আশাশুনি সংবাদ ॥ বিদ্যুৎ বিভাগের অবিস্মরণীয় সাফল্য


159 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
আশাশুনি সংবাদ ॥ বিদ্যুৎ বিভাগের অবিস্মরণীয় সাফল্য
জানুয়ারি ৬, ২০১৯ আশাশুনি ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

এস,কে হাসান ::

বাংলাদেশ পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি সাতক্ষীরা জেলার আশাশুনি সাব জোন অফিস বিদ্যুৎ সংযোগে অবিস্মরণীয় সফলতা অর্জন করেছে। বিদ্যুৎ বিভাগের স্মরনীয় কার্যক্রম উপজেলার বিদ্যুৎ গ্রাহকসহ সকল পর্যায়ের মানুষের মাঝে প্রশংসিত হয়েছে।
রবিবার সকালে আশাশুনির দক্ষিণ চাপড়া গ্রামের উত্তর পাড়ায় মাত্র দু’ ঘন্টার মধ্যে একই সাথে নতুন লাইন নির্মান পূর্বক ট্রান্সফরমার উত্তোলন সাপেক্ষে নতুন মিটার সংযোগ দিয়ে বিদ্যুৎ বিভাগ অভাবনীয় সাফল্য অর্জন করেছে। একই দিন একসাথে উক্ত স্থানে ভ্যানযোগে মালামাল নিয়ে স্পটে গ্রাহকদের থেকে আবেদন গ্রহন, পরীক্ষা নীরিক্ষা, প্রয়োজনীয় টাকা জমা নিয়ে মাত্র দু’ ঘন্টার মধ্যে ট্রান্সফরমা উত্তোলন, ৯ জন গ্রাহককে মিটার স্থাপন ও নতুন লাইন সংযোগ প্রদান করা হয়। উত্তরপাড়া এলাকার জনবসতির পরিবারগুলো বিদ্যুৎহীন অবস্থায় দীর্ঘকাল বসবাস করে আসছিল। সরকারের ঘরে ঘরে বিদ্যুৎ পৌছে দেওয়ার পরিকল্পনা বাস্তবায়নে বিদ্যুৎ বিভাগ ঐ এলাকার রুবেল, শরিফুল, সাইফুল, শাহিনুর, মনিরুল, আলমগীর, সাইদ, জাহিদ ও রমজানের ঘরে কোন প্রকার জটিলতা ছাড়াই স্বল্পতম সময়ে বিদ্যুৎ সংযোগ প্রদান করেছে। সফলতার সাথে কাজ বাস্তবায়ন করেন, এজিএম মধুসুদন রায়, জুনিঃ ইঞ্জিঃ আবুল কালাম, ওয়ারিং ইন্সপেক্টর সাইদুর রহমান, এলটি শাহজাহান আলি ও লাইনম্যান সুমন মিঞা। গ্রাহক পর্যায় ও সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানাগেছে, বিদ্যুতের জন্য আবেদন করার সাথে সাথে আশাশুনির বিদ্যুৎ বিভাগ কার্যক্রম শুরু করে থাকে। সাম্প্রতিক সময়ে আশাশুনিতে নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ সরবরাহ করা হচ্ছে। বিদ্যুতের লোডসেডিং হয়না বললেই চলে। নিতান্ত কাজের জন্য বিদ্যুৎ বন্ধ রাখা হলে পূর্বেই মাইকিং করা হয়ে থাকে। গত বছর এপ্রিল থেকে ডিসেম্বর পর্যন্ত আশাশুনিতে ৫ হাজার ৪২১ জন গ্রাহককে নতুন সংযোগের আওতায় আনা হয়েছে। বিগত উন্নয়ন মেলার দিন এক দিনের আবেদনে ৪৮ জন গ্রাহককে সাথে সাথে টাকা জমা নিয়ে মিটার স্থাপনের ব্যবস্থা করা হয়েছিল। এব্যাপারে এজিএম মধুসুদন মন্ডল জানান, সরকারের আন্তরিক উদ্যোগে বিদ্যুৎ ঘাটতি নাই। বর্তমানে ২০ হাজার মেঃ বিদ্যুৎ উৎপাদন হচ্ছে। লাইন যথাযথ ব্যবস্থাপনার কারণে লাইন ফল্ট হয়না। যে কারনে ভাল বিদ্যুৎ সরবরাহ সম্ভব হচ্ছে। স্থানীয় গ্রাহক ও সচেতন ব্যক্তিবর্গ জানান, বিদ্যুৎ অফিস এখন দুর্নীতিমুক্ত হওয়ায় এবং কর্মকর্তার সচেতনতায় গ্রাহক হয়রানী হচ্ছেনা।
##

