আশাশুনি সংবাদ ॥ কুল্যায় ডলার চক্রের ৮ সদস্যের নামে মামলা


455 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
আশাশুনি সংবাদ ॥ কুল্যায় ডলার চক্রের ৮ সদস্যের নামে মামলা
আগস্ট ৩০, ২০১৭ আশাশুনি ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

 

এস,কে হাসান,নিজস¦ প্রতিনিধি ঃ আশাশুনি উপজেলার কুল্যায় ডলার চক্রের ৮ জন সদস্যের বিরুদ্ধে থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে। আসামীদের বাইরে আরও কয়েকজন জন মামলা থেকে রেহাই পেয়ে দাপিয়ে বেড়াচ্ছে।
কুল্যা ইউনিয়নের দাদপুর ও মহাজনপুর এলাকার একটি ডলার চক্র আরও বহিরাগত কিছু ব্যক্তি ও গড ফাদারের ছত্রছায়ায় দীর্ঘকাল যাবৎ ডলার বিক্রয়ের নামে প্রতারনার কারবার করে আসছে। কমমূল্যে ডলার সরবরাহের কথা বলে বিশেষ কৌশলে ক্রেতাদের ফাঁদে ফেলে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নেওয়ার ঘটনা ঘটিয়ে তারা এলাকায় দাপুটে ব্যক্তি হিসাবে পরিচিত। চক্রের সদস্য দাদপুর গ্রামের মৃত হাকিম সরদারের পুত্র সাদ্দাম, মহাজনপুর গ্রামের মৃত তফিল উদ্দিনের পুত্র সালাম, মালেক সরদারের পুত্র মোক্তার, রেজাউল সরদারের পুত্র রাশিদুল, মুনছুর মালতার পুত্র মনিরুল, আফিল সরদারের পুত্র আলাউল ইসলাম উকিল, সিরাজ, সিরাজের পুত্র আজিজুল, আফিলুদ্দিন সরদারের পুত্র সিরাজুল, রহিম মৌলভীর পুত্র ফজলু, মহিষাডাঙ্গা গ্রামরে জ্ঞানেন্দ্র কুমারের পুত্র হারু ও বারু, দাদপুর গ্রামের পিজির মোড়লের পুত্র বায়জিতসহ তাদের সহযোগিরা দেশের বিভিন্ন স্থানে কৌশলে ডলার বিক্রয়ের প্রলোভন দেখিয়ে তাদেরকে এলাকায় নিয়ে ্এসে থাকে। এরপর বিভিন্ন পন্থায় তাদেরকে ফাঁদে পেলে টাকা হাতিয়ে নিয়ে থাকে। গত সোমবার তারা ফাঁদ পেতে কেশবপুর উপজেলার প্রতাবপুর গ্রামের আঃ সবুর গাজীর পুত্র সোহেল রানাকে এলাকায় ডেকে আনায়। সোহেল রানা ডলার পেতে ১ লক্ষ ৪৫ হাজার টাকা নিয়ে সোমবার সকাল ৯.৩০ টার দিকে মহিষাডাঙ্গা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের সামনের সড়কে পৌছলে ডলার চক্রের মনিরুল ও মোক্তার তাকে রিসিভ করে রাস্তার পশ্চিম পার্শে নিয়ে যায়। সেখানে আগে থেকে বিশেষ সতর্কতা ও নিরাপত্তা রক্ষার জন্য অন্য সদস্যরা দুরবর্তী স্থানে অপেক্ষা করছিল। সেখানে পৌছানো মাত্রই কয়েকজন লম্বা দা, ছুরিসহ বিভিন্ন অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে সোহেল রানার উপর ঝাপিয়ে পড়ে বেদম মারপিট করে এবং পুরো টাকা হাতিয়ে নেয়। এব্যাপারে সোহলে রানা বাদী হয়ে মোক্তার, মনিরুল, সিরাজুল, উকিল, রাশেদুল, আজিজুল, বায়জিৎ ও বুধহাটা গ্রামের কামাল সরদারের পুত্র বাবলুকে আসামী করে থানায় মামলা (নং ২৮ তাং- ২৯/৮/১৭) দায়ের করেছেন। এঘটনার ৩/৪ দিন আগে একই এলাকায় ডলার চক্রের লেনদেনের সময় স্থানীয় ইউনিয়ন আ’লীগ সভাপতি ইয়াহিয়া ইকবালসহ অন্যরা তাড়া করলেও তাদেরকে ধরতে পারেননি। তার আগে আরেকটি চক্রান্তের ঘটনা নিয়ে থানায় অভিযোগ করা হয়েছিল। এদিকে এই চক্রের আসামী না হওয়া সদস্যরা পুরোদমে তৎপরতা শুরু করেছে। তারা চক্রান্তের স্থান পরিবর্তন করে অন্যত্র কারবার চালাতে ইতিমধ্যে ষড়যন্ত্র করতে শুরু করেছে বলে ্এলাকাবাসী জানিয়েছে। পুলিশ আসামীদের ধরতে অভিযান চালালেও আসামীরা গ্রামের পাশ্ববর্তী মৎস্য ঘেরে গা ঢাকা দিয়েছে বলে জানাগেছে।
###

