কলারোয়ায় হাসানের বিরুদ্ধে ভুয়া ডিবি লটারীর নামে লাখ টাকা হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগ


377 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
কলারোয়ায় হাসানের বিরুদ্ধে ভুয়া ডিবি লটারীর নামে লাখ টাকা হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগ
নভেম্বর ৪, ২০১৫ কলারোয়া ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

কে এম আনিছুর রহমান,কলারোয়া প্রতিনিধি
সাতক্ষীরার কলারোয়ায় হাসান কম্পিউটারের সত্ত্বাধিকারী হাসানের বিরুদ্ধে ভুয়া ডিবি লটারীর নামে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগ উঠেছে। গত এক মাস যাবৎ উপজেলার বিভিন্ন এলাকার নিরীহ,সহজ সরল মানুষের নিকট থেকে প্রতারণা করে মাথাপিছু ৫০ থেকে ৫০০ টাকা নিয়ে ডিবি লটারীর ফরম পুরণ ও ই-মেইল পাঠানোর নামে এ টাকা হাতিয়ে নেয় বলে অভিযোগ করা হয়।
এ ব্যাপারে প্রতারণার শিকার অর্ধশতাধিক ব্যক্তির লিখিত অভিযোগে জানা যায়, প্রত্যেক বছর আমেরিকার সরকার বাংলাদেশসহ বিশ্বের প্রত্যেক দেশ থেকে ডিবি লটারীর মাধ্যমে তার দেশে শ্রমিক হিসেবে কিছুলোক নিয়োগ দিয়ে থাকেন। এ লটারীর মাধ্যমে বাংলাদেশসহ বিভিন্ন দেশের লোকজন অল্প টাকায় আমেরিকায় গিয়ে লক্ষ লক্ষ ডলার রোজগার করে অর্থনৈতিকভাবে সম্মৃদ্ধি হয়েছেন। এমনকি এ ডিবি লটারীর মাধ্যমে বাংলাদেশের শত শত মানুষ আমেরিকায় গিয়ে আমেরিকান নাগরিক হওয়ার সুযোগও পেয়েছেন। কিন্তু বর্তমানে সাতক্ষীরার কলারোয়ার হাসান কম্পিউটারের মালিকের মত দেশের বিভিন্ন কম্পিউটারের মালিক ভুয়া ডিবি লটারীর ফরম তৈরী করে সাধারণ মানুষের সাথে প্রতারণ করে লক্ষ লক্ষ টাকা হাতিয়ে নেয়। আর এ ধরণের প্রতারণার শিকার হয়ে বাংলাদেশসহ বিশ্বের অনেক দেশের লোকজন তাদের সর্বস্ব হারায়। আর এ খবর ইলেক্ট্রেনিক ও প্রিন্ট মিডিয়ার মাধ্যমে আমেরিকান সরকার জানতে পেরে ডিবি লটারীর পদ্ধতি আপাততঃ বাতিল করেন। কিন্তু এ খবর গ্রামের সহজ সরল নিরীহ মানুষ জানেন না। আর এ সুযোগে করারোয়া পৌর সদরের হাসান কম্পিউটারের সত্ত্বাধিকারী হাসান কলারোয়া পৌর সদরসহ উপজেলার ১২ টি ইউনিয়নের বিভিন্ন গ্রামগঞ্চে দালালের মাধ্যমে নিরীহ সহজ.সরল মানুষের সাথে প্রতারণ করে জানান, আমেরিকান ডিবি লটারী চালু আছে। আর গ্রামগঞ্চের সহজ সরল মানুষ তাদের এই প্রতারণার ফাঁদে পড়ে প্রত্যেকদিন শত শত লোকজন ওই হাসান কম্পিউটারে এসে ৫০ থেকে ৫০০ টাকার বিনিময়ে ভুয়া ডিবি লটারীর ফরম পুরন করে যায়। এ ভাবে প্রত্যেকদিন হাসান কম্পিটারের মালিক হাসান হাজার হাজার টাকা প্রতারণা করে সহজ সরল মানুষের নিকট থেকে হাতিয়ে নিচ্ছে বলে ওই লিখিত অভিযোগে উল্লেখ্য করা হয়।
প্রতারণার শিকার কলারোয়া পৌর সদরের শফিউল আজম শফি ও বি.এম আফজাল হোসেন জানান, তারা গত মঙ্গলবার ওই কম্পিউটার সেন্টারের পাশ দিয়ে যাওয়ার সময় হাসান কম্পিউটারের সত্ত্বাধিকারী হাসান তাদের ডেকে বলেন, আমেরিকান ডিবি লটারী চালু হয়েছে। একটি ডিবি লটারীর ফরুম পুরণ করে যাও। সে মোতাবেক তারা ৫০ টাকা করে দিয়ে ডিবি লটারীরর ফরম পুরুন করে আসেন। পরে তারা জানতে পারেন ডিবি লটারী চালু নেই। কিন্তু তিনি এভাবে প্রতারণা করে উপজেলার বহু লোকের নিকট থেকে ৫০ থেকে ৫০০ টাকা করে নিয়ে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন।
এ ব্যাপারে হাসান কম্পিউটারের সত্ত্বাধিকারী হাসানের নিকট জানতে চাইলে তিনি এ বিষয়ে সন্তোষজনক জবাব দিতে পারেননি। তবে তিনি এ বিষয়ে কোন খবর না লেখার জন্য সাংবাদিকদের নিকট অনুরোধ করেন।