একাডেমিক এওয়ার্ড শিক্ষার্থীদের মধ্যে অধ্যবসায় ও অনুশীলনে উৎসাহ যোগায় : খুবি উপাচার্য


504 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
একাডেমিক এওয়ার্ড শিক্ষার্থীদের মধ্যে অধ্যবসায় ও অনুশীলনে উৎসাহ যোগায় : খুবি উপাচার্য
নভেম্বর ২, ২০১৫ খুলনা বিভাগ ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

সোমবার বিকেলে খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের এক নম্বর একাডেমিক ভবনে কেইউএডি-বার্জার এওয়ার্ড প্রদান উপলক্ষ্যে এক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। বিশ্ববিদ্যালয়ের স্থাপত্য ডিসিপ্লিন প্রধান ও ছাত্রবিষয়ক পরিচালক প্রফেসর ড. অনির্বাণ মোস্তফার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত এ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন উপাচার্য প্রফেসর ড. মোহাম্মদ ফায়েক উজ্জামান। তিনি বলেন, একাডেমিক এওয়ার্ড শিক্ষার্থীদের মধ্যে অধ্যবসায় ও অনুশীলনে উৎসাহ যোগায় এবং বিষয়ের প্রতি আরও গভীর মনোনিবেশের জন্য সহায়ক হয়। এর মাধ্যমে শিক্ষার্থীদের মধ্যে এক ধরনের প্রতিযোগিতার মনোভাব সৃষ্টি হয় যা তাদের শিক্ষা জীবনে সাফল্য এনে দেয়। তিনি বলেন বিশ্বমান অর্জনে খুলনা বিশ্ববিদ্যালয় যে প্রচেষ্টা চালাচ্ছে স্থাপত্য ডিসিপ্লিন এ ক্ষেত্রে অগ্রণী ভূমিকা পালন করছে। স্থাপত্য ডিসিপ্লিন খুলনা শহরের নান্দনিক সৌন্দার্য বৃদ্ধির ক্ষেত্রে অনন্য ভূমিকা পালন ছাড়াও দেশের সংশ্লিষ্ট ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করছে এবং নিকট ভবিষ্যতে বিশ্ব পর্যায়ে পরিচিতিলাভ করবে বলে তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেন। তিনি কেইউএডি-বার্জার এওয়ার্ড প্রদান শিক্ষা সহায়তার যৌথ উদ্যোগকে অত্যন্ত প্রশংসনীয় বলে উল্লেখ করে বলেন, বার্জার যে কেবল একটি ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠান তা নয়, সামাজিক দায়িত্ব হিসেবে তারা শিক্ষা-গবেষণার সহায়তায় এগিয়ে এসেছে এই এওয়ার্ড তার উৎকৃষ্ট নিদর্শন। তিনি প্রতিষ্ঠানের ব্যবস্থাপনা পরিচালকসহ সবাইকে ধন্যবাদ জানান।  অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেKhulna University photo-3বে বক্তব্য রাখেন বিশ্ববিদ্যালয়ের ট্রেজারার খান আতিয়ার রহমান, সাইটে স্কুলের ডিন প্রফেসর ড. মোহাম্মদ ইসমত কাদির, বার্জার বাংলাদেশ এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক রূপালী চৌধুরী। অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন স্থাপত্য ডিসিপ্লিনের সহকারী অধ্যাপক এস এম নাজিম উদ্দিন। ২০১১-১২ এর সর্বোচ্চ জিপিএ অর্জনের জন্য লামিয়া তাসলিম অংকন, মোঃ নাজমুল হুদা, নূর মোহাম্মদ খান এবং ২০১২-১৩ এ জুলফিকার আহমেদ, রেদওয়ান কবীর কৌশিক, মোঃ আজহারুল ইসলাম, শেখ রিসতি আহমেদ ও শায়লা শারমিন এই এওয়ার্ড লাভ করেন। এওয়ার্ড গ্রহণকালে প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করে শিক্ষার্থীরা বলেন এই এওয়ার্ড তাদের শিক্ষাজীবনে ইতিবাচক প্রভাব রাখছে এবং তারা এ ধরনের উদ্যোগ গ্রহণ করার জন্য আনন্দিত। প্রতিজন এওয়ার্ডপ্রাপ্ত শিক্ষার্থীকে ২৫ হাজার টাকা ও একটি ক্রেস্ট উপহার দেয়া হয়।  উপাচার্য ক্রেস্ট ও বার্জার বাংলাদেশের এমডি পুরস্কার তুলে দেন। উল্লেখ্য, খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের স্থাপত্য ডিসিপ্লিন (কেইউএডি) ও বার্জারের মধ্যে সম্পাদিত সমঝোতা স্মারকের আওতায় প্রতিবছর সর্বোচ্চ জিপিএ ৪ এর মধ্যে নূন্যতম ৩.৫ প্রাপ্তদের সর্বোচ্চ স্থান অধিকারীদের এ পুরস্কার ছাড়াও বার্জার স্থাপত্য ডিসিপ্লিনের শিক্ষা উপকরণ সংগ্রহের জন্য অনুদান দিয়ে আসছে। অনুষ্ঠানে বিশ্ববিদ্যালয়ের সংশ্লিষ্ট ডিসিপ্লিনের শিক্ষক, শিক্ষার্থী এবং বার্জারের জ্যেষ্ঠ মহাব্যবস্থাপক (বিক্রয় ও বিপণন) মোহসীন হাবিব চৌধুরীসহ উর্ধতন কর্মকর্তাবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

প্রেস বিজ্ঞপ্তি