কালিগঞ্জের কৃষ্ণনগরে পূজা মন্দিরের জমি দখলে হামলা ও মামলা করছে স্বার্থান্বেষীরা


526 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
কালিগঞ্জের কৃষ্ণনগরে পূজা মন্দিরের জমি দখলে হামলা ও মামলা করছে স্বার্থান্বেষীরা
জুন ৪, ২০১৭ কালিগঞ্জ ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

স্টাফ রিপোর্টার ::
কালিগঞ্জের সার্বজনীন পূজা মন্দির ব্যবহারে বাধার সৃষ্টি করছে একটি স্বার্থান্বেষী মহল। তারা মন্দিরের জমি নিজেদের দখলে  নিতে চায়। এমনকি সেখানে ধর্মীয় সমাবেশে বাধার সৃষ্টি করছে তারা। এ ঘটনায় এলাকার মানুষ ক্ষোভে ফেটে পড়েছেন মহলটির বিরুদ্ধে।

রোববার দুপুরে সাতক্ষীরা প্রেসক্লাবে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে একথা বলেন মন্দিরের সভাপতি ডা. দীপক চন্দ্র হালদার। এ সময় মন্দিরের সহ সভাপতি পরিমল হালদারও উপস্থিত ছিলেন।

সংবাদ সম্মেলনে দীপক হালদার তার লিখিত বক্তব্যে বলেন পূজা মন্দিরের  নামে সেখানে ২০ শতক জমি রয়েছে। এই জমি  আত্মসাতের লক্ষ্যে হোসেনপুর গ্রামের মৃত কালিপদ হালদারের ছয় ছেলে রতন হালদার, বিমল হালদার, অনিল হালদার, বিশ্বনাথ

হালদার, শ্রীদাম হালদার এবং একই পরিবারভূক্ত রামপ্রসাদ হালদার, অমর কৃষ্ণ হালদার, সুব্রত হালদারসহ বিমল মন্ডল, সত্য মন্ডল নানা ভাবে ষড়যন্ত্র করে যাচ্ছে। তারা মন্দিরের জমির ওপর থাকা দোকানপাটও দখলের পাঁয়তারা করছে।

অভিযোগ করে তিনি আরও বলেন জমি দখলের লক্ষ্যে তারা দুটি মিথ্যা মামলা দায়ের করলেও তা খারিজ হয়ে গেছে। এখন তারা মন্দিরে হামলা করে দখল কায়েমের চেষ্টা করছে।

সংবাদ সম্মেলনে ডা. দীপক হালদার বলেন মন্দিরের জমি রক্ষার জন্য সম্প্রতি জয়মহাপ্রভু সেবাসংঘের সভাপতি বিশ্বনাথ ঘোষ, জেলা পূজা উদযাপন পরিষদ সভাপতি মনোরঞ্জন মুখার্জী, হিন্দু বৌদ্ধ ঔক্য পরিষদের সভাপতি ও সম্পাদক যথাক্রমে বিশ্বজিত সাধু ও স্বপন কুমাল শীলসহ স্থানীয় চেয়ারম্যান মোশাররফ হোসেনকে নিয়ে সংশ্লিষ্ট এলাকায় একটি সমাবেশের ডাক দেওয়া হয়।

সেখানে পরিত্যক্ত পুকুর ও শিব মন্দিরের পবিত্রতা রক্ষার লক্ষ্যে একটি ব্যানার টানানো হলে তা তারা ছিঁড়ে ফেলে দেয়। এমনকি তা পদদলিত করে। তারা মন্দিরের মধ্যে ঢুকে সহ সভাপতি পরিমল হালদারকে মারধর করে।

এতে বাধা দেওয়ায় তারা সভাপতি ডা. দীপক হালদার ও কমিটির অন্য সদস্যদেরও লাঞ্ছিত করে। সংবাদ সম্মেলনে এর প্রতিকার দাবি করে দীপক হালদার বলেন এলাকায় এ নিয়ে ব্যপাক উত্তেজনা রয়েছে। এ বিষয়ে তিনি প্রশাসনের দৃষ্টি আকর্ষন করেছেন।
##