আশাশুনিতে বঙ্গবন্ধুর স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস পালনে প্রস্তুতি সভা

নিজস্ব প্রতিনিধি ::

জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ১০ জানুয়ারি স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস পালনের লক্ষ্যে আশাশুনিতে এক প্রস্তুতি সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। রবিবার সকালে আশাশুনি বাজার চান্নিতে এ সভা অনুষ্ঠিত হয়।
উপজেলা শ্রমিকলীগ সভাপতি ঢালী মোঃ সামছুল আলমের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক মনিরুজ্জামান বিপুলের সঞ্চালনায় সভায় উপস্থিত ছিলেন, শ্রমিকলীগ সহ-সভাপতি আলমগীর হোসেন, খোকা, আছাফুর রহমান, ইউনুছ, ইমদাদুল, শিমুল, শরিফুল, রনি, মফেজ, শাহিনুর, তারিকুল, আলিম, আশু, আরিফুল, জবেদ আলি, রহিম হাদী, দেবব্রত চক্রবর্তী, তাপস, বিকাশ, মানিক, হাফিজুল, কামরুল, মফেজ, মজিদ, বাবু, ছোট, বাহারুল, সিরাজুল, সুজন, শংকর, হাসান, মইনুর, মন্টু প্রমুখ। সভায় ১০ জানুয়ারি দলীয় কার্যালয়ে দলীয় ও জাতীয় পতাকা উত্তোলন, বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে মাল্যদান এবং বিকালে বাজার চান্নিতে আলোচনা সভা করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।
##

আশাশুনিতে জমি ক্রয়ে অগ্রিম টাকা নিয়ে হয়রানীর অভিযোগ

নিজস্ব প্রতিনিধি ::

আশাশুনি উপজেলার ধান্যহাটি গ্রামে জমি ক্রয়ের জন্য বিক্রেতাকে অগ্রিম টাকা দিয়ে রেজিষ্ট্রী না করায় হয়রানীর শিকার হচ্ছেন একটি পরিবার। এব্যাপারে টাকা ফেরৎ পেতে লিগ্যাল নোটিশ করা হয়েছে।
লিখিত অভিযোগ ও উকিল নোটিশ সূত্রে জানাগেছে, ধান্যহাটি গ্রামের মৃত ধর্মদাস চক্রবর্তীর পুত্র তাপস চক্রবর্তী ও দেবব্রত চক্রবর্তী দু’ ভাই মিলে দেবব্রত’র চাকুরির জন্য টাকার প্রয়োজন হওয়ায় তাদের ভিটেবাড়ীর নিকট থেকে জমি বিক্রয়ের চুক্তিতে আঃ রশিদ সরদারের স্ত্রী ও বীর মুক্তিযোদ্ধা মৃত নুর মোহাম্মদ গাইনের কন্যা নাজমা খাতুনের কাছে সোনালী ব্যাংক আশাশুনি শাখার তাদের নামীয় দু’টি চেক মারফৎ গ্যারন্টি দিয়ে ১২ লক্ষ ৪৬ হাজার ও ৫ লক্ষ ৪১ হাজার টাকা অগ্রিম গ্রহন করেন। ৩ মাসের মধ্যে জমি রেজিস্ট্রী করে দেওয়ার কথা এবং না হলে ঐ সময়ের মধ্যে টাকা ফেরৎ দেওয়ার কথা থাকলেও না দেওয়ায় তিনি ১২/১২/১৮ তাং সংশ্লিষ্ট ব্যাংকে নগদায়নের জন্য চেক জমা দিলে অপর্যাপ্ত বিবেচনায় চেক ডিজ অনার হয়। বাধ্য হয়ে তিনি সাতক্ষীরা জজ কোর্টের বিজ্ঞ আইনজীবি মোছাঃ বিউটি আফরোজা বানুর মাধ্যমে লিগ্যাল নোটিশ করিয়েছেন। তাপস কুমার চক্রবর্তী সাংবাদিকদের জানান, তারা জমি বিক্রয়ের জন্য নয়, সুদ করে টাকা নিয়েছিলেন।
##

আশাশুনিতে আন্তঃস্কুল ক্রিকেট খেলা অনুষ্ঠিত

নিজস্ব প্রতিনিধি ::

