এসডিজি বাস্তবায়নের জন্য কার্যকর জলবায়ু চুক্তি প্রয়োজন : প্রধানমন্ত্রী


313 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
এসডিজি বাস্তবায়নের জন্য কার্যকর জলবায়ু চুক্তি প্রয়োজন : প্রধানমন্ত্রী
সেপ্টেম্বর ২৮, ২০১৫ জাতীয় ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

অনলাইন :
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আসন্ন প্যারিস সম্মেলনে জলবায়ু চুক্তি কার্যকর করার ওপর গুরুত্বারোপ করে বলেছেন, মানুষের উজ্জ্বল ভবিষ্যতের জন্য টেকসই উন্নয়ন এজেন্ডা (এসডিজি) বাস্তবায়নে জলবায়ু চুক্তি সহায়ক হবে।

চলতি বছরের শেষ নাগাদ প্যারিসে এই সম্মেলন অনুষ্ঠিত হবার কথা রয়েছে।

শেখ হাসিনা বলেন, জলবায়ু পরিবর্তন বাংলাদেশের সকল উন্নয়ন কর্মসূচি ঝুঁকির মুখে ফেলে দিয়েছে। আমাদেরকে অবশ্যই গুরুত্বপূর্ণ সকল উন্নয়ন কর্মসূচি বাস্তবায়ন করতে হবে এবং মানুষের বর্তমান ও ভবিষ্যতের নিরাপত্তায় নতুন করে জলবায়ু চুক্তি করতে হবে।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা রোববার জাতিসংঘ সদর দফতরে ২০১৫ পরবর্তী উন্নয়ন এজেন্ডা গ্রহণের জন্য অনুষ্ঠিত জাতিসংঘ সম্মেলনে তার দেয়া ভাষণে এ কথা বলেন। খবর বাসসের

গাম্বিয়ার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত অধিবেশনে ব্রাজিল, ভেনেজুয়েলা, দক্ষিণ আফ্রিকা, শ্রীলংকা, মালয়েশিয়া, ইউরোপীয় ইউনিয়ন, রাশিয়া, কাতার, মালদ্বীপ, সিঙ্গাপুর ও সৌদি আরবের রাষ্ট্র ও সরকার প্রধানগণও বক্তব্য রাখেন।

শেখ হাসিনা বলেন, এসডিজি এজেন্ডা-২০৩০ গ্রহণ একটি বিশাল অর্জন। তিনি বলেন, বাংলাদেশ নতুন বৈশ্বিক এজেন্ডার সঙ্গে সামঞ্জস্য রেখে ৭ম পঞ্চমবার্ষিকী পরিকল্পনা প্রণয়ন করছে।

প্রধানমন্ত্রী ২০৩০ সালের জন্য একটি গণমুখী টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্য গ্রহণে অবদানকারী সংশ্লিষ্ট সকলকে ধন্যবাদ জানিয়ে বলেন, এ ধরনের একটি সার্বজনীন উন্নয়ন এজেন্ডা গ্রহণ খুবই জটিল কাজ। এজন্য আন্তর্জাতিক সহযোগিতা প্রয়োজন।

প্রধানমন্ত্রী মিলেনিয়াম ডেভেলপমেন্ট এজেন্ডা গ্রহণের সময়ে বিশ্ব নেতৃবৃন্দের সঙ্গে তার উপস্থিতির উল্লেখ করে বলেন, বাংলাদেশ প্রতিশ্রুতি বাস্তবায়নে গত ১৫ বছরে জনগণকে উদ্বুদ্ধ করেছে।

শেখ হাসিনা দারিদ্র্য বিমোচন, শিশু মৃত্যুহার হ্রাস ও সংক্রামক রোগসহ এমডিজি বাস্তবায়নে বাংলাদেশের সাফল্যের কথা উল্লেখ করে বলেন, এমডিজি বাস্তবায়নে বাংলাদেশকে একটি মধ্যম আয়ের দেশে রূপান্তর করতে পদক্ষেপ গ্রহণে সহায়তা করেছে।

শেখ হাসিনা বলেন, এমডিজি অর্জনে বাংলাদেশের সাফল্য লাভে মূল চালিকা শক্তি ছিল তার সরকারের রাজনৈতিক অঙ্গীকার। তিনি বলেন, বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ সম্পদ অর্জন করেছে এবং কাঙ্খিত লক্ষ্য অর্জনে সক্ষমতা অর্জন ও জনগণের ক্ষমতায়ন করেছে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশের কিছু সমাধান এবং অভিজ্ঞতা এখন বৈশ্বিক সমাধানের অংশ হয়েছে। এখন আমরা অবশ্যই এজেন্ডা-২০৩০ এবং আদ্দিস আবাবা এ্যাকশন এজেন্ডার পূর্ণ ও কার্যকর বাস্তবায়নে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ।

প্রধানমন্ত্রী আরো বলেন, এসডিজি বাস্তবায়নের জন্য বাংলাদেশ ও উন্নয়নশীল দেশগুলোর ক্ষেত্রে আর্থিক, প্রযুক্তি, সক্ষমতা গড়ে তোলা এবং ঋণ সহায়তা প্রয়োজন হবে। তিনি বলেন, আমরা অবশ্যই আন্তর্জাতিক বাণিজ্য ও আর্থিক শাসন নিশ্চিত করব।

শেখ হাসিনা অধিবেশনে এসডিজি গ্রহণের ক্ষেত্রে যেমন সহমর্মিতা দেখানো হয়েছে, তেমনি আসন্ন প্যারিস সম্মেলনে জলবায়ু চুক্তিকে অর্থবহ করতে সংশ্লিষ্ট মহল একই ধরনের আচরণ ও প্রতিশ্রুতি দেবে বলে আশা প্রকাশ করেছেন।