কলারোয়া পৌর নির্বাচনে মেয়র পদে ৮ প্রার্থী মাঠে : বিএনপি ও জাপার একক , আ’লীগের ছয়


463 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
কলারোয়া পৌর নির্বাচনে মেয়র পদে ৮ প্রার্থী মাঠে : বিএনপি ও জাপার একক , আ’লীগের ছয়
নভেম্বর ২, ২০১৫ কলারোয়া ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

কে এম আনিছুর রহমান,কলারোয়া প্রতিনিধি :
সাতক্ষীরার কলারোয়ায় আসন্ন পৌর নির্বাচনে মেয়র প্রার্থীরা দলীয় মনোনয়ন পেতে দৌড়ঝাঁপ শুরু করেছেন। পৌর নির্বাচনের তফসিল ঘোষনা না হলেও কলারোয়া পৌর সভায় সম্ভব্য ৮ মেয়র প্রার্থী ইতিমধ্যে গণসংযোগ শুরু করেছেন। পাড়া-মহল্লায় ও রাস্তার মোড় ও মার্কেটের গায়ে প্রার্থীদের সাটানো ডিজিটাল ব্যানার ও ফেস্টুনে ছেয়ে গেছে পুরো কলারোয়া সদর। সম্বব্য প্রার্থীরা বিভিন্ন অনুষ্ঠানে অংশ গ্রহনের পাশাপাশি ভোটারদের দৃষ্টি আকর্ষণ করতে নানা তৎপরতা চালানোসহ দলীয় মনোনয়ন লাভের জন্য জেলা ও কেন্দ্রীয় নেতাদের সংগে যোগাযোগ রক্ষাকরে চলেছেন। দীর্ঘদিন পর পৌর নির্বাচন হওয়ায় সাধারণ মানুষের মধ্যেও বিরাজ করছে উৎসবের আমেজ।

আগামী ডিসেম্বরে প্রথম ধাপে পৌর সভার নির্বাচন হওয়ার কথা রয়েছে। প্রথম ধাপের নির্বাচনে কলারোয়ায় পৌরসভার নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে বলে ইতিমধ্যে ঘোষনা দেওয়া হয়েছে। ইতিমধ্যে সরকার পৌরসভাসহ স্থানীয় সরকার নির্বাচন দলীয় প্রতীকে অনুষ্ঠানের ঘোষনা দিয়েছেন। এরপরই সম্বব্য মেয়র প্রার্থীরা গণসংযোগ শুরু করেছেন এবং দলীয় মনোনয়ন লাভের আশায় দৌড়ঝাঁপ শুরু করেছেন। তারা নির্বাচনী মাঠে পচারণা চালিয়ে যাচ্ছেন। এর মধ্যে সরকার দলীয় আওয়ামী লীগের ৫ জন, বিএনপি’র একক প্রার্থী ও জাতীয় পার্টির একজন প্রার্থী গণসংযোগ চালিয়ে যাচ্ছেন। নির্বাচন কমিশন জামায়াতের নিবন্ধন বাতিল করায় জামায়াত দলীয়ভাবে নির্বাচন করতে পারবেনা। তাদের কোন প্রার্থীও মাঠে নেই।

সম্ভব্য মেয়র প্রার্থীদের মধ্যে জেলা আ’লীগের সদস্য ও কলারোয়া উপজেলা আ’লীগের সাবেক আহবায়ক সাজেদুর রহমান খাঁন চৌর্ধরী মজনু, বিগত নির্বাচনের আ’লীগের মনোনীত প্রার্থী উপজেলা যুবলীগের সাবেক আহবায়ক শেখ আমজাদ হোসেন, উপজেলা আ’লীগের সাধারণ সম্পাদক বর্তমান উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান আমিনুল ইসলাম লাল্টু, বিগত নির্বাচনে মেয়র প্রার্থী আ’লীগ নেতা কলারোয়া বাজার ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি আরাফাত হোসেন, কলারোয়া পৌর আ’লীগের সাধারণ সম্পাদক শহিদুল ইসলাম, ও উপজেলা আ’লীগের সদস্য বর্তমান কলারোয়া পৌর সভার ভারপ্রাপ্ত মেয়র রফিকুল ইসলাম।

