কঙ্গোর ‘টার্মিনেটরে’র ৩০ বছর কারাদণ্ড


103 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
কঙ্গোর ‘টার্মিনেটরে’র ৩০ বছর কারাদণ্ড
নভেম্বর ৮, ২০১৯ প্রবাস ভাবনা ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

অনলাইন ডেস্ক ::

যুদ্ধাপরাধ ও মানবতাবিরোধী অপরাধের দায়ে কঙ্গোর বিদ্রোহী নেতা বোসকো এনটাগান্ডাকে ৩০ বছরের কারাদণ্ড দিয়েছেন আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালত (আইসিসি)। বৃহস্পতিবার এ রায় ঘোষণা করেন আদালত।

এখন পর্যন্ত আইসিসির ঘোষিত রায়গুলোর মধ্যে এটিই সর্বোচ্চ শাস্তি। দ্য হেগে বিচারকরা যখন রায় ঘোষণা করছিলেন তখন আদালত কক্ষে উপস্থিত ছিলেন ‘টারমিনেটর’ নামে পরিচিত এই বিদ্রোহী নেতা। খবর এএফপি ও বিবিসির।

হত্যা, ধর্ষণ, বিরোধী পক্ষের নারীদের যৌনদাসী করে রাখা এবং শিশুদের যোদ্ধা হিসেবে ব্যবহারের ১৮টি সুনির্দিষ্ট অভিযোগের ভিত্তিতে বোসকোর বিরুদ্ধে রায় ঘোষণা করেন আইসিসি। গত জুলাইয়ে আইসিসির বিচারকরা বোসকোর দলের যোদ্ধাদের বিরুদ্ধে গণহত্যায় সম্পৃক্ততা খুঁজে পায়। এই শতাব্দীর শুরুর দিকে প্রাকৃতিক সম্পদে সমৃদ্ধ কঙ্গোর বিভিন্ন এলাকায় এমন ত্রাসের সৃষ্টি করেছিল ‘টারমিনেটরের’ দল।

রুয়ান্ডায় জন্ম নেওয়া ৪৬ বছর বয়সী বোসকোর বিরুদ্ধে আনা অভিযোগগুলোর বেশিরভাগই নিরীহ গ্রামবাসীদের গণহত্যার সঙ্গে সংশ্লিষ্ট।

বিচারক রবার্ট ফ্লেমর বলেন, বোসকোর নেতৃত্বাধীন দলটির গণহত্যার খতিয়ান অনেক বড়। তবে আদালত এসবের মধ্যে ‘সুনির্দিষ্ট নৃশংসতা’র ঘটনা বেছে নিয়েছেন। এ অভিযোগগুলো প্রমাণিত হওয়ায় বোসকোকে ৩০ বছরের কারাদণ্ড দেওয়া হয়।

আইসিসির মুখপাত্র জানিয়েছেন, আন্তর্জাতিক এই আদালতের দেওয়া রায়গুলোর মধ্যেই এটিই সর্বোচ্চ শাস্তির রায়। ২০০২ সালে এ আদালত প্রতিষ্ঠিত হয়। বোসকোর বিরুদ্ধে এ রায়কে স্বাগত জানিয়েছে হিউম্যান রাইটস ওয়াচ (এইচআরডব্লিউ)।

সংস্থাটির আফ্রিকা মহাদেশের উপপরিচালক ইদা সাওয়ের এক বিবৃতিতে বলেছেন, বোসকোর বিরুদ্ধে আইসিসির এই রায় একটি শক্তিশালী বার্তা। ক্ষমতাবান বলে পরিচিত অপরাধীরাও একদিন আইনের আওতায় আসবে। তার দলের সহিংসতার শিকার অনেকে এখন কিছুটা হলেও শান্তি পাবে।