ইউপি নির্বাচনে ছিটকে পড়ছে আ’লীগের সহযোগী সংগঠন !


423 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
ইউপি নির্বাচনে ছিটকে পড়ছে আ’লীগের সহযোগী সংগঠন !
ফেব্রুয়ারি ১৩, ২০১৬ তালা ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

নাজমুল হক :
শুধু আওয়ামী লীগের কাউন্সিলে দলীয় প্রার্থী নির্বাচনে সিদ্ধান্ত নেয়ায় আসন্ন ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান পদে অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মীরা ছিটকে পড়ছে। জেলার অন্তত ৩০টি ইউনিয়নে দীর্ঘ দিন থেকে চেয়ারম্যান পদে নির্বাচনের জন্য কাজ করা প্রার্থীরা দলীয় সিদ্ধান্তে বাছাইয়ের পূর্বেই বাদ পড়ে যাচ্ছে অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের নেতারা। ফলে তৃণমূলে তীব্র ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। সংশ্লিষ্টদের দাবী, এসব ইউনিয়নগুলোতে জেলা আওয়ামী লীগের সার্চ কমিটির মাধ্যমে দলীয় মনোনয়ন চুড়ান্ত করতে হবে। তবে উপজেলা আওয়ামী লীগের নেতারা জানান, কাউন্সিলে যে কোন ব্যক্তির নাম প্রস্তাব ও চুড়ান্ত হতে পারে।

সূত্র জানায়, তালা উপজেলার কুমিরা ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে নির্বাচন করার জন্য দীর্ঘ দিন থেকে মাঠে রয়েছে উপজেলা যুবলীগের যুগ্ম আহবায়ক কাজী নজরুল ইসলাম হিল্লোল। তিনি নির্বাচন করা জন্য গত ৪-৫ বছর থেকে মাঠে গণসংযোগ করছে। তালা সদর ইউনিয়নে কাজ করছে উপজেলা যুবলীগের আবহায়ক সরদার জাকির হোসেন। তারা যুবলীগ করলেও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের কোন পদে নেই। এমন অবস্থা সৃষ্টি হয়েছে সদরের বল্লী, ঝাউডাঙ্গা ইউনিয়নে। অন্যদিকে  কালিগঞ্জ, আশাশুনি, শ্যামনগর, দেবহাটা, কলারোয়া উপজেলার কয়েকটি ইউনিয়নেও কাজ করছে অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের নেতারা। তবে এদের মধ্যে ২/৩ জন বর্তমানে চেয়ারম্যান পদেও আছেন।

চলতি ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচনে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় দফতর থেকে জারি করা পরিপত্রে বলা হয়েছে, প্রার্থী নির্বাচনে প্রত্যেক ইউনিয়নে কাউন্সিল করতে হবে। কাউন্সিলে চেয়ারম্যান পদে মনোনয়ন দিয়ে উপজেলা, পরবর্তীতে জেলা ও কেন্দ্রে পাঠাতে হবে। আর এতেই বিপাকে পড়ে গেছেন আওয়ামী লীগের অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের নেতারা। তারা দীর্ঘ দিন থেকে নির্বাচন করার জন্য মাঠে থাকলেও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের কাউন্সিলর না হওয়ায় বাছাইয়ের পূর্বেই বাদ পাড়ছেন।

সূত্র জানায়, আওয়ামী লীগের অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের নেতারা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের কাউন্সিলর নয়। আবার অনেক ইউনিয়নে ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক চেয়ারম্যান প্রার্থী। ফলে কাউন্সিলে অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের নেতারা থাকছে গোনার বাহিরে।

তালা উপজেলার কুমিরা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের প্রাক্তন সহ-সভাপতি আলাউদ্দীন সরদার জানান, ২০১৩ সালের ১৭ মে ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের দুই সদস্য বিশিষ্ট কমিটি গঠন করা হয়। কিন্তু আর কোন কার্যক্রম ২ বছর ৯ মাসেও হয়নি। ইউপি নির্বাচনে সভাপতি শেখ আজিজুল ইসলাম ও সাধারণ সম্পাদক রফিকুল ইসলাম দুই জনই চেয়ারম্যান প্রার্থী। দুই জনের কমিটিতে কিভাবে কাউন্সিল করে দলীয় প্রার্থী নির্বাচন করবে তা নিয়ে তিনি প্রশ্ন তোলেন। তিনি আরো জানান, ইউনিয়নে দীর্ঘ দিন থেকে উপজেলা যুবলীগের যুগ্ম আহবায়ক কাজী নজরুল ইসলাম হিল্লোল চেয়ারম্যান পদে নির্বাচনের জন্য প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছে। তিনি অভিযোগ করে বলেন, ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক রাতের আধারে পকেট কমিটি করে মনোনয়ন চুড়ান্ত করতে পারে। এ বিষয়ে জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদককে অবহিত করা হয়েছে।

অন্যদিকে, একই অবস্থা বিরাজ করছে জেলার ৩০টি ইউনিয়নে। ইউনিয়নগুলোতে আওয়ামী লীগের প্রার্থীদের সাথে যুবলীগ, স্বেচ্ছাসেবক লীগসহ সহযোগী ও অঙ্গ সংগঠনের নেতারা প্রচারণা চালালেও তাদের থাকতে হচ্ছে দলের বাহিরে।
নাম প্রকাশ না করে কয়েকজন প্রার্থী জানান, বিভিন্ন অঙ্গ সংগঠনের নেতা কর্মীরা যে সব ইউনিয়নে মাঠে আছে সে সব ইউনিয়নের জন্য জেলা আওয়ামী লীগের একটি সার্চ কমিটি গঠন করা হোক। যার জনপ্রিয়তা বেশি তাকে জেলা মনোনয়ন প্রদান করুন। তাহলে এতে কারো আপত্তি থাকবে না।
তবে তালা উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি শেখ নুরুল ইসলাম জানান, ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের কাউন্সিলে যে কারো নাম প্রস্তাব আসতে পারে। অঙ্গ সংগঠনের হলেও তা উপজেলা অনুমোদন দেবে।