কপিলমুনিতে পরিবেশ বিপর্যয়ে ব্যবসায়ীরা নাকাল


350 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
কপিলমুনিতে পরিবেশ বিপর্যয়ে ব্যবসায়ীরা নাকাল
নভেম্বর ২৩, ২০১৮ খুলনা বিভাগ ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

কপিলমুনি প্রতিনিধি :
মুরগির উচ্ছিষ্টের তীব্র দূর্গন্ধে দম বন্দ হওয়ার উপক্রম হয়েছে কপিলমুনি বাজারের চারটি চাদনীর কয়েকশত ব্যবসায়ীদের। পরিবেশ দূষণ ভয়াবহ পর্যায়ে চলে গেছে। দীর্ঘদিন এ অবস্থা বিরাজ করলেও সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের নেই কোনো মাথা ব্যাথা। কপিলমুনি বাজারের ওই চাঁদনীতে ৬-৭ টি চুলায় মুরগির ময়লা সাফ করার কাজে ব্যবহৃত হয় ।

ভুক্তভোগী অনেক ব্যবসায়ী বলেন, হাঁস মুরগির রক্ত মল আর পালকগুলো কোন নির্দিষ্ট জায়গায় না ফেলে চাদনীর লাগোয়া একটি অকেজো ড্রেনে ফেলা হলে সেখানে এই উচিছষ্ট পচে গলে তীব্র দূর্গন্ধ চারিদিকে ছড়িয়ে পড়ছে । ড্রেনটি নদীর সাথে সংযুক্ত না থাকায় বর্ষা মৌসুম এলেই বৃষ্টির পানিতে সেগুলো পচে উৎকট দূর্গন্ধে স্থানীয় ব্যবসায়ীরা নাকাল হচ্ছেন । মুখে মাস্ক কিন্বা গামছা দিয়েও দুর্গন্ধ থেকে রেহায় পাচ্ছে না। পোল্ট্রি চাঁদনীর পাশে অবস্থিত চারটি চাঁদনীর সাধারণ ব্যবসায়ী শুধু নয়; ক্রেতারাও এসব চাঁদনীর ভিতরে পন্য কিনতে আসছেন না।্্্্্্্্্্্্্ এ কারণে ব্যবসায়ীরাও আর্থিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছেন । পোল্ট্রি চাঁদনীর এ ভয়াবহ পরিবেশ বিপর্যয়ের ফলে অনেক ব্যাবসায়ী নিয়মিত দোকানে বসতে পারছেন না । অনেক ব্যাবসায়ীর শ্বাসকষ্টের সমস্যা সহ নানা চর্ম রোগে আক্রান্ত হচ্ছে।

চিকিৎসকদের মতে, এ বৈরি পরিবেশ অবস্থান করলে শ্বাসকষ্ট, হৃদরোগসহ নানা রোগে আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি থাকে। চাদনীর সবজি ব্যবসায়ী শেখ আনিসুর রহমান জানান, মাঝে মাঝে দুর্গন্ধের তীব্রতায় খাওয়ার প্রতি অরুচি আসে। ব্যবসায়ী নূর ইসলাম, আজগার ও আনোয়ারুল জানান তারা নানা শারিরীক সমস্যায় ভুগছেন।

বিজ্ঞজনরা বলেছেন, দ্রুত এ সমস্যার সমাধান না করলে বাজারের একটি বিরাট অংশের ব্যবসায়ীদের মারাত্বক স্বাস্থ্য অবনতির ঝুঁকির মধ্যে পড়বে। এমতাবস্থায় মুরগী চাঁদনীটি স্থানন্তর করে বাজারের এক পাশে স্থাপনের দাবী জানিয়েছেন সচেতন ব্যবসায়ীমহল।