এই বেদনা বাঙালির খুব চেনা: প্রসেনজিৎ


1071 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
এই বেদনা বাঙালির খুব চেনা: প্রসেনজিৎ
মে ২, ২০১৬ ফটো গ্যালারি বিনোদন
Print Friendly, PDF & Email
সীমানা ছাড়িয়ে দুই বাংলার হৃদয়স্পর্শী এক গল্প নিয়ে মন জয় করা সিনেমা ‘শঙ্খচিল’। ‘শঙ্খচিল’ যে মানুষের মন এইভাবে ছুঁয়ে যাবে এটা  প্রথম দিকে ভাবতে পারেননি পরিচালক গৌতম ঘোষও।

 

ছবির এই জনপ্রিয়তার একটা বড় কারণ প্রসেনজিতের হৃদয় ছুঁয়ে যাওয়া অভিনয়, একটা অসাধারণ গল্প, অনবদ্য পরিচালনা। আগের যেকোন চরিত্রকে ছাপিয়ে গেছেন প্রসেনজিৎ।

ভারতীয় দৈনিক আনন্দবাজার পত্রিকার সঙ্গে এসব বিষয় নিয়ে কথা বলেছেন বাংলা সিনেমার জনপ্রিয় এই অভিনেতা।

প্রসেনজিৎ বললেন, আমি আমার সেরাটা দেওয়ার চেষ্টা করেছি এই ছবিতে। সংলাপ কম থাকলেও কোনও কোনও চরিত্রে প্রচুর স্তর থাকে। বাদলের চরিত্রটার মধ্যেও অনেক স্তর আছে। আমি সেই গভীর জায়গাগুলোকে ছোঁয়ার চেষ্টা করেছি।

বাংলাদেশ থেকে মেয়ে রূপসাকে (সাঁঝবাতি) দুরারোগ্য অসুখের জন্য চিকিৎসা করাতে কলকাতায় নিয়ে আসে ছবির নায়ক মুন্তাসির চৌধুরী বাদল (প্রসেনজিৎ চট্টোপাধ্যায়) এবং তার স্ত্রী লায়লা (কুসুম শিকদার)।

কলকাতা শহর, যেখানে শুকনো গাছে উড়ে বেড়ায় অজস্র কাক। শহরের রুক্ষ, রূঢ় পরিবেশে হারিয়ে যায় বাবার আর্তি, মায়ের কান্না। তাদের হাহাকার মিশে যায় কাকেদের কর্কশ চিৎকারে।  রাস্তায় পড়ে থাকা নিকাশি পাইপের অতলান্ত গভীরে যেন ঢুকে যায় বাদলের জীবন। তার পরেও বাদল স্বপ্ন দেখে। এই ভাবেই ‘শঙ্খচিল’ এক মানুষের দুরন্ত উড়ানের গল্প বলে।

ভারত বাংলাদেশ যৌথ প্রযোজনায় জাতীয় পুরস্কার প্রাপ্ত শ্রেষ্ঠ বাংলা ছবি  ‘শঙ্খচিল’য়ের অন্যতম প্রযোজকও প্রসেনজিৎ। কেন প্রযোজনায় গেলেন? ‘‘এই ছবিটা এতটাই ভাল, যে আমার মনে হয়েছিল ছবিটার খানিকটা মালিকানা আমারও থাক। আমি এই ছবিটাকে আন্তর্জাতিক উৎসবগুলোতে নিয়ে যাবার পরিকল্পনাও করছি।

ইছামতী নদী, কুয়াশা ভরা আকাশ, মেঠোপথ, জলজঙ্গল, পাখ-পাখালি— সবই যেন জলছবির মতো ফুটে উঠেছে গৌতম ঘোষের পুত্র ঈশান ঘোষের ক্যামেরায়। সেই সঙ্গে এসেছে বাক্স প্যাঁটরা মাথায় উদ্বাস্তুদের চেনা ছবি। ছবির সঙ্গে মিশে গিয়েছে সব হারানোর  বেদনা।

প্রসেনজিৎ বলেন, এই বেদনা বাঙালির খুব চেনা। দশটার মধ্যে ন’টা  বাঙালি পরিবার দেশভাগের যন্ত্রণার শিকার। ছিন্নমূল বাঙালি আজও দেশভাগ নিয়ে ছবি হলে তার সঙ্গে একাত্ম বোধ করে। বেদনার সেই একাত্মতা তৈরি হয়েছে ‘শঙ্খচিল’য়ের সঙ্গেও। –