কপিলমুনি ইউপিতে লড়াই হবে নৌকা-ধানের শীষের


391 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
কপিলমুনি ইউপিতে লড়াই হবে নৌকা-ধানের শীষের
মার্চ ১৮, ২০১৬ খুলনা বিভাগ ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

পলাশ কর্মকার, কপিলমুনি :
কপিলমুনি ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে নৌকা আর ধানের শীষের লড়াই হবে। দিনরাত গোটা ইউনিয়নে এখন শুধুই ভোটের প্রচার প্রচারণা চলছে। প্রার্থীরা তাদের কাঙ্খিত স্বপ্ন বাস্তবায়নে যেন উঠে পড়ে লেগেছেন।
জানাযায়, পাইকগাছা উপজেলার ২নং কপিলমুনি ইউনিয়ন যেটি উপজেলার অন্যতম প্রধান বাণিজ্য নগরী হিসেবে সু-পরিচিত। এটি একটি ঐতিহ্যবাহী পূন্যভুমি। যার অনেক খ্যাতি রয়েছে দেশে ও দেশের বাইরে। এবার ২৬,২৪৮ জন ভোটার তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করবেন। বর্তমানে ইউনিয়নের সর্বত্রই দেখা যাচ্ছে উৎসবমুখর পরিবেশ। ইউনিয়নটি যেন পোস্টার, ব্যানার আর ফেস্টুনে ছেয়ে আছে। সব দিকেই এখন যেন ভোটের বানী শোনা যাচ্ছে। নির্বাচনে প্রচার গতিশীল করতে প্রায় সকল চেয়ারম্যান ও মেম্বর প্রার্থীরা মাইকিং করছেন। মাইকে নানান ছন্দের বুলি দিয়ে সদর থেকে শুরু করে মহল্লার শরু গলি পর্যন্ত ভোটারদের মনের ভেতরে ঢুকিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করছেন তাঁদের প্রতীক। চায়ের দোকান থেকে শুরু করে ব্যাংক, বীমা, পোষ্ট অফিস, খেয়া নৌকা, পরিবহন, হাসপাতাল, রাজনৈতিক অফিস এমনকি গ্রামের পুকুর ঘাটে পর্যন্ত এখন শুধুই ভোটের গল্প চলছে। কার প্রচারণা কেমন হচ্ছে, কার পক্ষে করা ভোট চাইছেন, বিগত দিন গুলোতে কে কেমন কাজ করেছেন, কে পাশে ছিলেন এমন সব খুটিনাটি বিষয় যেন এখন ভোটারদের কাছে প্রধান অলোচ্য বিষয় হয়ে দাঁড়িয়েছে। তবে এবার চেয়ারম্যান পদে দলীয় প্রতীক দেওয়ায় ভোটের হিসাব নিকাশটা একটু আলাদা বলে মত প্রকাশ করেছেন একাধিক ভোটার। কারো কারো কাছে দলীয় প্রার্থীই প্রাধান্য পাচ্ছে, আবার কারো কাছে ব্যক্তি ইমেজটাই বড়।

kawsar kapilmuni  15-2-16
কপিলমুনি ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে যে ৩জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন তারা হলেন বর্তমান চেয়ারম্যান বিএনপি নেতা মোঃ শাহাদাৎ হোসেন ডাবলু (ধানের শীষ), আ’লীগ নেতা সাবেক ইউপি মেম্বর মোঃ কওছার আলী জোয়ার্দার (নৌকা) ও সতন্ত্র প্রার্থী শারমিন অরা (আনারস)। খুলনা জেলা বিএনপি নেতা মোঃ শাহাদাৎ হোসেন ডাবলু ২বার চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন। তিনি গতবার ১০,৭৭৪ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হন। উপজেলা আ’লীগ নেতা মোঃ কওছার আলী জোয়ার্দার ৩বার মেম্বর নির্বাচিত হয়েছেন। তিনি গতবার ৪,২৪৯ ভোট পেয়েছিলেন। শারমিন আরা চেয়ারম্যান ডাবলু’র স্ত্রী, তিনি শিক্ষিকা। ৩জন প্রার্থী থাকলেও ইউনিয়নটিতে মুলত ভোটযুদ্ধ হবে  ডাবলু আর কওছারের মধ্যে। উল্লেখিত এই ৩ চেয়ারম্যান প্রার্থীর মধ্যে ডাবলু ও কওছার ব্যাপক ভাবে গণ-সংযোগ চালিয়ে যাচ্ছেন। প্রতিনিয়ত তাঁরা ছুটে চলেছেন সাধারণ ভোটারদের দ্বারে দ্বারে। ভোটারদের কাছে ভোট প্রার্থনা করে নানান প্রতিশ্রুতি দিচ্ছেন জয় লাভের আশায়। অন্যদিকে শারমিন আরা’র তেমন কোন প্রচার প্রচারণা চোখে পড়ছে না। ইউনিয়নটিতে বিচ্ছিন্নভাবে কর্মী সমর্থকদের হুমকি ধামকী দেওয়া হচ্ছে এমন খবরও পত্রিকায় প্রকাশিত হয়েছে। এসব দিক থেকে বিচার বিবেচনায় ইউনিয়নটির কয়েকটি ভোট কেন্দ্র বেশ ঝুঁকি পূর্ণ বলে মনে করছেন বিশ্লেষকরা।