আশাশুনি সংবাদ ॥ তিন হাজার পরিবারের মাঝে ওয়ার্ল্ড ভিশনের সবজী বীজ বিতরণ


377 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
আশাশুনি সংবাদ ॥ তিন হাজার পরিবারের মাঝে ওয়ার্ল্ড ভিশনের সবজী বীজ বিতরণ
ফেব্রুয়ারি ২৮, ২০১৬ আশাশুনি ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

এস,কে হাসান :
আশাশুনি উপজেলার ৬ ইউনিয়নে ৩ হাজার ১০ পরিবারের মাঝে ওয়ার্ল্ড ভিশন বাংলাদেশের উদ্যোগে বিনামূল্যে শাক-সবজি বীজ বিতরণ করা হয়েছে। রবিবার বিকালে একযোগে বীজ বিতরন কার্যক্রম পরিচালনা করা হয়।
ওয়ার্ল্ড ভিশন আাশাশুনি উপজেলার কুল্যা, বুধহাটা, আশাশুনি সদর, কাদাকাটি, দরগাহপুর ও বড়দল ইউনিয়নে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা বিষয়ক বিভিন্ন কার্যক্রম পরিচালনা করে আসছে। এরই ধারাবাহিকতায় দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা সেক্টর, অর্থনৈতিক উন্নয়ন প্রকল্প, আশাশুনি এডিপি’র উদ্যোগে সবজী বীজ বিতরণ করা হলো। প্রত্যেক পরিবারকে করলা, মিষ্টি কুমড়া, লাউ, পুঁই শাক, গিমা কলমি, ঢেঁড়শ, লাল শাক ও বেগুনের বীজ দেয়া হয়েছে। বীজ বিতরণ কার্যক্রমের উদ্বোধন করেন উপজেলা কৃষি অফিসার কৃষিবীদ শামিউর রহমান। এসময় স্ব-স্ব ইউপি চেয়ারম্যান, এডিপি ম্যানেজার প্রকাশ চাম্বুগং, প্রোগ্রাম অফিসার মানিক হালদার, পলভক্ত মন্ডল, জুলিয়ান সরকার, জনপল ডি রোজারিও, উজ্জল মন্ডল, সুবাস মন্ডল, মাসুদুল হাসান, মিঠু সরকার এবং স্ব স্ব ইউপি চেয়ারম্যান, শিক্ষক ও সাংবাদিকবৃন্দ  উপস্থিত ছিলেন।

##
আশাশুনিতে ইউপি সচিবদের
কর্মবিরতি পালন

এস,কে হাসানঃ বাংলাদেশ ইউনিয়ন পরিষদ সচিব সমিতি (বাপসা) কেন্দ্রীয় কমিটির সিদ্ধান্ত মোতাবেক ৩ দফা দাবী আদায়ের লক্ষ্যে ইউপি সচিবরা আশাশুনিতে কর্মবিরতি পালন করেছেন। রবিবার উপজেলা পরিষদ চত্বরে কর্মবিরতি পালন করা হয়।
ইউপি সচিবদের পদবী পরিবর্তন এবং বেতন স্কেল ১০ম গ্রেডে উন্নীত করা, বেতন, বোনাস, আনুতোষিক, ল্যামগ্রান্ড, শ্রান্তি বিনোদন ভাতাসহ শতভাগ অর্থ সরকারি কোষাগার থেকে প্রদান এবং পারিবারিক পেনশন সুবিধা প্রদানের দাবীতে উপজেলা পরিষদ চত্বরে কর্মবিরতি পালন করা হয়। আজ (সোমবার) একই দাবীতে জেলা চত্বরে কর্ম বিরতি পালন এবং ৮ মার্চ জাতীয় প্রেস ক্লাব, ঢাকায় অবস্থান ধর্মঘট পালন করা হবে। কর্মসূচি চলাকালে আঃ সবুর, গোষ্ঠ বিহারী সরকার, আঃ জলিল, জাহাঙ্গীর আলম, মঞ্জুরুল ইসলাম, খায়রুল ইসলাম, কামরুজ্জামান, শেখ আমিনুর রহমান ও নূরুল ইসলাম উপস্থিত ছিলেন।
##

