কপিলমুনির লোকনাথ মন্দির হয়ে উঠেছে ধর্ম প্রান হিন্দুদের সাধনাস্থল


1172 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
কপিলমুনির লোকনাথ মন্দির হয়ে উঠেছে ধর্ম প্রান  হিন্দুদের সাধনাস্থল
ডিসেম্বর ১৩, ২০১৫ খুলনা বিভাগ ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

পলাশ কর্মকার কপিলমুনি :
খুলনার কপিলমুনি শ্রী শ্রী লোকনাথ ব্রক্ষ্রচারী শান্তি নিকেতনটি বর্তমানে এতদাঞ্চলের সনাতন ধর্মাবলম্বীদের সাধনাস্থলে রুপ নিয়েছে। বছরের সকল সময়ই পূজাপার্বনে দুরদুরান্ত থেকে আগত অসংখ্য ধর্মপ্রান সনাতনীদের সরব উপস্থিতি লক্ষ্য করা যায়।
তথ্যানুসন্ধানে জানাযায়, ২০০০সালে খলিলনগর পুলিশ ক্যাম্পের ইনচার্জ বিধান চন্দ্র রায় ও ঘোষনগর গ্রামের স্বর্গীয় অঘোর চন্দ্র পালের ছেলে নকুল চন্দ্র পালের রুপরেখা ও কপিলমুনি-খলিলনগরের সর্ব সাধারণের সহযোগীতায়  প্রতিষ্ঠা পায় শ্রী শ্রী লোকনাথ ব্রক্ষ্রচারী শান্তিনিকেতন। যা সেই থেকে এলাকার সনাতনীদের মাঝে ধর্মের আলো জ্বালিয়ে রেখেছে। বর্তমানে মন্দিরটি পরিচালনার জন্য ৩৫ সদস্য বিশিষ্ট কার্যকারী পরিষদ রয়েছে। কমিটির কর্তারা অক্লান্ত পরিশ্রমের মধ্যদিয়ে একটু একটু করে মন্দিরটির অবকাঠামোগত প্রসার ঘটিয়ে চলেছেন। ২০০৭ সালে ৫০লাখ টাকা ব্যয়ে ৩তলা মন্দিরের ভবন তৈরী করা হয়। ভবনটি শুভ উদ্বোধন করেন আশাশুনি সেবাশ্রমের অধ্যক্ষ শ্রীমত স্বামী সোমা নন্দজী মহারাজ। ৩ তলা ভবনের ১ম তলায় লোকনাথ মূর্তি, ২য় তলায় শিব-কালি মূর্তি ও ৩য় তলায় রাধাকৃষ্ণ মূর্তি স্থাপন করা হয়।
শুধু ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান নয়, মন্দির প্রাঙ্গনে ২০১০ সালে ১০ লাখ টাকা ব্যয়ে একটি বৃদ্ধাশ্রম প্রতিষ্ঠা করা হয় যা এখন উদ্বোধনের অপেক্ষায় রয়েছে। গত দেড় বছর পূর্বে সমাজ সেবক সুভাষ চন্দ্র পালের অর্থায়নে প্রতিষ্ঠা পায় দাতব্য চিকিৎসালয়, প্রতি শুক্রবার এখানে দু’ জন হোমিও প্যাথিক ডাক্তারের মাধ্যমে সম্পূর্ণ ফ্রি চিকিৎসা দেওয়া হয়। প্রতিবছর ৫ দিন ব্যাপী নামযজ্ঞ সহ ধর্মীয় উৎসব পালন করা হয়। মন্দির প্রাঙ্গনে রয়েছে একটি পুকুর, ফুল বাগান, ১ জন সেবাইত, সীমানা প্রাচীর, দুটি গেট, সুভাষ চন্দ্র পালের অর্থায়নে প্রায় ১৫ লাখ টাকা ব্যয়ে প্রধান গেট নির্মাণের কাজ চলছে। নির্মানাধীন গেটটি খুবই করুকার্যপূর্ণ, সু-উচ্চ ও দর্শনীয় হবে বলে জানান মন্দিরের কর্মকর্তা এ্যাডঃ জয়ান্ত কুমার পাল। মন্দিরটির প্রতিষ্ঠার পর থেকে কোন সরকারী অনুদান ছাড়াই নির্মাণে  প্রায় দেড় কোটি টাকা ব্যয় করা হয়েছে বলে জানাযায়।