আশাশুনি সংবাদ ॥ রবি মৌসুমে ৩০৬৬০ মেঃটন ধান উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা


112 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
আশাশুনি সংবাদ ॥ রবি মৌসুমে ৩০৬৬০ মেঃটন ধান উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা
ফেব্রুয়ারি ৯, ২০২০ আশাশুনি ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

এস কে হাসান ::

আশাশুনি উপজেলায় রবি ২০১৯-২০ অর্থ বছরে ৩০ হাজার ৬৬০ মেঃটন ধান উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা নির্দ্ধারন করেছে কৃষি বিভাগ।
উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অফিস চলতি রবি মৌসুমে বোরো ধানের চাষাবাদের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারন করে লক্ষ্যমাত্রা অর্জনে তৎপরতা চালিয়ে যাচ্ছেন। গত ২০১৮-১৯ মৌসুম অপেক্ষা ৩০ হেক্টর বেশী জমিতে ধানাবাদের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে। বোরো হাইব্রিড ধানের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে ২৫০০ হেক্টর জমিতে। এবং উপশী জাতের ধানের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারন করা হয়েছে ৪৫০০ হেক্টর জমিতে। লক্ষ্যমাত্রা অর্জিত হলে ধান উৎপাদন লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারন করা হয়েছে হাইব্রিড প্রতি হেক্টরে ৪.৮৫ মেঃটন হিসাবে ১২ হাজার ১২০ মেঃটন এবং উপশী প্রতি হেক্টরে ৪.১২ মেঃটন হিসাবে ১৮ হাজার ৫৪০ মেঃটন। সর্বমোট ৭০০০ হেক্টর জমিতে ধান উৎপাদনের সম্ভাবনা ৩০ হাজার ৬৬০ মেঃটন। গত ২০১৮-১৯ মৌসুমে হাইব্রিড ২৬০৫ হেক্টর জমিতে ১২ হাজার ২৪৪ মেঃটন ও উপশী ৪৩৬৫ হেক্টর জমিতে ১৭ হাজার ২৪ মেঃটন ধান উৎপাদিত হয়েছিল। চলতি মৌসুমে ১ হাজার ৩৯২ মেঃটন ধান বেশী উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারন করা হয়েছে। উপজেলা কৃষি অফিসার কৃষিবিদ রাজিবুল হাসান বলেন, আবহাওয়া মৌসুমের শুরুতে কিছুটা বৈরী ছিল। আবহাওয়া স্বাভাবিক থাকলে এবং পোকা মাকড়ের আক্রমনসহ সার্বিক পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে থাকলে লক্ষ্যমাত্রা অর্জিত হবে ইনশাল্লাহ। উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের সকল কর্মকর্তা এবং উপ সহকারি কৃষি কর্মকর্তাবৃন্দ নিয়মিত ভাবে মাঠে থেকে ফসলের অবস্থা পর্যবেক্ষণ ও কৃষকদের সহযোগিতা দিয়ে আসছে।

#

আশাশুনিতে এপিএল টি-২০ ক্রিকেটের খুলনার জয়

এস কে হাসান ::

আশাশুনিতে আট দলীয় এপিএল টি-২০ নকআউট ক্রিকেট টুর্ণামেন্টের ১ম রাউন্ডের ৪র্থ খেলা অনুষ্ঠিত হয়েছে। রবিবার দুপুর ২টায় আশাশুনি সরকারি মাধ্যমিক বিদ্যালয় মাঠে এ খেলা অনুষ্ঠিত হয়।
চলমান সংঘের আয়োজনে খেলায় আশাশুনি উপজেলার বাহাদুরপুর ক্রিকেট একাদশ ও খুলনা ক্রিকেট একাদশ মুখোমুখি হয়। টসে জিতে প্রথমে ব্যাট করতে নেমে বাহাদুরপুর ক্রিকেট একাদশ ৫৫ রানে সব কয়টি উইকেট হারায়। জবাবে খুলনা ক্রিকেট একাদশ ৪.৫ বলে ১ উইকে ৫৭ রান তুলে জয় নিশ্চিত করে। বিজয়ী দলের হোসেন আলী ম্যাচ সেরার পুরষ্কার লাভ করেন। খেলায় আম্পায়ার ছিলেন, দীপন মন্ডল ও রাকিবুল ইসলাম। ধারাভাষ্যে ছিলেন, মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল হান্নান ও ক্রিকেট বিশ্লেষক আসাদুজ্জামান।