আশাশুনিতে দুই আসামী
গ্রেফতার

এস,কে হাসান,নিজস¦ প্রতিনিধি ঃ আশাশুনি থানা পুলিশ অভিযান চালিয়ে দু’ আসামীকে গ্রেফতার করেছে। গ্রেফতারকৃদের (বুধবার) আদালতে প্রেরন করা হয়েছে।
এসআই প্রদীপ কুমার, এএসআই কামরুল ইসলাম ও এএসআই জহুরুল ইসলাম অভিযান চালিয়ে সিআর ১১৬/১৭ এর পলাতক আসামী মাড়িয়ালা গ্রামের মোছলেম মোল্যার পুত্র মইনুরকে গ্রেফতার করেন। তারা পৃথক অভিযানে সিআর ১৫৮/১৬ এর গ্রেফতারী পরোয়ানার পলাতক আসামী বকচর গ্রামের মৃত জব্বার সরদারের পুত্র শামীমকে গ্রেফতার করেন।
###

বুধহাটায় জোরপূর্বক গাছ
কর্তনের অভিযোগ

এস,কে হাসান,নিজস¦ প্রতিনিধি ঃ আশাশুনি উপজেলার বুধহাটা ইউনিয়নের শ্বেতপুর গ্রামে জোরপূর্বক ভাবে আম ও মেহগনি গাছ কর্তনের অভিযোগ পাওয়া গেছে।
যুগরাজপুর গ্রামের শাহাদাৎ হোসেন বুলবুল জানান, তার চাচা আলহাজ্ব ইন্তাজ আলির পুত্র সাইফুল্লাহ ১৯৯৫ সালে শ্বেতপুর মৌজায় ৩২০নং খতিয়ানে ৩৭০, ৩৭১ ও ৩৭২ নং দাগে ৭৮ শতক জমি কোবালা মুলে ক্রয় করেন। দ্বাতা ছিলেন শ্বেতপুর গ্রামের সুফিয়া খাতুন স্বামী আতিকুল ও আতিকুলের পুত্র জাহাঙ্গীর হোসেন। জমি ক্রয়ের পর থেকে তারা জমিতে আম গাছ লাগিয়ে আম বাগান করেন এবং সাথে সাথে মেহগনিসহ কিছু অন্য গাছও লাগিয়েছেন। প্রতি বছর তারা এই বাগান থেকে কমপক্ষে ৫ মন করে আম বিক্রয় করে এসেছেন। গত ২৯ আগষ্ট একই গ্রামের আক্তারুজ্জামান জমিতে অবৈধ প্রবেশ করে জন মজুর দিয়ে গাছ কাটাতে থাকেন। বিষয়টি বুধহাটা ইউপি চেয়ারম্যানকে জানালে তার নির্দেশে রুবেল হোসেন সেখানে গিয়ে গাছ কাটা বন্দ করে দেয়। কিন্তু গতকাল (৩০ আগষ্ট) সকালে তারা পুনরায় ১২/১৩টি আম গাছ ও ৪/৫টি মেগহগনি গাছ কেটে নিয়েছে। বিষয়টি আইন প্রয়োগকারী সংস্থাসহ উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষকে অবহিত করা হয়েছে এবং মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে বলে বুলবুল জানান।