ইউপি নির্বাচন : ধানদিয়ায় আ.লীগের একাধিক প্রার্থী মাঠে, বিএনপির একক


351 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
ইউপি নির্বাচন : ধানদিয়ায় আ.লীগের একাধিক প্রার্থী মাঠে, বিএনপির একক
নভেম্বর ৭, ২০২০ তালা ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

পাটকেলঘাটা প্রতিনিধি :
২০২১ সালের মার্চে ইউপি নির্বাচনের খবরে সারা দেশের ন্যায় সাতক্ষীরা জেলার তালা উপজেলায় তৃণমুল পর্যায়ে নেতাকর্মিরা নড়ে চড়ে বসতে শুরু করেছে। আগাম নির্বাচনী বার্তা নিয়ে সকল দলের প্রার্থীরা মাঠ পর্যায়ে গনসংযোগ উঠোন বৈঠক মতবিনিময় সভা শুরু করেছে। আসন্ন ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে সরকার দলীয় সমর্থক প্রার্থীর ছড়াছড়িতে মাঠ পর্যায়ে নেতাকর্মিদের মাঝে চাঙ্গাভাব পরিলক্ষিত হচ্ছে। দলীয় মনোনয়নসহ ভোটারদের মন জয় করতে অনেক আগে ভাগে প্রার্থীরা গনসংযোগ সহ কর্মকান্ড চালিয়ে যাচ্ছে । উপজেলা জুড়ে চলছে নির্বাচনী আমেজ অনেক হাইব্রিড নেতাদেরকেও মনোনয়ন দৌড়ে লবিং করতে দেখা যাচ্ছে।

প্রার্থী হতে নিজেদের অতীত কর্মকান্ড ও ভবিষ্যৎ কর্মপরিকল্পনা তুলে ধরা হচ্ছে ভোটার কর্মি সামর্থকদের মাঝে। প্রার্থীদের বিলবোর্ড,পোষ্টার,ব্যানার ,লিফলেট,ফেস্টুনে উপজেলার বিভিন্ন গুরুত্ব পূর্ন স্থান হাট বাজারে শোভা পাচ্ছে। বিভিন্ন রাজনৈতিক দলীয় একাধিক সুএে জানা গেছে উপজেলার ১নং ধানদিয়া ইউনিয়নে বর্তমান চেয়ারম্যান বিএনপি থেকে নির্বাচিত মোঃ জাহাঙ্গীর হোসেন রয়েছে সুবিধাজনক স্থানে। সুমিষ্টভাষী এই চেয়ারম্যান প্রার্থীকে হারাতে হলে আওয়ামীলীগের একক প্রার্থী নির্বাচনের বিকল্প নেই। ধানদিয়া ইউনিয়নে আওয়ামীলীগের দূর্গ থাকলেও সাংগঠনিক দূর্বলতার কারনে বার বার আওয়ামীলীগের প্রার্থীর পরাজয় হয় বলে আওয়ামীলীগের তৃণমুলের একাধিক নেতা কর্মিরা জানিয়েছেন। তাই তারা মনে করেন একজন সৎযোগ্য ও বলিষ্ঠ নেতাকে মনোনয়ন দেওয়া প্রয়োজন ।

ইউনিয়ন ঘুরে দেখা গেছে মনোনয়ন দৌড়ে মাঠ পর্যায়ে যাদের নাম শোনা যাচ্ছে তারা হলেন বিশিষ্ঠ ব্যবসায়ী আওয়ামীলীগ নেতা গাজী হামিজউদ্দীন,প্রবীণ আওয়ামীলীগ নেতা সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান অধ্যাপক সন্তোষ কুমার বিশ্বাস,ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক মাষ্টার শহিদুল ইসলাম,ছাত্র নেতা দিদারুল আলম প্রমুখ। ধানদিয়া ইউনিয়নে মোট ভোটার সংখ্যা ১৫ হাজার ৯৩৮জন,এদের মধ্যেপুরুষ ৭ হাজার ৮৮৪জন ও মহিলা ভোটার ৮হাজার ৫৪জন। ২০১৬ সালের ২২ মার্চ নির্বাচনে তালা উপজেলার ধানদিয়া ইউনিয়নে জাহাঙ্গীর আলম ধানেরশীষ প্রতীকে ৭২৯০ ভোট পেয়ে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন অপর দিকে নৌকা প্রতীক নিয়ে অধ্যাপক সন্তোষ বিশ্বাস ৫৫৪৭ ভোট পান।