার্থী নূর মোহাম্মদ সরদার  ঘোড়া) ৩৬০৫, বিদ্রোহী প্রার্থী জহুরুল হক (আনারস) ১৩১৩ ও নূরুল আমিন (ধানের শীষ) ৯৪৯ ভোট। খাজরা ইউনিয়নে আলহাজ্ব শাহ নেওয়াজ ডালিম (নৌকা প্রতীক) ৮৯৫০ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন। প্রতিদ্বন্দ্বি বিদ্রোহী প্রার্থী রবিউল ইসলাম রবি (আনারস) ৩৬৪০, বিদ্রোহী প্রার্থী রুহুল কুদ্দুছ  ঘোড়া) ২২৮৪, বোরহান উদ্দিন (ধানের শীষ) ৬৮০ ও হাফিজুল ইসলাম (হাতপাখা) ১৩৫ ভোট। আনুলিয়া ইউনিয়নে আলমগীর আলম লিটন (নৌকা প্রতীক) ১০৪৮২ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন। প্রতিদ্বন্দ্বি রুহুল কুদ্দুস (ধানের শীষ) ৪৬৯৮, আ’লীগ বিদ্রোহী প্রার্থী ফারুকুজ্জামান (আনারস) ১৬৯ ভোট।  প্রতাপনগর ইউনিয়নে শেখ জাকির হোসেন (নৌকা প্রতীক) ১২১৫৭ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন। প্রতিদ্বন্দ্বি বিদ্রোহী প্রার্থী খালিদুর রহমান বাবু (আনারস) ৩৫৫০ ও শেখ শাহ আলম (ধানের শীষ) ৩৩৬ ভোট পেয়েছেন। কাদাকাটি ইউনিয়নে দীপঙ্কর সরকার দীপ (নৌকা প্রতীক) ৩৬৯৫ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন। প্রতিদ্বন্দ্বি বিদ্রোহী প্রার্থী মফিজুল হক মোড়ল (চশমা) ২৬৬১, বিদ্রোহী মিজানুর রহমান মন্টু (আনারস) ২২৫৪, তুহিন উল্লাহ তুহিন (ধানের শীষ) ২৪৪ ও আঃ আজিজ (হাতপাখা) ২৬৮ ভোট পেয়েছেন।