আশাশুনি তিন প্রার্থীর মনোনয়নপত্র
প্রত্যাহার

এস,কে হাসানঃ ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে মনোনয়ন পত্র প্রত্যাহারের প্রথম দিনে একজন চেয়ারম্যান প্রার্থীসহ তিন প্রার্থী তাদের মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করে নিয়েছেন।
উপজেলার ১১টি ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে ৬০ জন, সংরক্ষিত আসনে ১২০ জন ও সাধারণ আসনে ৪৩২ জন প্রার্থী মনোনয়নপত্র জমা দেন। বাছাইকালে আনুলিয়া ইউনিয়নে আলমগীর হোসেন, দবির উদ্দিন, মোশাররফ হোসেন ও ফারজানার, আশাশুনি সদরে ইয়াকুব আলি সানা, রোজিনা পারভিন ময়না, দরগাহপুর ইউনিয়নে সাকিয়া খাতুন, নাছির উদ্দিন গোলদার ও আঃ গফফার, বুধহাটা ইউনিয়নে সুশংকর দাশ, প্রতাপনগর ইউনিয়নে আছিয়া খাতুন, খাজরা ইউনিয়নে ইয়াছির আরাফাত ও বড়দল ইউনিয়নে বিউটি বিশ্বাসের মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়। আপিল শুনানীতে এ পর্যন্ত আনুলিয়ার আলমগীর হোসেন ও দবির উদ্দিনের এবং আশাশুনি সদরের ইয়াকুব আলি সানার মনোনয়ন বৈধ ঘোষণা করা হয়েছে। এদিকে মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের প্রথম দিনে বড়দল ইউনিয়নের চেয়ারম্যান প্রার্থী শেখ সিরাজুল ইসলাম এবং কুল্যা ইউনিয়নে মেম্বার প্রার্থী আঃ রহিম ও আবুল কাশেম মোড়ল তাদের মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করে নিয়েছেন।
##
আশাশুনি চেয়ারম্যানের বাড়িতে
ককটেল বিস্ফোড়ন

এস,কে হাসানঃ
আশাশুনি উপজেলার শ্রীউলা ইউপি চেয়ারম্যান আবু হেনা সাকিলের বাড়িতে ও অফিসে ৫টি ককটেল নিক্ষেপ করা হয়েছে। ৪টি বিস্ফোড়িত হয় এবং পুলিশ একটি অবিস্ফোড়িত ককটেল উদ্ধার করেছে।
শনিবার দিবাগত রাত ৩.৩০ টার দিকে চেয়ারম্যানের বাস ভবনের মেইন গেইটে পরপর তিনটি ককটেল নিক্ষেপ করা হয় এবং মহিষকুড় মৎস্য সেটে তার অফিসেও দু’টি ককটেল নিক্ষেপ করা হয়। বিকট শব্দে বাড়ির লোকজন হতচকিত হয়ে থানায় খবর দেয়। থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আসাদুজ্জামান মুন্সী জানান, খবর পেয়ে এসআই আঃ রাজ্জাককে সঙ্গীয় ফোর্সসহ রাতেই সেখানে পাঠান হলে বাড়ির গেট থেকে ককটেল জাতীয় বাজী সদৃশ্য বিস্ফোড়িত অংশ বিশেষ আলামত উদ্ধার করেন। রবিবার সকাল ৮ টার দিকে চেয়ারম্যানের অফিসে ককটেল সদৃশ্য বস্তু দেখতে পেয়ে খবর দিলে পুলিশ সেখানে পৌছে অফিসের ভিতর থেকে অবিস্ফোড়িত অবস্থায় একটি ককটেল উদ্ধার করে। এব্যাপারে কোন অভিযোগ দায়ের করা হয়নি। তবে জোর পুলিশী তদন্ত চলছে বলে তিনি জানান।