ইসলামে রক্তপাতের অনুমতি নেই : সৌদি গ্র্যান্ড মুফতি


348 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
ইসলামে রক্তপাতের অনুমতি নেই : সৌদি গ্র্যান্ড মুফতি
সেপ্টেম্বর ২৩, ২০১৫ প্রবাস ভাবনা ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

ফসিহ উদ্দীন মাহতাব, মক্কা থেকে
বিশ্ব মুসলমানের শান্তির ঐক্য ও সমৃদ্ধি কামনার মধ্য দিয়ে বুধবার হজ অনুষ্ঠানিকতা শুরু হয়েছে। বিশ্বের বিভিন্ন দেশ থেকে আসা ২০ লক্ষাধিক ধর্মপ্রাণ মুসলমান এবার হজ পালন করেছেন। মক্কা নগরীর অদূরে আরাফাতের ময়দানে অবস্থানের মধ্য দিয়ে বিশ্ব মুসলিমের সর্ববৃহৎ এই সম্মিলন শুরু হয়েছে। সূর্যোদয়ের পর লাখ লাখ হাজি মিনা থেকে রওনা হন আরাফাতের ময়দানে।  হাজিদের আবেগ মেশানো ‘লাব্বাইক, আল্লাহুম্মা লাব্বাইক, লাব্বাইকা লা শারিকা লাকা লাব্বাইক, ইন্নাল হামদা ওয়ানি্ন’মাতা লাকা ওয়ালমুল্ক।’ অর্থাৎ ‘আমি হাজির, হে আল্লাহ আমি হাজির, তোমার কোনো শরিক নেই, সব প্রশংসা ও নিয়ামত শুধু তোমারই, সব সাম্রাজ্যও তোমার।’ এই ধ্বনিতে মুখর আরাফাতের ময়দান।

সূর্য পশ্চিমাকাশে হেলে পড়ার পর মসজিদ নামিরা থেকে খুতবার বয়ান করেন সৌদি আরবের গ্র্যান্ড মুফতি শেখ আব্দুল আজিজ বিন আব্দুল্লাহ আল শায়খ। কুরআন হাদীসে মূলনীতির ভিত্তিতে বিশ্ব মুসলিমকে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার আহবান জানান তিনি। মসজিদে নামিরাহ থেকে তিনি খুতবা দেন। আরাফারাতের ময়দানে নাজিলকৃত কোরআনের আয়াতের উদ্ধৃতি দিয়ে মুফতি শেখ আব্দুল আজিজ বিন আব্দুল্লাহ বলেন, ‘আল্লাহর মনোনিত একমাত্র জীবন ব্যবস্থা হচ্ছে ইসলাম। আার এই দ্বীন আল্লাহর পক্ষ থেকে আমানত।’

খুতবায় তিনি পরস্পরে ভেদাভেদ ভুলে গিয়ে শান্তির বিশ্ব প্রতিষ্ঠার জন্য সকলের প্রতি আহ্বান জানান। তিনি বলেন, ইসলামে ফেতনা ফ্যাসাদ রক্তপাতের অনুমতি নেই। তিনি দাওয়াতের গুরুত্বারোপ করে সৎ কাজের আদেশ ও অসৎ কাজে বাধা প্রদানের দায়িত্ব পালনের কথা মুসলমানদের স্মরণ করিয়ে দেন।

সমবেত মুসল্লিরা খুৎবা শোনেন এবং জোহরের ওয়াক্তে জোহর ও আসরের নামাজ পর পর আদায় করেন একই ইমামের পেছনে।

সূর্যাস্তের আগ পর্যন্ত এই ময়দানেই চলবে হাজিদের ইবাদত বন্দেগি। হজের নিয়ম অনুযায়ী সূর্যাস্তের সঙ্গে সঙ্গে হাজিরা পরবর্তী গন্তব্য ৫ কিলোমিটার দূরে মুজদালিফার দিকে রওনা হবেন। মুজদালিফায় মাগরিব ও এশার নামাজ আদায় করে সেখানেই খোলা আকাশের নিচে রাত্রি যাপন করবেন আল্লাহর মেহমানরা।