কলারোয়ার কেরালকাতায় আ’লীগের দু’গ্রুপের সংঘর্ষে ১৫ জন আহত ১৫, আটক ৫


979 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
কলারোয়ার কেরালকাতায় আ’লীগের দু’গ্রুপের সংঘর্ষে ১৫ জন আহত ১৫, আটক  ৫
জুলাই ৩০, ২০১৬ কলারোয়া ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

কে এম আনিছুর রহমান,কলারোয়া :
সাতক্ষীরার কলারোয়া উপজেলার ৮নং কেরালকাতা ইউনিয়নে স্থগিতকৃত নির্বাচনকে কেন্দ্র করে স্থানীয় আ’লীগের দুই গ্রুপের ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া ও সংঘর্ষে উভয় গ্রুপের ১৫ জন আহত হয়েছে। ঘটনাটি ঘটেছে শুক্রবার রাত ৯ টার দিকে উপজেলার ওই ইউনিয়নের বহুড়া গ্রামে। আহতদের মধ্যে আশংকাজনক অবস্থায় ৬ জনকে কলারোয়া হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।
হাসপাতালে ভর্তি হওয়া আহতরা হলেন- ওই ইউনিয়নের নাকিলা গ্রামের  সুলতান আলীর ছেলে নজরুল ইসলাম (৫০), দরবাসা গ্রামের মন্টু সরদারের ছেলে সাহাজুল ইসলাম (৩২), দক্ষিন বহুড়া গ্রামের আকরম আলীর ছেলে আনিছুর রহমান (৩৫), উত্তর বহুড়া গ্রামের মতলেব আলীর ছেলে জিয়ারুর রহমান (৪০),দক্ষিন বহুড়া গ্রামের নরুল ইসলাম(৩৫), বহুড়া গ্রামের আব্দুল খালেকের ছেলে আতাউর রহমান(৩২)।
এ ঘটনায় পুলিশ উভয় গ্রুপের ৫ জনকে আটক করেছে। আটককৃতরা হলেন- ওই ইউনিয়নের বহুড়া গ্রামের ফকির চাঁদের ছেলে মুক্তার আলী (৩৪), আমিনুদ্দীনের ছেলে আজিবর রহমান (২৯), এয়াকুব্বরের দুই ছেলে শাহাজাহান আলী (৩৪)ও রবিউল ইসলাম (৩০) এবং বলিয়ানপুর গ্রামের মফেজ আলী সরদারের ছেলে ইয়াসিন আলী (৩৩)।

শনিবার সকালে জরেজমিনে গেলে প্রত্যক্ষদর্শী ও এলাকাবাসিরা জানায়, গত ২২ মার্চ কলারোয়া উপজেলার ৮নং কেরালকাতা ইউনিয়নের বলিয়ানপুর ওয়ার্ডে স্থগিত হওয়া নির্বাচন আগামী আগস্ট মাসের যেকোন দিন অনুষ্ঠিত হতে পারে। এ উপলক্ষ্যে গত শুক্রবার সন্ধ্যার পর নৌকা প্রতীকের চেয়ারম্যান প্রার্থী স.ম মোরশেদ আলী মোটরসাইকেল শোভাযাত্রা শেষে দক্ষিন বহুড়া গ্রামে নির্বাচনী অফিসের সামনে একটি জনসভার আয়োজন করেন। ওই জনভায় প্রতিদ্বন্দ্বি স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী আনারস প্রতীকের আ’লীগ নেতা আব্দুল হামিদসহ তার সমর্থকদের বিরুদ্ধে হুমকী-দামকি দিয়ে বক্তব্য দেওয়ার ঘটনাকে কেন্দ্র করে উভয় গ্রুপের মধ্যে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া ও সংঘর্ষের সৃষ্টি হয়। এতে উভয় পক্ষের ১৫ জন সর্মথক ও নেতাকর্মী আহত হয়েছে । পরে পুলিশ খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রন করে এবং উভয় গ্রুপের ৫ জনকে আটক করেন।

নৌকা প্রতীকের চেয়ারম্যান প্রার্থী  বর্তমান চেয়ারম্যান স.ম. মোরশেদ আলী জানান, পূর্ব নির্ধারিত দিন গত শুক্রবার মাগরিবের নামাজের পর নির্বাচনী শো-ডাউন শেষে দক্ষিন বহুড়া গ্রামে তার নির্বাচনী অফিসের সামনে এক নির্বাচণী পথসভা করেন। পথসভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা আ’লীগের সাধারন সম্পাদক সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান আমিনুল ইসলাম লাল্টু। এশার নামাজের আগে শান্তিপূর্ণভাবে পথসভা শেষে তিনি এবং প্রধান অতিথি প্রায় এক কিলোমিটার চলে আসেন। প্রথিমধ্যে মোবাইল ফোনে জানতে পারেন বলিয়ানপুর গ্রামের মুক্তিযোদ্ধা অজিয়ার রহমান নামে তার এক সমর্থককে প্রতিদ্বদ্বি প্রার্থী আব্দুল হামিদের সমর্থক ফারুকের নেতৃত্বে শামিম,মনি,পলাশসহ ৭/৮ জন মারপিট করে আহত করে। পরে তারা দুই জনই ঘটনাস্থলে পৌছে তাকে আহত অজিয়ারকে উদ্ধার করেন এবং থানা পুলিশে খবর দেন। এরই মধ্যে উভয় গ্রুপের মধ্যে উত্তেজনা সৃষ্টি হলে ফারুকের বাড়ির ছাদের উপর থেকে ইট-পাটকেল মেরে তার ৬ সর্মথককে আহত করে।

আনারস প্রতীকের স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী আব্দুল হামিদ জানান, গত শুক্রবার রাতে নৌকা প্রতীকের চেয়ারম্যান প্রার্থী স.ম মোরশেদ আলী অবৈধভাবে প্রায় ২৫০ থেকে ২৬০ টি মোটরসাইকেলে শো-ডাউন শেষে বহুড়া গ্রামে একটি নির্বাচণী জনসভার আয়োজন করে। জনসভা চলাকালীন নৌকা প্রর্তীকের চেয়ারম্যান প্রার্থীর ভাই আব্দুল জলিলের নেতৃত্বে ১২-১৪ জন  সমর্থক তার অন্যতম সমর্থক বহুড়া গ্রামের আব্দুল খালেকের ছেলে ফারুকের বাড়িতে অবৈধভাবে প্রবেশ করে ফারুকে উদ্দেশ্যে করে বলে নৌকার বাইরে ভোট দিলে হাত-পা ভেঙ্গে দেওয়া হবে এবং জীবন নাশের হুমকী-ধামকী দেয়। এ সময় ফারুক সিংগা বাজার থেকে বাড়ি এসে প্রতিবাদ করলে তার বাড়িতে হামলা চালিয়ে ভাংচুর করা হলে উভয় গ্রুপের মধ্যে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া ও সংঘর্ষের সৃষ্টি হয়। এ সময় তার গ্রুপের ৯ জন আহত হয় বলে তিনি জানান।

কলারোয়া থানার অফিসার ইনচার্জ শেখ আবু সালেহ মাসুদ করিম জানান, খবর পেয়েই তিনিসহ তার থানার কর্মকর্তারা দ্রুত ঘটনাস্থলে পৌছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনতে সক্ষম হন। এ ঘটনায় উভয় গ্রুপের ৫ জনকে আটক করা হয়েছে। তবে এ রির্পোট লেখা পর্যন্ত আ’লীগের দু’গ্রুপের কোন পক্ষ থানায় লিখিত অবিযোগ দায়ের করেননি বলে াতান জানান।