কলারোয়া সংবাদ ॥ ইভটিজিংয়ের অভিযোগে যুবক আটক


135 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
কলারোয়া সংবাদ ॥ ইভটিজিংয়ের অভিযোগে যুবক আটক
জুলাই ১১, ২০১৯ কলারোয়া ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

কে এম আনিছুর রহমান ::

সাতক্ষীরার কলারোয়ায় তরিকুল ইসলাম নামে এক যুবককে ইভটিজিংয়ের অভিযোগে আটক করেছে পুলিশ। বৃহষ্পতিবার সন্ধ্যা সাড়ে ৬টার দিকে উপজেলার ভাদিয়ালী গ্রাম থেকে তাকে আটক করা হয়। আটক তরিকুল ইসলাম (২৪) দক্ষিণ ভাদিয়ালী গ্রামের বাবর আলীর পুত্র।
থানা সূত্র জানায়- এসআই রইচ উদ্দীন সঙ্গীয় ফোর্স নিয়ে ইভটিজিং-এর অভিযোগে (মেয়েদের উত্যক্তকারী) তরিকুলকে আটক করে। তার বিরুদ্ধে থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা (নং-৭, তাং-১১/৭/১৯ইং) হয়েছে। পরে তাকে সাতক্ষীরার বিজ্ঞ আদালতে প্রেরণ করা হয়।
বিষয়টির সত্যতা নিশ্চিত করে থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) শেখ মুনীর-উল-গীয়াস জানান, ‘যেখানে ইভটিজিং সেখানেই প্রতিরোধ। শেখ হাসিনার বাংলায় নারী নির্যাতনকারী, জঙ্গী, মাদক ব্যবসায়ী, এবং ইভটিজারের কোন ঠাই নাই। এই প্রত্যায় অন্তরে ধারণ করে কলারোয়া থানা পুলিশের নতুন উদ্যোমে এগিয়ে চলছে।’

#

কলারোয়ায় ভাতাভোগিদের মাঝে টাকা বিতরণ

কে এম আনিছুর রহমান ::

সাতক্ষীরার কলারোয়া সমাজসেবা অফিসে বয়স্ক পুরুষ ও মহিলাদের মাঝে ভাতা বিতরণ করা হয়েছে। বৃহষ্পতিবার সকাল থেকে উপজেলার কুশোডাঙ্গা ও হেলাতলা ইউনিয়নের ৩ হাজার ভাতা ভোগীদের মাঝে ৪৫লক্ষ টাকা বিতরণ করা হয়। এতে নতুন, পুরাতন ও প্রতিস্থাপন সকল ভাতাভোগীরা তাদের ভাতার টাকা গ্রহণ করেন। সোনালী ব্যাংকের কর্মকর্তারা প্রত্যেক ভাতাভোগিদের মাসিক ৫শত টাকা হারে ৩ মাসের ১৫শত টাকা করে ভাতা প্রদান করেন। সেসময় বৃদ্ধ ভাতাভোগিদের শেষ বয়সে এমন সরকারি সুবিধা পেয়ে সন্তোষ প্রকাশ করতে দেখা যায়। এমন অনেক ভাতাভোগিরা আছেন যাদের শেষ সম্বল বলতে বয়স্ক ও বিধবা ভাতা-ই একমাত্র সম্বল। এই ভাতার টাকায় সংসার চলে এমন মানুষের সংখ্যাও কম নয়। সব মিলিয়ে ভাতার এই টাকায় বেঁচে থাকার জন্য প্রয়োজনীয়তার শেষ নেই।
উপজেলা সমাজসেবা অফিসার শেখ ফারুক হোসেন জানান- সরকারের নিয়মিত জনবান্ধব সেবার অংশ হিসেবে ভাতাভোগিদের মাঝে টাকা বিতরণ করা হয়েছে।
ভাতা প্রদানের সময় আরো উপস্থিত ছিলেন সমাজসেবা অফিসের মাঠ সহকারী হুমায়ুন কাদির, মাঠ সহকারী মিজিনুর রহমান, মাঠ সহকারী ফজলুর রহমানসহ ন্যাশনাল সার্ভিসের কর্মিবৃন্দ।

#

কলারোয়ায় বজ্রপাত থেকে বেঁচে গেলো একটি পরিবার

কে এম আনিছুর রহমান ::

সাতক্ষীরার কলারোয়ায় অল্পের জন্য বজ্রপাতের মারাত্মক দূর্ঘটনা থেকে বেঁেচ গেলো একটি পরিবার। বৃহষ্পতিবার দুপুরের দিকে উপজেলার দেয়াড়া ইউনিয়নের উলুডাঙ্গা গ্রামে এমন ঘটনা ঘটেছে। দূর্ঘটনার কবল থেকে রক্ষা পাওয়া উলুডাঙ্গা গ্রামের বাসিন্দা হাজী আব্দুর রশিদ (৭০) জানান জানান- হঠাৎ মেঘলা আকাশে নেমে আসে বৃষ্টিসহ বজ্রপাত। সেসময় তিনি যোহরের নামাজ আদায় করে মসজিদের ভিতরেই অবস্থান করছিলেন। বৃষ্টির পর বাড়িতে ফিরে দেখেন- বসত ঘরের গা ঘেষে থাকা নারিকেল গাছে বজ্রপাত হয়েছে। পরিবারের সদস্যরা অন্য ঘরের ভিতরে ছিল। গাছের উপর পড়া বজ্রপাতের আগুনের গোলা ও গাছের গোটা কাঠের অংশ তাৎক্ষণিক খসে খসে ঘরের চালসহ উঠানের বিভিন্ন স্থানে পড়েছে। বজ্রপাতের শব্দে ও ভয়ে কিছু সময়ের জন্য জ্ঞান হারিয়ে ফেলেন তাঁর স্ত্রী। বজ্রপাতের দূর্ঘটনা থেকে রক্ষা পাওয়ায় তাঁরা আল্লাহর নিকট শুকরিয়া জ্ঞাপন করেছেন বলে জানান।

#