ঈদযাত্রায় সিরাজগঞ্জ ও গোপালগঞ্জে সড়কে ঝরল ৬ প্রাণ


62 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
ঈদযাত্রায় সিরাজগঞ্জ ও গোপালগঞ্জে সড়কে ঝরল ৬ প্রাণ
জুন ৪, ২০১৯ জাতীয় ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

অনলাইন ডেস্ক ::

সিরাজগঞ্জের বগুড়া-নগরবাড়ি মহাসড়কে একটি যাত্রীবাহী বাস খাদে পড়ে ৪ নির্মাণশ্রমিক এবং গোপালগঞ্জে মাইক্রোবাস ও মোটরসাইকেলের মুখোমুখি সংঘর্ষে দু’জন নিহত হয়েছে।

সিরাজগঞ্জ: গাজীপুরের কোনাবাড়ি থেকে আসা যাত্রীবাহী বাসটি রংপুর যাচ্ছিল। পথে সোমবার রাত আড়াইটার দিকে রায়গঞ্জ উপজেলার ষোলমাইল-তবারিয়া নামক স্থানে বগুড়া-নগরবাড়ি মহাসড়কে বাসটি নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে খাদে পড়ে উল্টে যায়। এতে চারজন নিহত ও অন্তত ২০ জন আহত হয়।

নিহত চার নির্মাণশ্রমিক হলেন- গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জ উপজেলার কুটিপাড়া গ্রামের হামিদুল ইসলাম (৩৪), একই উপজেলার তালুক সর্বানন্দ গ্রামের শাহজাহান আলী (৩৫), কিছামত-হালুদিয়া গ্রামের ফজলুল হক (৩৫) এবং রংপুর জেলার মিঠাপুকুর উপজেলার কিমাতপুর-মহুরীপাড়ার আতাউর রহমান (৩২)।

হাটিকুমরুল হাইওয়ে থানার ওসি আব্দুল কাদের জিলানী জানান, ফায়ার সার্ভিস ও পুলিশ সদস্যরা গিয়ে উদ্ধার অভিযান চালিয়ে নিহত চারজনের লাশ উদ্ধার করেছে। আহত ২০ জনকে উদ্ধার করে রায়গঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সসহ স্থানীয় বিভিন্ন ক্লিনিকে পাঠানো হয়েছে।

তিনি আরও জানান, দ্রুতগতির কারণে বাসটি নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে এ দুর্ঘটনা ঘটেছে বলে প্রাথমিকভাবে ধারণা করছে পুলিশ।

গোপালগঞ্জ: সোমবার রাত পৌনে ১১টার দিকে ঢাকা-খুলনা মহাসড়কের গোপালগঞ্জ সদর উপজেলার গোপীনাথপুর শরীফপাড়া নামক স্থানে একটি মাইক্রোবাস ও মোটরসাইকেলের মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়। এতে দু’জন নিহত হন। নিহতেরা হলেন- কাশিয়ানী উপজেলার ঘোনাপাড়া গ্রামের মকিত মোল্লার ছেলে মোটরসাইকেল আরোহী নয়ন মোল্লা (২৬) ও একই গ্রামের সৈয়দ লিটনের ছেলে সৈয়দ ওয়ালিদ (২২)। আহত মোটরসাইকেল চালক আরিফ শেখসহ (৩২) চারজনকে গোপালগঞ্জ জেনারেল হাসপতালে ভর্তি করা হয়েছে।

গোপালগঞ্জ সদর উপজেলার গোপীনাথপুর পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের পরিদর্শক হযরত আলী জানান, গোপালগঞ্জ থেকে ঈদের কেনাকাটা শেষে মোটরসাইকেলে করে গ্রামের বাড়ি ঘোনাপাড়া যাচ্ছিলেন নয়ন। মোটরসাইকেলটি গোপীনাথপুর শরীফপাড়া পৌঁছালে বিপরীত দিক থেকে আসা একটি মাইক্রোবাসের সঙ্গে মুখোমুখি সংষর্ষ হয়। এতে ঘটনাস্থলেই দু’জনের মৃত্যু ও আরও অন্তত চারজন আহত হয়।

গোপালগঞ্জ ফায়ার সার্ভিসের স্টেশন অফিসার নূর মোহাম্মদ শেখ বলেন, সংঘর্ষে মাইক্রোবাসটির সামনের অংশ ও মোটরসাইকেলটি দুমড়েমুচড়ে যায়। পুলিশ ও স্থানীয়দের সহযোগিতায় উদ্ধর কাজ সম্পন্ন হয়েছে। মোটরসাইকেল চালক আরিফ শেখের অবস্থা আশঙ্কাজনক।