আশাশুনিতে আন্তঃ স্কুল ক্রিকেট টুর্ণামেন্টের উপজেলা পর্যায়ের খেলা অনুষ্ঠিত হয়েছে। রবিবার দিন ব্যাপী ৪টি খেলা অনুষ্ঠিত হয়।
আশাশুনি সরকারি মাধ্যমিক বিদ্যালয় মাঠে অনুষ্ঠিত দিনের প্রথম খেলায় আশাশুনি সরকারি মাধ্যমিক বিদ্যালয় দল ৮ উইকেটে বসুখালী মাদরাসা দলকে পরাজিত করে। ২য় খেলায় তুয়ারডাঙ্গা এইচ এফ মাধ্যমিক বিদ্যালয় দল ৬ উইকেটে গোয়ালডাঙ্গা ফকিরবাড়ি মাধ্যমিক বিদ্যালয় দলকে পরাজিত করে। ৩য় খেলায় প্রতাপনগর ইউনাইটেড একাডেমী মাধ্যমিক বিদ্যালয় দল ১৮ রানে বুধহাটা বিবিএম কলেজিয়েট স্কুল দলকে পরাজিত করে। ৪র্থ খেলায় শ্রীউলা মাধ্যমিক বিদ্যালয় দল ৯ উইকেটে তুয়ারডাঙ্গা এইচ এফ মাধ্যমিক বিদ্যালয় দলকে পরাজিত করে। সোমবার একই মাঠে সকাল ৯ টায় ১ম সেমি ফাইনালে আশাশুনি সরকারি মাধ্যমিক বিদ্যালয় দল ও মধ্যম একসরা দাখিল মাদরাসা দল এবং ২য় সেমি ফাইনালে ইউনাইটেড একাডেমী প্রতাপনগর হাই স্কুল দল ও শ্রীউলা মাধ্যমিক বিদ্যালয় দল মুখোমুখি হবে। বিকাল উক্ত সেমিতে বিজয়ী দল ফাইনালে অবতীর্ণ হবে। আম্পায়ার ছিলেন আনিছুর রহমান, উত্তম কুমার মন্ডল, অরুন কুমার সানা, সঞ্জয় বৈদ্য, শ্রীকান্ত দাশ ও সিরাজুল ইসলাম।
##

আপ্রচ বিদ্যাপীঠের শিক্ষকদের মানবেতর জীবন যাপন

নিজস্ব প্রতিনিধি ::
কালিগঞ্জ উপজেলার চাম্পাফুল আপ্রচ মাধ্যমিক বিদ্যাপীঠে প্রধান শিক্ষক নিয়োগকে কেন্দ্র করে জটিলতার কারনে শিক্ষকরা বেতন উত্তোলন করতে না পেরে মানবেতর জীবনযাপন করছেন। শিক্ষার্থীরা নতুন বই পেলেও ক্লাস শুরু হয়নি।
রবিবার সকালে চাম্পাফুল মাধ্যমিক বিদ্যাপীঠের পরিবেশ সর্ম্পকে শিক্ষকদের নিকট জানতে চাইলে সিনিঃ সহকারী শিক্ষক সুখপদ বাইনসহ কয়েকজন শিক্ষক সাংবাদিকদের জানান, দীর্ঘদিন ম্যানেজিং কমিটি শিক্ষক নিয়োগ জটিলতার বিষয়ে কোন সুরাহানা করেনি। মহামান্য হাইকোট কর্তৃক নিষেধাজ্ঞা প্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক আব্দুল হাকিমকে বিদ্যাপীঠের সকল কার্যক্রম চালিয়ে যাওয়ার নির্দেশ দিয়েছে। যার ফলে নতুন বই পেয়েও ক্লাস করতে পারছেনা শিক্ষার্থীরা। শুধু তাই নয় শিক্ষক কর্মচারীদের বেতন ভাতাদি উত্তোলন করতে না পেরে শিক্ষকরা মানবেতর জীবন যাপন করছেন। মহামান্য হাইকোটর রায় বাস্তবায়নের জন্য মাননীয় জেলা প্রশাসক, জেলা শিক্ষা অফিসার, উপজেলা নির্বাহী অফিসার, উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার আদেশ প্রদান সত্ত্বেও ম্যানেজিং কমিটি উক্ত আদেশ উপেক্ষা করে অবৈধ প্রধান শিক্ষককে দিয়ে বিদ্যাপীঠের সকল কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছে। অন্যদিকে শিক্ষার পরিবেশ নষ্ট হচ্ছে। তাই সার্বিক বিষয় বিশ্লেষণ করে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের আশু হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন অভিভাবক ও এলাকার সুধিজন।

##