বিএনপি’র একক প্রার্থী হিসেবে বিগত নির্বাচনের বিএনপি’র মনোনীত প্রার্থী জেলা বিএনপি’র যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও কলারোয়া পৌর বিএনপি’র সাধারণ সম্পাদক শেখ শরিফুজ্জামান তুহিন।

এছাড়া জাতীয় পার্টির সভাপতি এম মুনছুর আলীর নাম শোনা যাচ্ছে।

নির্বাচনকে কেন্দ্র করে পৌর এলাকর ৯টি ওয়ার্ডের অলি-গলি, পাড়া-মহল্লায় উঠান বৈঠক,রাস্তার মোড়ে এবং চায়ের দোকানে প্রার্থী নিয়ে বিচার বিশ্লেষণ চলছে। সম্বব্য প্রার্থীরা ভোটারদের দৃষ্টি আকর্ষন করতে নানা উন্নয়নের প্রতিশ্রুতি দিচ্ছেন। এ ছাড়া রাস্তা,ব্রীজ,কালভার্ট, বিদ্যুৎ সংযোগ, সুপেয় পানি সরবরাহ, পানি নিষ্কাষন,বাল্য বিয়ে বন্ধ ও মাদকমুক্ত পৌর সভাসহ নানা ধরণের জনকল্যাণমুখী কাজের প্রতিশ্রুতি দিচ্ছেন।

অপরদিকে পৌরসভার সচেতন নাগরিকরা মনে করছেন,সরকার দলীয়ভাবে পৌরসভার নির্বাচন করায় এবার আ’লীগ ও বিএনপি’র মধ্যে লড়াই হবে।

কলারোয়া পৌরসভা নির্বাচনে আ’লীগের একাধিক প্রার্থী মাঠে কাজ করার ব্যাপারে কলারোয়া উপজেলা আ’লীগের সভাপতি, উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ফিরোজ আহম্মেদ স্বপনের নিকট জানতে চাইলে তিনি ভয়েস অব সাতক্ষীরা ডটকমকে জানান, আগামী পৌর নির্বাচনে ইতোমধ্যে আ’লীগের দলীয় প্রার্থী হিসেবে উপজেলা আওয়ামীলীগের সাবেক আহবায়ক সাজেদুর রহমান খাঁন চৌধুরী মজনুকে সাময়িকভাবে ঘোষনা কার হয়েছিল। কিন্তু বর্তমানে তার দলের একাধিক প্রার্থী মাঠে থাকায় পুন:রায় বৃহত্তরভাবে বসে আওয়ামী লীগ দলীয়ভাবে যাকে মনোনয়ন দিবে সেই হবেন আ’লীগের মনোনীত প্রার্থী।

তিনি বলেন, যদি কেউ দলীয় সিদ্ধান্তের বাইরে বিদ্রোহী প্রার্থী হিসেবে নির্বাচনে অংশ গ্রহন করেন তাহলে তার বিরুদ্ধে দলীয়ভাবে ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলেও তিনি জানান।

এদিকে দলীয় প্রতীকের মাধ্যমে পৌর নির্বাচনের ব্যাপারে কলারোয়া উপজেলা বিএনপি’র সহ-সভাপতি বিএনপি’র মুখপাত্র অবসরপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ রইচ উদ্দীন ভয়েস অব সাতক্ষীরা ডটকমকে  জানান, দলীয় প্রতীক নিয়ে পৌর নির্বাচনে অংশ গ্রহন করতে তার দলের কোন বাধা নেই। তবে বিশেষ একটি মুহুর্তে  সরকারের পক্ষ থেকে এ ধরনের একটি ঘোষনায় সরকার দলীয় প্রার্থীরা প্রতীক চিহ্নে জোরকরে ছিল মেরে নেবে কি-না এটাই দেখার বিষয়। তিনি বলেন, নিরপেক্ষ নির্বাচন হলে বিএনপি’র প্রার্থীই জয়ী হবে বলে তারা আশা করছে।