কলারোয়া সরকারি কলেজ ছাত্রলীগ সভাপতিকে হাঁতুড়িপেটা


361 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
কলারোয়া সরকারি কলেজ ছাত্রলীগ সভাপতিকে হাঁতুড়িপেটা
আগস্ট ২৬, ২০১৫ কলারোয়া ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

 

কে এম আসিছুর রহমান, কলারোয়া :
সাতক্ষীরার কলারোয়া সরকারি কলেজ ছাত্রলীগের সভাপতি শফিউর রহমান শিমুল (২২) কে হাঁতুড়িপেটা করে আহত করা হয়েছে। তাকে আশংক জনক অবস্থায় কলারোয়া স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। আহত শিমুল উপজেলার কাশিয়াডাঙ্গা গ্রামের সহিদুল ইসলামের ছেলে।

বুধবার সকাল সাড়ে ১০ টার দিকে পৌরসদরের আফজালের মোড়ে এ ঘটনা ঘটে।

আহত শফিউর রহমান শিমুল জানান, গত মঙ্গলবার বেলা ১১ টার দিকে উপজেলা ছাত্রলীগ নেতা নাইস-এর ভাই পরিচয়ে দুই বহিরাগত ছাত্র পুর্ব শত্রুতার জের ধরে প্রথম বর্ষের ছাত্র রনিকে কলেজ ক্যাম্পাসে মারপিট করে। খবর পেয়ে তিনি ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে তাদেরকে ডেকে কলেজ অধ্যক্ষের অফিস কক্ষে ডেকে নেন। পরে অধ্যক্ষের উপস্থিতিতে উভয়ের মধ্যে সৃষ্ট ঘটনার আপোষ মিমাংসা করে দেন।

এঘটনার জের ধরে বুধবার সকাল সাড়ে ১০ টার দিকে কলেজে আসার পথে আফজালের মোড়ে পৌছালে পূর্ব থেকে ওৎ পেতে থাকা উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি শেখ ইমরান হোসেনের নেতৃত্বে নাইস, জজসহ সাত আট জন বহিরাগত যুবক তার গতি রোধ করে হাতুড়ি দিয়ে এলোপাতাড়ি মারপিট করে মৃত ভেবে ফেলে চলে যায়। পরে পথচারিরা তাকে উদ্ধার করে কলারোয়া স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে। সম্প্রতি উপজেলা ছাত্রলীগের কমিটি গঠন নিয়ে তার উপর ইমরানের ক্ষোভ ছিল বলে তিনি দাবি করেন।

এবিষয়ে কলারোয়া উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি ইমরান হোসেন জানান, এ ঘটনার সাথে তার কোন সম্পৃক্ততা নেই। ঘটনার সাথে জড়িত থাকার প্রমান করতে পারলে তিনি তার পদ থেকে পদত্যাগ করবেন। এ সময় তিনি তার বাড়িতে ছিলেন । তাকে দোষারোপ করাটা দু:খ জনক।

কলারোয়া স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আবাসিক মেডিকেল অফিসার নুর মোহামদ্ জানান, ছাত্রলীগ নেতা শফিউর রহমান শিমুলের শরীরে হাঁতুড়ি পেটার অসংখ্য দাগ আছে। তার বাম হাতের একটি আঙুল ভেঙ্গে গেছে। বর্তমানে আহত ছাত্রলীগ নেতার অবস্থা শংকামুক্ত।

কলারোয়া থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) শেখ আবু সালেহ মাসুদ করিম জানান, ঘটনাটি তিনি শুনেছেন জানিয়ে বলেন, এঘটনায় কেউ অভিযোগ নিয়ে আসেনি। লিখিত অভিযোগ পেলে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহন  করা হবে।