কপোতাক্ষ নদীর পাড় এখন সবুজের সমারোহ


89 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
কপোতাক্ষ নদীর পাড় এখন সবুজের সমারোহ
জুলাই ১০, ২০১৯ খুলনা বিভাগ ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

পলাশ কর্মকার, কপিলমুনি ::

কপিলমুনির কপোতাক্ষ নদীর পাড় এখন সবুজের সমারোহ। সবুজ শ্যামলীর নৈসর্গিক সৌন্দর্যের হাতছানি কপোতাক্ষ নদের কোলজুড়ে। এক অপূর্ব শোভায় শোভিত হয়েছে কপিলমুনি পাড়ের কপোতাক্ষ নদের প্রায় তিন কিলোমিটার নদীর পাড়। ক’দিন আগেও যেখানে ছিল ময়লা আবর্জনার ¯ুÍপ আর পাড়ের বসতীদের দীর্ঘ সারির খোলা পায়খানা ঘর আর গবাদি পশুর চারন ভূমি, সেখানে এখন থরে থরে দাড়িয়ে আছে সবুজ বৃক্ষরাজী।
সরেজমিনে দেখা যায়, সকাল সন্ধ্যায় সেখানে শুধু পাখির কলোরবে মুখরিত নয় প্রকৃত প্রেমিরাও ছুটে যাচ্ছে সবুজের মোহে। কপোতাক্ষ খননের পর পরই উপজেলা বন বিভাগ কপিলমুনির পারে দীর্ঘ বার কিলোমিটার কপোতাক্ষ পাড় জুড়ে বনায়ন করার পরিকল্পনা গ্রহন করে। সে অনুযায়ী গত বছরের জুন মাসে কাশিমনগর থেকে গোলাবাটি পর্যন্ত প্রথম ধাপে প্রায় তিন কিলোমিটার কপোতাক্ষীর পাড় বরাবর বনজ বৃক্ষ রোপন করেন। এই তিন কিলোমিটার নদী পাড়ে বার হাজার বিভিন্ন বনজ বৃক্ষ চারা রোপন করেছে বনবিভাগ। শুধুমাত্র বাবলা গাছ বাদে রোপন করা এই বার হাজার চারার মধ্যে রয়েছে আকাশমনি, রেন্টিসিরিষ, বকাইল, নিমজিরি, অর্জুন, কদবেল, নিম ও তেতুল।
গতবছর জুন মাসে এসব বৃক্ষ চারা লাগানো হলেও মাত্র এক বছরের ব্যবধানে গাছগুলো দ্রুত বেড়ে উঠেছে। গাছগুলো প্রচন্ড বর্ধনশীলতার জন্য অধিকাংশ গাছ ১৫ থেকে ২০ ফুট পর্যন্ত লম্বা হয়েছে। পর্যাপ্ত শাখা প্রশাখায় তর তর করে বেড়ে উঠছে গাছগুলো। গাছগুলো এত দ্রুত বর্ধনের জন্য সবাই অবাক হচ্ছে।
এ প্রসংগে উপজেলা সফল বন কর্মকর্তা প্রেমানন্দ রায় জানান, কপিলমুনি অংশে কপোতাক্ষ পাড়ের ভীষন উর্বর পলি মাটিতে আমরা সুস্থ্য ও সবল চারা নির্বাচন করে রোপন করেছি বলে গাছগুলো দ্রুত বাড়ছে। তবে অনেক জায়গায় বেড়া বা জাল না থাকায় গরু ছাগল অবাদে যেয়ে গাছের ব্যাপক ক্ষতি করছে এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি জানান, আমরা গাছ রক্ষনাবেক্ষনের জন্য বেড়া বা জাল দিয়েছিলাম। অনেক জায়গায় এগুলো নষ্ট হয়ে গেছে খুব তাড়াতাড়ি সেগুলো আবার দেয়া হবে। ইতোমধ্যে তিন জন শ্রমিককে রক্ষনাবেক্ষনের জন্য নিযুক্ত করা হয়েছে বলেও তিনি জানান। তিনি আরো জানান, এই বনায়ন প্রকল্পটি দীর্ঘ মেয়াদী হলেও ১৫ বছর পর পরিনত বৃক্ষ ও শাখা প্রশাখা কেটে পূনরায় সেখানে গাছ লাগানো হবে।

#