কাটার মাষ্টার মোস্তাফিজের জাঁকজমকপূর্ণ বৌ-ভাত


451 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
কাটার মাষ্টার মোস্তাফিজের জাঁকজমকপূর্ণ বৌ-ভাত
জুলাই ১৩, ২০১৯ খেলা ফটো গ্যালারি সাতক্ষীরা সদর
Print Friendly, PDF & Email

মনজুর কাদীর / সুকুমার দাশ বাচ্চু :
বিশ্বকাপ শেষ হয়নি এখনও। তবে বাংলাদেশের বিশ্বকাপ শেষ হয়েছে অনেক আগে, গ্রুপ পর্বেই। বিশ্বকাপ শেষ করে দেশেও ফিরে এসেছেন টাইগার ক্রিকেটাররা। যেখানে মোস্তাফিজের সামনে আবার শ্রীলঙ্কা সিরিজ। এর মাঝে সময়টা পেয়েছেন খুব কম। তবে কাটার মাস্টার মোস্তাফিজুর রহমান সময়টা বেশ ভালোভাবেই কাজে লাগালেন। এই ফাঁকে বৌ-ভাতের আনুষ্ঠানিকতাটা সেরে ফেললেন তিনি।

বিয়ে করেছেন অনেকটা চুপিসারেই। ওই সময়ই ঘোষণা দিয়ে রেখেছিলেন, বৌ-ভাত অনুষ্ঠানের আয়োজন করবেন বিশ্বকাপের পরে জাঁকজমকপূর্ণ পরিবেশে। সে অনুষ্ঠানটিই আজ শনিবার নিজ বাড়িতে আয়োজন করেছেন জাতীয় দলের তারকা ক্রিকেটার মোস্তাফিজুর রহমান।

আত্মীয়-স্বজন, বন্ধু-বান্ধব ও এলাকাবাসী ছাড়াও রাজনীতিক, সাংবাদিকসহ বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার প্রায় তিন হাজার মানুষের উপস্থিতিতে মুখরিত হয়ে ওঠে এই তারকা ক্রিকেটারের বৌভাত অনুষ্ঠান।

শনিবার দুপুর দেড়টায় শুরু হয় বৌভাত অনুষ্ঠানে আমন্ত্রিত অতিথিদের আপ্যায়ন। ফিজের বাড়ির ভিতর তেমন জায়গা নেই, তাই বাড়ি সংলগ্ন বিলের মধ্যে প্যান্ডেল দিয়ে ঘিরে, সাজিয়ে-গুছিয়ে সেখানে আয়োজন করা হয় খাওয়া-দাওয়ার। বৌভাতে আপ্যায়নের জন্য সাতক্ষীরা থেকে ক্যাটারিং নিয়ে যাওয়া হয়। ওই ক্যাটারিং এর প্রায় এক’শ সদস্য আপ্যায়নের দায়িত্বে ছিলো। আর সাজসজ্জার দায়িত্বে ছিলো কালিগঞ্জের সুমা ডেকোরেটর। চার দিন আগে থেকেই তারা সাজসজ্জার কাজ শুরু করে।

শনিবার সকাল থেকে বৌভাত অনুষ্ঠানে আসতে শুরু করেন আমন্ত্রিত অতিথিরা।

তবে নিজের জীবনের সবচেয়ে আনন্দের দিনেও মিডিয়ার সামনে বরাবরের মতোই চুপ থাকলেন মোস্তাাফিজ। বাড়িতে সুসজ্জিত আসরে বধু সুমাইয়া পারভীন শিমুকে নিয়ে পাশাপাশি বসেছিলেন এই কাটার মাস্টার। সেখানেও সাংবাদিকদের সামনে কোনো কথা বলেননি মোস্তাফিজ। যেন লজ্জায় মরে যাচ্ছিলেন।

তবে মোস্তাফিজুর রহমানের বাবা আলহাজ আবুল কাশেম গাজী ছেলের জন্য দেশবাসীর কাছে দোয়া চেয়ে বলেন, ‘আপনারা সবাই আমার ছেলে মোস্তাফিজের জন্য দোয়া করবেন। আপনারা যারা আমন্ত্রিত অতিথি হিসেবে এসেছেন সবার প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি।’

সাতক্ষীরা জেলা শহর থেকে প্রায় ৪০ কি:মি: দূরে কালিগজ্ঞ উপজেলার তেঁতুলিয়া গ্রামে মোস্তাফিজের গ্রামের বাড়িতে বৌভাত অনুষ্ঠানে আড়াই হাজার মানুষের জন্য আপ্যায়নের ব্যবস্থা করা হলেও হাজির হয়েছেন তার চেয়েও বেশি মানুষ। অতিথি আপ্যায়নের জন্য ব্যবস্থা করা হয়েছে খাসির বিরিয়ানি, গরুর মাংস, দধি ও কোকোকোলা। আর সনাতন ধর্মাবলম্বীদের জন্য ছিল খাসির বিরয়ানি।

বৌভাত অনুষ্ঠানে যোগ দিয়েছেন সাবেক স্বাস্থ্যমন্ত্রী ও বর্তমান সাতক্ষীরা-৩ আসনের সংসদ সদস্য ডা. আ ফ ম রুহুল হক, সাতক্ষীরা জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মো: নজরুল ইসলাম, সাতক্ষীরা পুলিশ সুপার সাজ্জাদুর রহমান, সাতক্ষীরা প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক মমতাজ আহমেদ বাপী, সিনিয় সাংবাদিক সুভাষ চৌধুরী, কল্যান ব্যানার্জী, সাতক্ষীরা প্রেসক্লাবের সাবেক সাধারণ সম্পাদক এম কামরুজ্জামান, আসাদুজ্জামান, আবুল কাশেম, তানজির আহমেদ সহ সিনিয়র কয়েকজন সাংবাদিক, রাজনৈতিক ও বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষ।

‌তবে বৌভাত অনুষ্ঠানে সাতক্ষীরা জেলা ক্রীড়া সংস্থার কোন কর্মকর্তাকে দেখা যায়নি।

মোস্তাফিজের বড় ভাই মাহাফুজুর রহমান মিঠু ভয়েস অব সাতক্ষীরাকে বলেন, ঢাকার অতিথিরা আসতে পারেননি। তারকা ক্রিকেটাররা অনেকেই এখনও বিদেশে। খুব শিঘ্রই ঢাকাতে আরো একটি অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হবে। সেখানে ঢাকার তারকা ক্রিকেটারসহ ভিআইপি অতিথিদের আমন্ত্রন জানানো হবে।

উল্লেখ্য, গত ২২ মার্চ সাতক্ষীরার দেবহাটা উপজেলার হাদিপুর গ্রামের বাসিন্দা সুমাইয়া পারভীন শিমুকে বিয়ে করেন মোস্তাফিজুর রহমান। শিমু বর্তমানে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মনোবিজ্ঞান বিভাগের ছাত্রী। শিমুর বাবা রওনাকুল ইসলাম বাবু মোস্তাফিজুর রহমানের মেজো মামা। মায়ের ইচ্ছায় পারিবারিকভাবেই মামাতো বোন সুমাইয়া পারভীন শিমুকে বিয়ে করেন ‘কাটার মাস্টার’খ্যাত এই পেসার।

#