ইতিহাস গড়া জার্সিটি ৫ লাখ ৫৫ হাজার টাকা দর তুললেন মিঠু খান


647 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
ইতিহাস গড়া জার্সিটি ৫ লাখ ৫৫ হাজার টাকা দর তুললেন মিঠু খান
এপ্রিল ২৬, ২০২০ খেলা ফটো গ্যালারি সাতক্ষীরা সদর
Print Friendly, PDF & Email

স্টাফ রিপোর্টার :

করোনায় ক্ষতিগ্রস্থদের সহায়তায় সাবেক ফিফা রেফারী তৈয়েব হাসানের জার্সিটি ৫ লক্ষ ৫৫ হাজার টাকায় কিনতে চান সাতক্ষীরা চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাষ্ট্রি’র সভাপতি নাছিম ফারুক খান মিঠু। সাতক্ষীরার কৃতি সন্তান আর্ন্ত জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন সাবেক ফিফা রেফারী তৈয়েব হাসানের ২০১৩ সালের সাফ চ্যাম্পিয়নশীপের ফাইনাল খেলায় রেফারীর দায়িত্বে থাকা অবস্থায় তার ব্যবহৃত জার্সিটি স্বেচ্ছায় অনলাইনে নিলামে তোলার ঘোষণা দিয়েছেন এবং জার্সি বিক্রি থেকে প্রাপ্ত সম্পূর্ণ অর্থ তিনি করোনা ভাইরাসের কারণে ক্ষতিগ্রস্থদের কল্যাণে ব্যয় করার অঙ্গীকার করেন।

আজ রবিবার দুপুরে নাসিম ফারুক খান মিঠু নিলামের ঘোষণার ডাকে সাড়া দেন। একদিন আগে প্রথমে নিলামে সাড়া দেন সাতক্ষীরার তরুণ ব্যবসায়ী তুফান কোম্পানী লিমিটেড এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক তানজিম কালাম তমাল। তিনি ২ লাখ টাকায় সার্সিটি কিনতে আগ্রহ প্রকাশ করেন।

চেম্বার অব কমার্সের সভাপতি নাছিম ফারুক খান মিঠু বলেন, দেশ বর্তমানে একটি কঠিন সংকটময় সময় পার করছে। এমতাবস্থায় দেশের এই ক্রান্তিকালীন মুহুর্তে সাতক্ষীরার কৃতি সন্তান তৈয়েব হাসান বাবু ভাই এর মহৎ উদ্যোগকে আমি স্বাগত জানাই। তিনি আরও বলেন এই জার্সি ক্রয়ে আমার ইচ্ছাপোষণের প্রধান কারণ উক্ত অর্থ সম্পূর্ণ মানবতার কল্যাণে বিশেষ করে করোনায় ক্ষতিগ্রস্থদের কল্যাণে ব্যয় হবে। বর্তমান মুহুর্তে আমাদের সকলেরই উচিত যতটুকু সম্ভব মানুষের পাশে দাঁড়ানো। তিনি আরও আশাবাদ ব্যক্ত করেন, এই বিখ্যাত জার্সিটির মূল্য আরও অনেক বেশি হবে। তিনি সমাজের সকল বিত্তবানদের প্রতি আহবান জানান, করোনায় ক্ষতিগ্রস্থদের কল্যাণে এগিয়ে আসার এবং এই নিলামে অংশগ্রহণের।

এ ব্যাপারে দেশবরেণ্য রেফারী তৈয়েব হাসানের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, “আমি সাতক্ষীরা চেম্বার অব কমার্সের সভাপতি নাছিম ফারুক খান মিঠু কে স্বাগত জানাই এই ঘোষিত নিলামে অংশগ্রহণের জন্য এবং তার এই মানবতার কল্যাণে এগিয়ে আসার উদ্যোগকেও আমি আন্তরিকভাবে সাধুবাদ জানাই।

উল্লেখ্য, দেশবরেণ্য রেফারী তৈয়েব হাসানের রয়েছে আন্তর্জাতিক ক্রীড়াঙ্গনে দীর্ঘ ১৮ বছরের রেকর্ড। তিনি বাংলাদেশের রেফারী হিসেবে সবচেয়ে বেশী আন্তর্জাতিক ম্যাচ পরিচালনা করেন। দীর্ঘ ১০ বছর তিনি এএফসির এলিট প্যানেলেও ছিলেন। আন্তর্জাতিক রেফারী ছিলেন ১৯৯৬ থেকে ২০১৬ সাল পর্যন্ত। বিশ্বকাপ বাছাই, অলিম্পিক বাছাই, এশিয়ান গেমস, সাফ গেমস সহ বিভিন্ন ম্যাচ পরিচালনার রেকর্ড রয়েছে তার। বর্তমানে তিনি বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনের প্রশিক্ষক হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। ২০১৩ সালে নেপালের কাঠমুন্ডুতে সাফ ফুটবলের ফাইনালে ভারত বনাম আফগানিস্তানের ম্যাচটি এই বিখ্যাত জার্সি পরিধান করে তিনি পরিচালনা করেছিলেন। সাফ ফাইনালের সেরা রেফারী হিসেবে তার খ্যাতি রয়েছে। তার কাছে জানতে চাইলে তিনি জানান, আমি করোনায় ক্ষতিগ্রস্থদের জন্য কিছু করতে চাই এবং সমাজের সকল বিত্তবানদের আহবান জানাই এই নিলাম কার্যক্রমে অংশগ্রহণের জন্য। কেননা তিনি এই সকল অর্থ করোনায় ক্ষতিগ্রস্থদের কল্যাণে ব্যয় করবেন।