উপজেলা নির্বাচনে সর্বোচ্চ ৩ জনের নাম চায় আ’লীগ


321 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
উপজেলা নির্বাচনে সর্বোচ্চ ৩ জনের নাম চায় আ’লীগ
জানুয়ারি ২৩, ২০১৯ জাতীয় ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

*তৃণমূলে চিঠি

অনলাইন ডেস্ক ::

উপজেলা পরিষদের তিনটি পদের নির্বাচনে দলীয় মনোনয়নের জন্য সর্বোচ্চ তিনজন করে নয়জন প্রার্থীর তালিকা পাঠাতে তৃণমূল কমিটিগুলোকে চিঠি দিয়েছে আওয়ামী লীগ। উপজেলা চেয়ারম্যান, ভাইস চেয়ারম্যান এবং নারী ভাইস চেয়ারম্যান-এ তিন পদে এ নির্বাচন হবে।

এসব পদে দলীয় প্রার্থী চূড়ান্ত করতে আগামী ২৬ জানুয়ারি শনিবার সন্ধ্যা সাড়ে ৬টায় গণভবনে আওয়ামী লীগের সংসদীয় বোর্ড ও স্থানীয় সরকার মনোনয়ন বোর্ডের যৌথসভা হবে। দলের সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে এ সভায় উপজেলা পরিষদ ছাড়াও সংসদের সংরক্ষিত নারী আসনে দলীয় প্রার্থীও চূড়ান্ত করা হবে। দলের সাধারণ সম্পাদক সংশ্নিষ্ট সবাইকে সভায় উপস্থিত থাকার অনুরোধ জানিয়েছেন।

আগামী মার্চে কয়েক ধাপে উপজেলা পরিষদ নির্বাচন অনুষ্ঠানের পরিকল্পনা রয়েছে নির্বাচন কমিশনের (ইসি)। ফেব্রুয়ারি মাসের প্রথম সপ্তাহে এ নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার কথাও জানিয়েছে কমিশন। এবারই প্রথম দলীয় প্রতীকে উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান নির্বাচন হবে। তবে ভাইস চেয়ারম্যান ও নারী ভাইস চেয়ারম্যান পদে ভোট হবে ভিন্ন ভিন্ন প্রতীকে।

আওয়ামী লীগ ইতিমধ্যে উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের প্রস্তুতি শুরু করেছে। গত ৩০ ডিসেম্বরের জাতীয় নির্বাচনে নিরঙ্কুশ বিজয়ের ধারাবাহিকতায় উপজেলা নির্বাচনেও সর্বোচ্চ সাফল্য পেতে এ প্রস্তুতি চলছে। দলীয় প্রতীকে চেয়ারম্যান পদ ছাড়াও অন্য দুটি ভাইস চেয়ারম্যান পদেও একক প্রার্থী নিয়ে মাঠে নামতে চায় এই দল।

এ নির্বাচনের প্রার্থী মনোনয়নপ্রক্রিয়া শুরু করতে সম্প্রতি আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের স্বাক্ষরিত একটি চিঠিটি পাঠানো হয়। দলের সব জেলা-উপজেলা কমিটির সভাপতি-সাধারণ সম্পাদক অথবা আহ্বায়ক-যুগ্ম আহ্বায়কদের কাছে পাঠানো এ চিঠিতে বলা হয়েছে, উপজেলা নির্বাচনের প্রতিটি পদে একক অথবা তিনজন প্রার্থীর নামের সুপারিশ-সংবলিত একটি প্যানেল তৈরি করতে হবে। দলের উপজেলা শাখা প্রতিটি ইউনিয়ন ও ওয়ার্ডে বর্ধিত সভা করে এ প্যানেল তৈরি করে দলের জেলা সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের কাছে পাঠাবে। এরপর জেলা আওয়ামী লীগ সংশ্নিষ্ট সব উপজেলার প্রার্থী তালিকা আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনার ধানমণ্ডির রাজনৈতিক কার্যালয়ে ডাকযোগে কিংবা সরাসরি অন্য কোনো মাধ্যমে পৌঁছে দেবে। এই প্রার্থী তালিকায় জেলা ও উপজেলা শাখার সভাপতি এবং সাধারণ সম্পাদক অথবা আহ্বায়ক ও যুগ্ম আহ্বায়কদের যৌথ স্বাক্ষর থাকতে হবে। চিঠিতে প্রার্থী মনোনয়ন প্রক্রিয়ায় তৃণমূলকে কিছু নির্দেশনাও দেওয়া হয়েছে।

দলের গঠনতন্ত্র অনুযায়ী, উপজেলা নির্বাচনে দলীয় মনোনয়নেচ্ছু প্রার্থীদের মনোনয়ন ফরমের মূল্য চেয়ারম্যান পদে ২০ হাজার টাকা এবং ভাইস চেয়ারম্যান ও নারী ভাইস চেয়ারম্যান পদে পাঁচ হাজার টাকা করে নির্ধারণ করা হয়েছে।

দলীয় কার্যালয় নির্মাণের নির্দেশ :আওয়ামী লীগের পক্ষে পাঠানো আরেকটি চিঠিতে দলীয় কার্যালয় না থাকা মহানগর এবং জেলা-উপজেলায় কার্যালয় নির্মাণ করতে বলা হয়েছে। চিঠিতে দলীয় সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশ অনুযায়ী বলা হয়েছে, যেসব জেলায় দলের নিজস্ব জমি রয়েছে অথচ কার্যালয় নেই সেখানে দলীয় খরচে কার্যালয় নির্মাণ করতে হবে। নিজস্ব জমি না থাকলে তা কেনারও নির্দেশ দেওয়া হয়েছে তৃণমূল নেতাদের।

গত ১৯ জানুয়ারি ওবায়দুল কাদের স্বাক্ষরিত চিঠিটি ডাকযোগে মহানগর, জেলা, উপজেলা, থানা এবং পৌর আওয়ামী লীগ সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক অথবা আহ্বায়ক ও যুগ্ম আহ্বায়কের কাছে পাঠানো হয়েছে।

চিঠিতে দলীয় কার্যালয়-সংক্রান্ত সব তথ্য চাওয়া হয়েছে। বলা হয়েছে, জেলা, উপজেলা, মহানগর, থানা ও পৌর আওয়ামী লীগের কার্যালয় আছে কি-না। থাকলে জমির মালিকানাসহ ঠিকানা এবং ফোন নম্বরও দিতে হবে। কোথাও অস্থায়ী কার্যালয় (ভাড়া নেওয়া) থাকলে তার ঠিকানা ও ফোন নম্বর এবং স্থায়ী-অস্থায়ী কার্যালয়ের কম্পিউটার, ইন্টারনেট সংযোগ, ফ্যাক্স ও টেলিফোন সম্পর্কিত তথ্যও পাঠাতে হবে।

এর আগে ২০তম জাতীয় সম্মেলনের পর গত বছরের প্রথমভাগে দলীয় ফোরামের এক সভায়ও সারাদেশে দলীয় কার্যালয় নির্মাণ-সংক্রান্ত বিভিন্ন দিকনির্দেশনা দেওয়া হয়েছিল। তৃণমূলের সব কমিটিই ওই ফরম পূরণ করে জমা দিয়েছে।