কলারোয়ায় স্ত্রীকে পিটিয়ে মেরুদন্ডের হাড় ভেঙ্গে দিয়েছে পাষন্ড স্বামী


447 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
কলারোয়ায় স্ত্রীকে পিটিয়ে মেরুদন্ডের হাড় ভেঙ্গে দিয়েছে পাষন্ড স্বামী
অক্টোবর ২৫, ২০১৫ কলারোয়া ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

কে এম আনিছুর রহমান, কলারোয়া প্রতিনিধি :
সাতক্ষীরার কলারোয়ায় যৌতুকের দাবিতে রেহেনা খাতুন নামে এক গৃহবধুর মেরুদন্ডের হাড় ভেঙ্গে দিয়েছে পাষন্ড স্বামী। ঘটনাটি ঘটেছে উপজেলার রামভদ্রপুর গ্রামে। এ ঘটনায় নির্যাতিত নারীর ভাই বাদী হয়ে কলারোয়া থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেছেন।

অভিযোগের বিবরণে জানা যায়,গত ২২ বছর পূর্বে কলারোয়া পৌর সদরের গোপিনাথপুর গ্রামের মৃত জবেদ আলী সরদারের মেয়ে রেহেনা খাতুনের (৩৮) সাথে ইসলামী শরিয়াত মোতাবেক উপজেলার রামভদ্রপুর গ্রামের নজুর আলীর ছেলে নরিম মন্ডলের (৪২) বিয়ে হয়। বিয়ের পর থেকে বিভিন্ন সময় স্বামী নরিম স্ত্রী রেহেনা খাতুনকে বাবার বাড়ি থেকে যৌতুক হিসাবে নগদ টাকা আনার জন্য চাপ সৃষ্টি করে। নিরুপায় হয়ে স্ত্রী তার ভাইদের নিকট থেকে কয়েক দফায় যৌতুকের টাকাও এনে দেয় স্বামীকে। দাম্পত্য সম্পর্কের এ টানা পোড়নের মধ্য দিয়ে  ইতোমধ্যে তাদের মধ্যে দুই ছেলে ও এক মেয়ের জন্ম হয়।
সম্প্রতি আবারও পুরনো কৌশলে স্ত্রীকে তার বাবার বাড়ি থেকে যৌতুক আনার জন্য চাপ সৃষ্টি করলে  অপারগতা প্রকাশ করলে মারপিট করতে থাকে। এনিয়ে এলাকায় একাধিক শালিশ বৈঠকও হয়। শালিশ বৈঠকের পর আবারও স্ত্রী বাবার বাি থেকে যৌতুক বাবদ টাকা এনে স্বামীকে দেয়।
এরপর  কয়েক বছর সংসার জীবন ভালোভাবে চলার এক পর্যায়ে গত ১৮ অক্টোবর ফের স্বামী নরিম মন্ডল তার স্ত্রীকে পিতার বাড়ি থেকে ৫০ হাজার টাকা যৌতুক আনতে বলে।  এতে সে চরমভাবে অনীহা প্রকাশ করলে দু’জনের মধ্যে তীব্র বাক বিতন্ডা শুরু হয়। এক পর্যায়ে এরই জের ধরে ওই দিন রাত ১০ টার দিকে তাকে বাঁশের লাঠি দিয়ে মারপিট করে মেরুদন্ডের হাড় ভেঙ্গে দেয়।
রেহেনার ভাই রবিউল ইসলাম জানান, বোনকে যৌতুকলোভী স্বামী মারপিট করেছে এমন খবরের ভিত্তিতে তিনি ঘটনাস্থলে ছুটে যান। পরে তার বোনকে আহত অবস্থায় উদ্ধার করে কলারোয়া হাসপাতালে ভর্তি করেন। তিনি আরো জানান, বেধড়ক মারপিটে তার বোনের মেরুদন্ডের হাড় ভেঙ্গে দিয়েছে। এ ঘটনায় তিনি বাদি হয়ে গত শুক্রবার সকালে কলারোয়া থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন বলেও তিনি জানান