কলারোয়ার কেরালকাতায় বিদ্রোহী প্রার্থীর সমর্থকদের ওপর হামলা-ভাংচুর : মহিলার মৃত্যু


827 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
কলারোয়ার কেরালকাতায় বিদ্রোহী প্রার্থীর সমর্থকদের ওপর হামলা-ভাংচুর : মহিলার মৃত্যু
অক্টোবর ২৯, ২০১৬ কলারোয়া ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

বিশেষ প্রতিনিধি :
সাতক্ষীরার কলারোয়া উপজেলার কেরালকাতা ইউনিয়নের বালিয়াপুর গ্রামে প্রতিপক্ষ ভোটারদের ওপর আওয়ামী লীগের প্রার্থী স ম মোর্শেদ আলী ও তার সমর্থকদের হামলায় কমপক্ষে ৮ জন আহত হয়েছেন। ঘরবাড়ী ভাংচুর হয়েছে কমপক্ষে ৫টি।  হামলার ঘটনায় আতঙ্কিত হয়ে ফাতেমা খাতুন নামের এক বৃদ্ধা হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন। শুক্রবার গভীর রাতে এঘটনা ঘটে।

স্থানীয়রা জানান,বিগত ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে গোলযোগ হওয়ায় কলারোয়া উপজেলার কেরালকাতা ইউনিয়নের বলিয়ানপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ভোটগ্রহণ স্থগিত করা হয়। আগামী ৩১ অক্টোবর ওই কেন্দ্রে পুনরায় ভোট গ্রহনের দিন নির্ধারন করে নির্বাচন কমিশন। এনিয়ে ব্যাপক প্রচারনা শুরু করে নৌকা প্রতীকের স ম মোর্শেদ আলী ও আনারস প্রতীকের আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী হাজী আব্দুল হামিদ। বিগত নির্বাচনে আব্দুল হামিদ ৮৩ ভোটে এগিয়ে আছেন। বলিয়ানপুর প্রাথমিক বিদ্যালয়ে মোট ভোটার সংখ্যা ২১০৫ জন।

আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী আব্দুল হামিদ জানান, শুক্রবার রাতে স ম মোর্শেদ আলী তার ৩০/৪০ জন সমর্থকদের নিয়ে আব্দুল হামিদের সমর্থক বলিয়ানপুর গ্রামের ডা: আবু সুফিয়ানসহ তার ভাইদের ওপর হামলা চালায়। এতে আনোয়ারুল,জাহানারা,বুলবুল,ফজিলা খাতুনসহ কমপক্ষে ৮জন আহত হয়। মোর্শেদের সমর্থকদের হামলায় কমপক্ষে ৫টি ঘরবাড়ী ভাংচুর হয়। হামলার সময় আবু সুফিয়ানের বৃদ্ধা মা ফাতেমা খাতুন এগিয়ে এলে সন্ত্রাসীরা তাকেও ধাক্কা মেরে ফেলে দেয়। পরে আতঙ্কিত ফাতেমা খাতুন হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে  ঘটনাস্থলেই মারা যান। এঘটনায় শনিবার দুপুরে আবু সুফিয়ান কলারোয়া থানায় একটি অভিযোগ দাখিল করেছেন।

এদিকে, আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থী স ম মরর্শেদ আলী জানান, আমার লোকজন হামলার ঘটনায় জড়িত নন। তারা নিজেরা নিজেদের ওপর হামলার নাটক সাজিয়ে আমার ও আমার সমর্থকদের ওপর দোষ দিচ্ছে। আমার কোন লোক কারও উপর হামলা করেনি।

কলারোয়া থানার ওসি ইমদাদ শেখ জানান,শুক্রবার রাতে দু’চেয়ারম্যাান প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষ হয়েছে। এতে কয়েকজন মৃদু আহত হয়েছে। তবে বৃদ্ধা ফাতিমা খাতুন হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন।