একুশের চেতনা ছড়িয়ে দেয়ার প্রত্যয়ে প্রেসক্লাবে সুন্দর হাতের লেখা ও চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতা


923 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
একুশের চেতনা ছড়িয়ে দেয়ার প্রত্যয়ে প্রেসক্লাবে সুন্দর হাতের লেখা ও চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতা
ফেব্রুয়ারি ২০, ২০১৭ ফটো গ্যালারি সাতক্ষীরা সদর
Print Friendly, PDF & Email

স্টাফ রিপোর্টার ::
মহান একুশের চেতনায় দেশ প্রেমিক সুনাগরিক হিসেবে গড়ে ওঠার দৃপ্ত প্রত্যয়ে সাতক্ষীরা প্রেসক্লাবে অনুষ্ঠিত হয়েছে সুন্দর হাতের লেখা ও চিত্রাঙ্কন প্রতিেিযাগিতা। একুশের প্রাক্কালে সোমবার বিকেলে এ উপলক্ষে ছোট ছোট সোনামনিদের পদচারণায় মুখরিত হয়ে ওঠে সাতক্ষীরা প্রেসক্লাব চত্তর।

ছোট ছোট সোনামনিরা রং তুরির আঁচড়ে তুলে ধরে ৫২’র গৌরবগাঁথা ঐতিহ্য। সুন্দর হাতের লেখা উপস্থিত অতিথিবৃন্দকে মুগ্ধ করে। বসন্ত বিকেলে শিশু শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের উপস্থিতিতে প্রেসক্লাব চত্তর হয়ে ওঠে মুখরিত। প্রতিযোগিতায় শতাধিক শিশু অংশগ্রহণ করে। প্রতিযোগিতা শেষে বিজয়ীদের মাঝে পুরস্কার বিতরণ করা হয়।

এ উপলক্ষে প্রেসক্লাব মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত হয় আলোচনা সভা। সাতক্ষীরা প্রেসক্লাব সভাপতি আবুল কালাম আজাদের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন, সাতক্ষীরা মেডিকেল কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর ডা. হাবিবুর রহমান।

বিশেষ অতিথি ছিলেন সাতক্ষীরা প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক মো: আব্দুল বারী ও সাবেক সভাপতি শিক্ষাবিদ আনিসুর রহিম, দেশ টিভি ও বিডি নিউজের সাতক্ষীরা প্রতিনিধি শরীফুল্লাহ কায়সার সুমন।

সাতক্ষীরা প্রেসক্লাবের বিভিন্ন দিবস উদ্যাপন কমিটির আহ্বায়ক আবুল কাশেমের সঞ্চালনায় এসময় উপস্থিত ছিলেন সাবেক সহ-সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল ওয়াজেদ কচি, সাংবাদিক মিজানুর রহমান, ঈষিকা আর্টের সত্ত্বাধিকারি বিশিষ্ট চিত্রশিল্পী আব্দুল

জলিল, আমিনা বিলকিস ময়না, আক্তারুজ্জামান বাচ্চু, ইব্রাহিম খলিল, সৈয়দ রফিকুল ইসলাম শাওন, এসএম শহীদুল ইসলাম, কৃষ্ণ মোহন ব্যানার্জী, আসাদুজ্জামান সরদার প্রমুখ।

অনুষ্ঠানে বক্তারা বলেন, একুশ মানে মাথা নত না করা। একুশ মানে অন্যায় ও দুর্নীতির বিরুদ্ধে বারুদ ফোটা প্রতিবাদ। একুশ শোষণ নির্যাতনের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ানোর অঙ্গীকার। প্রজন্ম থেকে প্রজন্মান্তরে সে চেতনা ছড়িয়ে দিয়ে একটি অসাম্প্রদায়িক সুখি সমৃদ্ধ বাংলাদেশ গড়ার এখনই সময়।

আজকের যে শিশুরা এ প্রতিযোগিতায় অংশ নিয়েছে তারাই একদিন আলোকিত সমাজ বিনির্মাণে একুশের চেতনা ছড়িয়ে দেবে।
৫২’র মহান ভাষা এন্দালনের প্রেক্ষাপট ও সাতক্ষীরার গৌরবময় ইতিহাস তুলে ধরে বক্তারা আরো বলেন, ভাষা আন্দালনের প্রথম শহীদ সাতক্ষীরার ছেলে।

বুধহাটার আনোয়ার হোসেন খুলনা বিএল কলেজে ছাত্র ছিলেন। তাকে ১৯৪৮ সালে গ্রেপ্তার করে রাজশাহী খাপড়া ওয়ার্ডে বন্দী করে রাখার পর পাকিস্তান সরকার জেলখানায় হত্যা করে।

বক্তারা বলেন, দেশে এমন কোনো সেক্টর নেই যেখানে সাতক্ষীরা গৌরবময় ইতিহাস নেই। সাহিত্য সংস্কৃতি খেলাধূলা চিকিৎসাসহ প্রতিটি ক্ষেত্রে সাতক্ষীরা সন্তানেরা দেখিয়েছে সাফল্য। গোটা বিশ্বকে তাক লাগিয়েছে সৌম্য মুস্তাফিজ। বক্তারা বলেন, পাকিস্তান আমলেও সাতক্ষীরার সন্তান আতাউর রহমান ক্রীড়াঙ্গনে বিশ্বে চমক দেখিয়েছিলেন।

সাতক্ষীরায় জন্ম হয়েছে দেশ বরেণ্য অসংখ্য ব্যক্তির। বক্তারা উপস্থিত অভিভাবকদের উদ্দেশ্যে বলেন, আজকের শিশু আগামী দিনের ভবিষ্যত। ঘুমিয়ে আছে শিশুর পিতা সব শিশুরই অন্তরে। তাই আগামী প্রজন্মকে দেশ প্রেমিক সুনাগরিক হিসেবে গড়ে তোলার আহ্বান জানান বক্তারা।

অনুষ্ঠানে চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতায় ক গ্রুপে সাতক্ষীরা কিন্ডার গার্টেনের জারিন তাসনিম খান- প্রথম, একই স্কুলেরজেড. আই তাহিয়াত- দ্বিতীয় এবং সায়ন্তনী সরকার তৃতীয় পুরস্কার পায়। খ-গ্রুপে সিলভার জুবলি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যলয়ের কাজী জহির

ইফরীত-প্রথম, সাতক্ষীরা সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ের রাজকুমার মজুমদার-দ্বিতীয় ও একই স্কুলের অহীন অর্ণব বাছাড়-তৃতীয় পুরস্কার পায়। সুন্দর হাতের লেখা প্রতিযোগিতায় সাতক্ষীরা পুলিশ লাইন স্কুলের সাদ ইবনে আখতার- প্রথম, মর্নিংসান প্রি ক্যাডেট স্কুলের নিসর্গ কুন্ডু-দ্বিতীয় এবং সিলভার জুবলি মডেল সরকারি প্রাইমারি স্কুলের তানিশা তাসনিম তৃতীয় পুরস্কার লাভ করে।

##