কলারোয়া সংবাদ ॥ ফুটবল মাঠে প্রবেশের রাস্তা উন্মুক্ত করণে ইউএনও বরাবর গণদরখাস্ত


122 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
কলারোয়া সংবাদ ॥ ফুটবল মাঠে প্রবেশের রাস্তা উন্মুক্ত করণে ইউএনও বরাবর গণদরখাস্ত
জুন ১৬, ২০১৯ কলারোয়া ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

কে এম আনিছুর রহমান ::

সাতক্ষীরার কলারোয়া জিকেএমকেম পাইলট হাইস্কুল ফুটবল মাঠে যাতায়াতের রাস্তা উন্মুক্ত করণের দাবীতে উপজেলা নির্বাহী অফিসার বরাবরে লিখিত গণদরখান্ত দেওয়া হয়েছে। রোববার বেলা ১১ টার দিকে বীর মুক্তিযোদ্ধাসহ এলাকাবাসী এ গণদরখাস্ত দাখিল করেন। গণদরখাস্তে উল্লেখ করা হয়, কলারোয়া জিকেএমকে সরকারী পাইলট হাইস্কুলের ফুটবল মাঠে প্রবেশের জন্য পশ্চিম পাশে ডাকঘরের প্রাচীরের পাশ দিয়ে একটি রাস্তা আছে। বিগত স্কুল পরিচালনা পরিষদ সেই রাস্তার উপর একটি অস্থায়ী দোকান ভাড়া দেয়ায় রাস্তাটি চলাচলের জন্য সম্পুর্ণ অনুপোযোগী হয়ে যায়। সেই থেকে অদ্যাবধি এলাকার ফুলবল ও ক্রিকেট খেলোয়াড়,দর্শক ও সাধারণজনগণ খুবই দুর্ভোগে পোয়াচ্ছে। রাস্তাটি জনগনের প্রয়োজনে খুবই গুরুত্বপূর্ণ হওয়ায় রাস্তাটি উন্মুক্ত করার প্রয়োজন হয়ে পড়েছে। এবিষয়ে নিয়ে দ্রুত রাস্তাটি উন্মুক্ত করণের দাবীতে এলাকাবাসীর পক্ষে ইউনিয়ন বীর মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার রবিউল হোসেনসহ শতশত এলাকাবাসী ও খেলোয়াড় উপজেলা নির্বাহী অফিসার বরাবরে লিখিত ভাবে গণদরখাস্ত দিয়েছেন।

#

কলারোয়ায় এক ইউপি সদস্যের বিরুদ্ধে ৪০ দিন কর্মসূচির টাকা আত্নসাতের অভিযোগ

কে এম আনিছুর রহমান ::

সাতক্ষীরার কলারোয়ায় ৪০ দিনের কর্মসূচির কাজের টাকা আতœসাতের অভিযোগ তুলে হেলাতলা ইউনিয়নের এক ইউপি সদস্যের বিরুদ্ধে উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা নিকট একটি লিখিত অভিযোগ করেছেন। রোববার সকালে উপজেলার ৯নং হেলাতলা ইউনিয়নের বাসিন্দা মিজানুর রহমান এলাকাবাসীর পক্ষে এ লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন। অভিযোগের বিবরণে জানা যায়, ওই ইউনিয়নের ৫নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য মোখলেছুর রহমান তার ওয়ার্ডের কাজিরহাট এলাকার আব্দুল মজিদের বাড়ীর সন্নিকটে কাচা রাস্তা সংস্কারের কাজ চালাচ্ছেন কর্মসৃজনশীল রোকজন দিয়ে। যাহা ৪০ দিনের কর্মসূচীর আওতায় পরিচালিত হয়ে আসছে। সেখানে ২২জন শ্রমিক বরাদ্দ থাকার কথা থাকলেও তিনি কৌশলে ১১জন শ্রমিক দিয়ে কাজ চালিয়ে যাচ্ছেন। এভাবে ওই ইউপি সদস্য মোখলেছুর রহমান ৪০ দিনের কর্মসূচির আওতায় থাকা অনুপস্থিত মজুরীর টাকা তুলে নিজে আতœসাৎ করে আসছেন। বিষয়টি নিয়ে তদন্ত পূর্বক আইনগত ব্যবস্থা নিতে উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা বরাবরে এ অভিযোগ দিয়েছেন এলাকাবাসী। এ বিষয় নিয়ে ইউপি সদস্য মোখলেছুর রহমানের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন তার বিরুদ্ধে দেয়া অভিযোগ সঠিক নয়। একটি চক্র তার সুনাম নষ্ট করার জন্য এ ধরনের ভিভ্রন্তকর তথ্য ছড়িয়ে বেড়াচ্ছে।
এদিকে খোজ নিয়ে দেখা গেছে-উপজেলার ১২টি ইউনিয়নে এরকম ৪০ দিনের কর্মসূচির কাজে ব্যাপক অনিয়ম চলছে। মোটকথা উপজেলা জুড়ে ৪০ দিনের কর্মসূচির কাজে অনিয়ম,দূনীর্তি ও হরিলুট চলছে।

#