করোনা : এক মাসের মধ্যে ব্রাজিলের দ্বিতীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রীর পদত্যাগ


94 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
করোনা : এক মাসের মধ্যে ব্রাজিলের দ্বিতীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রীর পদত্যাগ
মে ১৬, ২০২০ জাতীয় ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

অনলাইন ডেস্ক ::

দায়িত্ব নেওয়ার এক মাসেরও কম সময়ের ব্যবধানে পদত্যাগ করেছেন ব্রাজিলের স্বাস্থ্যমন্ত্রী নেলসন তাইশ। করোনাভাইরাস মোকাবিলায় সরকারের পদক্ষেপের সঙ্গে একমত না হতে পেরে স্থানীয় সময় শুক্রবার এমন সিদ্ধান্ত নেন তিনি। গত ১৬ এপ্রিল উগ্র-ডানপন্থি প্রেসিডেন্ট জাইর বোলসোনারোর সঙ্গে মতবিরোধের জেরে বরখাস্ত হয়েছিলেন দেশটির আরেক স্বাস্থ্যমন্ত্রী লুইস হেনরিক মানদেতা। এ নিয়ে এক মাসের মধ্যে দেশটির দু’জন স্বাস্থ্যমন্ত্রী সরে দাঁড়ালেন।

বিবিসির এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, করোনাভাইরাসের ব্যাপক সংক্রমণের মধ্যেও ব্যায়ামাগার ও বিউটি পার্লার খুলে দিতে প্রেসিডেন্ট বোলসোনারো যে ডিক্রি জারি করেছেন তার সঙ্গে দ্বিমত করেছিলেন নেলসন। এর জেরেই তিনি পদত্যাগ করেন। তবে সংবাদ সম্মেলনে পদত্যাগের কারণ জানাননি তিনি। কাকে নতুন স্বাস্থ্যমন্ত্রী হিসেবে নিয়োগ দেবেন বোলসোনারো তা এখনও নিশ্চিত নয়।

ব্রাজিলের প্রেসিডেন্ট বোলসোনারো বরাবরই করোনাভাইরাসের সংক্রমণ রোধে লকডাউনের মতো কঠোর পদক্ষেপের বিরোধিতা করে আসছেন। তিনি এ ভাইরাসটিকে ‘সাধারণ ফ্লু’ বলেই মনে করেন।

করোনাভাইরাসের মূল কেন্দ্র (হটস্পট) এখন হয়ে উঠছে ব্রাজিল। আক্রান্তের সংখ্যায় জার্মানি ও ফ্রান্সকে ছাড়িয়ে গেছে দেশটি। সবমিলিয়ে ব্রাাজিলে দুই লাখ ১৮ হাজার মানুষ করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। গত ২৪ ঘণ্টায় আক্রান্ত হয়েছেন রেকর্ড ১৫ হাজার ৩০৫ জন। এই সময়ে মৃত্যু হয়েছে ৮২৪ জনের। মোট মৃতের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১৪ হাজার ৮১৭ জনে।

সংবাদ সম্মেলনে পদত্যাগের কারণ উল্লেখ না করলেও স্বাস্থ্যমন্ত্রী হিসেবে কাজ করার সুযোগ দেওয়ায় প্রেসিডেন্টকে ধন্যবাদ জানান তাইশ। স্বাস্থ্যকর্মীরা যেভাবে ভাইরাসের মোকাবিলা করছেন তার প্রশংসাও করেন তিনি।

তবে মাহামারি মোকাবিলায় বোলসোনারোর সরকারের অনেক পদক্ষেপের সঙ্গেই মতবিরোধ তৈরি হয়েছিল তাইশের। তিনি করোনাভাইরাসের চিকিৎসায় ব্যাপকহারে ক্লোরোকুইন ওষুধ ব্যবহারে প্রেসিডেন্টের সিদ্ধান্তের পক্ষে ছিলেন না।

অর্থনৈতিক কার্যক্রম শুরু করতে প্রেসিডেন্ট বোলসোনারো যে পরিকল্পনা করছেন তার সঙ্গেও একমত ছিলেন না তাইশ। তিনি গত সপ্তাহে বলেছিলেন, এ নিয়ে প্রেসিডেন্ট তার সঙ্গে কোনো আলাপই করেননি।

তবে করোনাভাইরাস চিকিৎসায় ম্যালেরিয়ার ওষুধ ক্লোরোকুইন ব্যবহার নিয়েই প্রেসিডেন্টের সঙ্গে দ্বন্দ্ব চরমে ওঠে তাইশের। তার পূর্বসুরী স্বাস্থ্যমন্ত্রী মানদেতার সঙ্গেও এ বিষয়টি নিয়ে মতবিরোধে জড়িয়েছিলেন প্রেসিডেন্ট বোলসোনারো।