কাবুলে প্রেসিডেন্ট প্রাসাদের কাছে রকেট হামলা


356 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
কাবুলে প্রেসিডেন্ট প্রাসাদের কাছে রকেট হামলা
আগস্ট ২১, ২০১৮ প্রবাস ভাবনা ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

 

অনলাইন ডেস্ক

তালেবানদের ছোড়া একাধিক রকেটের মধ্যে একটি আফগানিস্তানের প্রেসিডেন্ট প্রাসাদের কাছে আঘাত হেনেছে। মঙ্গলবার রকেটটি বিস্ফোরণের সময় আফগান প্রেসিডেন্ট আশরাফ ঘানি ঈদুল আজহা উপলক্ষ্যে জাতির উদ্দেশে ভাষণ দিচ্ছিলেন। খবর আল জাজিরার

পুলিশ কর্মকর্তা জান আঘা জানান, প্রথম রকেটটি বিস্ফোরিত হয় প্রেসিডেন্ট প্রাসাদের ভবনের কাছে। দ্বিতীয়টি ন্যাটো কমান্ড ও মার্কিন দূতাবাসের প্রাঙ্গণে। তবে এ ঘটনায় কেউ হতাহত হননি।

রকেটটি যখন প্রেসিডেন্ট প্রাসাদের কাছে বিস্ফোরিত হয় তখন আফসান প্রেসিডেন্ট টেলিভিশনে সরাসরি ভাষণ দিচ্ছিলেন। বিস্ফোরণের শব্দ টেলিভিশনেও শোনা গেছে। শব্দ শুনে প্রেসিডেন্ট তার ভাষণ থামিয়ে দিয়ে বলেন, ‘যদি তারা ভাবে রকেট হামলা করে আফগানদের দমন করা যাবে তাহলে তারা ভুল ভাবছে।’

কাবুলের যে জায়গায় রকেটটি বিস্ফোরিত হয়েছে সেটা শহরের সবচেয়ে সুরক্ষিত এলাকা। সেখানে বিভিন্ন দেশের দূতাবাস এবং সরকারি ভবন অবস্থিত।

কাবুল পুলিশের মুখপাত্র হাশমাত স্টানেকজিয়া জানান, মঙ্গলবার সকালে একটি সন্দেহজনক গাড়ির চলাচল তাদের নজরে আসে। সেটাকে অনুসরণ করলে তা ঈদগাহ মসজিদের পাশে একটি ইটভাটায় যায়। ঈদগাহে ঈদুল আজহার নামাজ আদায়ে অনেকেই জড়ো হয়েছিলেন। গাড়িটি একটি ঘরের ভেতর যায়। সেখানে থেকেই রকেটটি ছোড়া হয়েছে বলে ধারণা করছে পুলিশ। পরে হেলিকপ্টার গানশিপ দিয়ে বোমা মেরে ঘর ও গাড়িটি ধ্বংস করা হয়েছে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, বিস্ফোরণের পর ওই এলাকা থেকে গোলাগুলির শব্দ শোনা যায়। তবে কারা গুলি করছিল তা স্পষ্ট নয়। পুলিশেল ধারণা, কমপক্ষে চারজন হামলার সঙ্গে জড়িত। তাদের খুঁজতে পুলিশি অভিযান চলছে।

এই হামলার ব্যাপারে তালেবানদের পক্ষ থেকে তাৎক্ষণিক কোনো প্রতিক্রিয়া পাওয়া যায়নি। হামলাটির দায়ও কেউ স্বীকার করেনি। তবে রোববার আফগান প্রেসিডেন্টের শর্তযুক্ত অস্ত্রবিরতি প্রত্যাখ্যান করে তালেবানরা। ওই দিনই তারা উত্তরপূর্ব কান্দজ প্রদেশের কয়েকটি বাস থেকে দেড়শোর বেশি যাত্রীকে অপহরণ করে। যদিও আফসান নিরাপত্তাবাহিনী অপহরণের কয়েক ঘন্টার মধ্যেই নারী ও শিশুসহ প্রায় ১৬০ জন বন্দীকে উদ্ধার করে।এরপরই এই হামলার ঘটনা ঘটে।