কমরেড নজরুলের ওপর হামলার ঘটনায় সাতক্ষীরা ওয়ার্কার্স পার্টির মিছিল ও সমাবেশ


318 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
কমরেড নজরুলের ওপর হামলার ঘটনায় সাতক্ষীরা ওয়ার্কার্স পার্টির মিছিল ও সমাবেশ
অক্টোবর ২৯, ২০১৬ ফটো গ্যালারি সাতক্ষীরা সদর
Print Friendly, PDF & Email

আমিনা বিলকিস ময়না :
বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টির নেতৃবৃন্দের ওপর হামলার ঘটনায় সাতক্ষীরায় বিক্ষোভ মিছিল ও প্রতিবাদ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে।
ওয়ার্কার্স পলিট ব্যুরোর সদস্য ও দক্ষিণ পশ্চিমাঞ্চলের জলাবদ্ধতা বিরোধী আন্দোলনের নেতা কমরেড ইকবাল কবির জাহিদ এবং পার্টির কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য কমরেড নজরুল ইসলামের ওপর হামলার ঘটনায় সাতক্ষীরায় এই বিক্ষোভ মিছিল ও প্রতিবাদ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। শনিবার বিকাল ৫টায় শহরের মিনিমার্কেট চত্ত্বর থেকে শুরু হয়ে বিক্ষোভ মিছিল সাতক্ষীরার গুরুত্বপূর্ণ সড়ক প্রদক্ষিণ করে। শেষে শহিদ আলাউদ্দিন চত্বরে অনুষ্ঠিত হয় প্রতিবাদ সমাবেশ। সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন, পার্টির জেলা কমিটির সাধারণ সম্পাদক উপাধ্যক্ষ মহিবুল্যাহ মোড়ল। সমাবেশে বক্তব্য রাখেন, জেলা কমিটির সম্পাদক মন্ডলীর সদস্য এড. ফাহিমুল হক কিসলু, জেলা কমিটির সদস্য কমরেড স্বপন কুমার শীল ও সদর উপজেলা সম্পাদক মন্ডলীর সদস্য সাংবাদিক শরীফুল্লাহ কায়সার সুমন। উপস্থিত ছিলেন পার্টির জেলা কমিটির সম্পাদক মন্ডলীর সদস্য অধ্যাপক সাবীর হোসেন, সদর উপজেলা কমিটির নেতা কমরেড সাদিকুর রহমান, অধ্যক্ষ শিবপদ গাইন, কমরেড আমিনা বিলকিস ময়না, কৃষক সমিতির নেতা হিরন্ময় মন্ডল ছাত্রমৈত্রীর জেলা কমিটির সভাপতি প্রণয় সরকার, ছাত্রমৈত্রীর জেলা কমিটির সাধারণ সম্পাদক অদিতি আদৃতা সৃষ্টি প্রমুখ।
সমাবেশে নেতৃবৃন্দ বলেন, যশোরের ভবদহে জলাবদ্ধতা প্রতিকারের জন্য পানি উন্নয়ন বোর্ডের কার্যালয় ঘেরাও কমসূচিতে যাওয়ার সময় পুলিশ বিনা উস্কানিতে আক্রমন করে গণ মানুষের নেতা কমরেড ইকবাল কবির জাহিদের ওপর। সম্প্রতি নড়াইলে শাষকগোষ্ঠির জুয়া লটারি বন্ধ করতে আন্দোলন চালিয়ে সফল হন পার্টির জেলা কমিটির সাধারণ সম্পাদক কমরেড নজরুল ইসলাম। জুয়াড়ী ও গড ফাদাররা সম্প্রতি তার উপর চালিয়েছে নৃশংস হামলা। তিনি বর্তমানে খুলনার ২৫০ শয্যা হাসপাতালে মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ছেন। যা ১৪ দলের জোট রাজনীতির জন্য অসহায়ক। এ অবস্থায় বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টির সরকারকে অবিলম্বে দোষীদের বিরুদ্ধে দৃষ্টান্ত মূলক ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য জোর দাবি জানায়। নইলে জোটের শরীক হিসাবে বিষয়টি সরকারের জন্য অত্যন্ত বিব্রতকর হবে। ওয়ার্কার্স পার্টি জোট করেছে  বিএনপির জামাতের দু:শাসন, সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে। বর্তমান অবস্থায় ও যদি শাসকগোষ্ঠীর প্ররোচনায় পুলিশ প্রশাসন গণমানুষের আন্দোলনে হামলা করে, নির্যাতন চালায়, তার বিরুদ্ধে ওয়ার্কার্স পার্টি বিরুদ্ধাচারণ করবে। যদি শাসকরা ক্ষুদ্র স্বার্থের দিকে তাকিয়ে জুয়া লটারীকে সমর্থনকরে তার বিরুদ্ধে রুখে দাড়াবে। অবিলম্বে এই পরিস্থিতির আগে কমরেড জাহিদ ও নজরুলের ওপর হামলাকারীদের বিরুদ্ধে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানান ওয়ার্কার্স পার্টির নেতৃবৃন্দ।