কালিগঞ্জের ইউপি চেয়ারম্যান সাঈদের মেহেদীর হুমকি ! স্বেচ্ছাসেবকলীগ নেতার সংবাদ সম্মেললেন


571 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
কালিগঞ্জের ইউপি চেয়ারম্যান সাঈদের মেহেদীর হুমকি ! স্বেচ্ছাসেবকলীগ নেতার সংবাদ সম্মেললেন
জুন ৩, ২০১৬ কালিগঞ্জ ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

স্টাফ রিপোর্টার :
সাতক্ষীরার কালিগঞ্জ উপজেলার ১২ নং মৌতলা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আওয়ামী লীগ নেতা সাঈদ মেহেদীর হুমকি ধামকিতে শারীরিক প্রতিবন্ধি দুই শিশু ছেলেকে নিয়ে চরম নিরাপত্তাহিনতায় ভুগছেন এক স্বেচ্ছাসেবকলীগ নেতা। শুক্রবার দুপুরে সাতক্ষীরা প্রেসক্লাবে এক সংবাদ সম্মেলনে এই অভিযোগ করেন মৌতলা ইউনিয়নের ৬ নং ওয়ার্ডের স্বেচ্ছাসেবকলীগের সভাপতি কৃষক মোঃ আনোয়ার আলী শাহাজী।
সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে আনোয়ার আলী শাহাজী বলেন, দীর্ঘদিন ধরে মৌতলা ইউনিয়নের ৬ নং ওয়ার্ডের আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবকলীগের সভাপতির দায়িত্ব পালন করার পাশাপাশি কৃষিকাজ করে তিনি জীবিকা নির্বাহ করে আসছেন। কিন্তু মৌতলা ইউপি চেয়ারম্যান আ’লীগ নেতা সাঈদ মেহেদীর কারনে বর্তমানে তিনি শারীরিক প্রতিবন্ধি দুই শিশু ছেলেকে নিয়ে চরম নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন। ব্যক্তিগত কাজে গত ৩০ মে মৌতলা ইউনিয়ন পরিষদে গেলে চেয়ারম্যান তাকে দেখার সাথে সাথে চৌকিদারকে ডেকে লাঠি দড়ি এনে তাকে পিট মোড়া দিয়ে বাধতে হুকুম দিয়ে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ শুরু করেন। তিনি কিছু বুঝে উঠার আগেই চেয়ারম্যান হুমকার দিয়ে বলেন, তোকে আজ প্রাণে মেরে ফেলবে, তুই এমপি’র কাছে আমার বিরুদ্ধে নালিশ করেছিস। আগামী পাঁচ বছরের জন্য আমি এই ইউনিয়নের বাবা-মা, আমার যা ইচ্ছে তাই করবো। তোর জমিতে পুকুর কেটে জনগণের সুবিধার্থে ফিল্টার বসাবো। তিনি তার কোন কথা শুনতে রাজি না হয়ে  ইউনিয়ন পরিষদ অফিস থেকে তাকে তাড়িয়ে দিয়ে পরে মজা দেখাবার হুমকি দেন। এসময় এলাকার শতাধিক মানুষ নির্বাক হয়ে একজন শাসকের শাসন উপলব্ধি করছিল। চেয়ারম্যান সাঈদ মেহেদীর হুমকি ধামকিতে শারীরিক প্রতিবন্ধি দুই শিশু ছেলেকে নিয়ে বর্তমানে তিনি চরম নিরাপত্তাহিনতায় ভুগছেন। চেয়ারম্যানের পেটুয়া বাহিনীর ভয়ে তিনি ভীতসন্ত্রস্থ হয়ে পড়েছেন। সাংবাদিকদের উদ্দেশ্যে তিনি আরো বলেন, তার সংবাদ সম্মেলনের এই খবর পত্রিকায় প্রকাশিত হওয়ার আগেই হয়ত আপনাদেরকে তাকে হত্যার সংবাদ লিখতে হতে পারে।
সংবাদ সম্মেলনে তিনি চেয়ারম্যানের অবৈধ হুমকি-ধামকি থেকে পরিত্রান পেতে ও তার জীবনের নিরাপত্তার জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী, পুলিশ সুপার ও জেলা প্রশাসনের জরুরী হস্তক্ষেপ কামনা করেন।