কালিগঞ্জের দীনবন্ধু ঘোষের জমি দখল করেছে মিলন খন্দকার


308 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
কালিগঞ্জের দীনবন্ধু ঘোষের জমি দখল করেছে মিলন খন্দকার
জানুয়ারি ১৭, ২০১৮ কালিগঞ্জ ফটো গ্যালারি সাতক্ষীরা সদর
Print Friendly, PDF & Email

সাতক্ষীরা প্রতিনিধি ::
সাতক্ষীরার কালিগঞ্জ উপজেলার আমিয়ান গ্রামের দীনবন্ধু ঘোষের নিজের ও লীজ নেওয়া ১৭ বিঘার ঘের জমির আট বিঘা জোর করে দখল করে নিয়েছেন কাকশিয়ালি গ্রামের মিলন খন্দকার। মিলন গত ৬ জানুয়ারি তার লোকজন নিয়ে তার ঘের তছনছ করে দিয়েছেন এবং বাঁধ কেটে সরকারি খালের সাথে মিশিয়ে দিয়ে দেড় লাখ টাকার মাছের ক্ষয় ক্ষতি করেছেন।
বুধবার দুপুরে সাতক্ষীরা প্রেসক্লাবে এক সংবাদ সম্মেলন করে এ কথা বলেন দীনবন্ধু ঘোষ। তিনি বলেন এ ব্যাপারে আমি কালিগঞ্জ থানা পুলিশের সহায়তা চাই। এ নিয়ে সালিশ বৈঠকও হয়। পরে ৩ জানুয়ারি কালিগঞ্জ থানার ওসি আমার জমির মধ্য থেকে ছয় বিঘা ছেড়ে দিতে বলেন । না হলে আমাকে হাজতে ঢুকানোর হুমকি দেন।
দীনবন্ধু ঘোষ বলেন ১৬ বছর যাবত তিনি ওই জমিতে মাছ চাষ করে আসছেন। এই ১৭ বিঘার মধ্যে নিজস্ব, এওয়াজ ও লীজকৃত জমি রয়েছে। সম্প্রতি ওই জমির মধ্য থেকে নয় ব্যক্তির কাছ থেকে সোয়া চার বিঘা জমি মিলন খন্দকার লিজ নিয়ে মাছ চাষ করার লক্ষ্যে আমার পৈত্রিক ও লীজকৃত জমি দখলের পাঁয়তারা করতে থাকেন। আমি এ ব্যাপারে কালিগঞ্জ থানায় লিখিত অভিযোগ করি। থানার সেকেন্ড অফিসার লিয়াকত হোসেন যেহেতু দুই মাস আগে মাছ চাষ শুরু হয়েছে সেই বিবেচনায় সোয়া চার বিঘা জমির হারির টাকা আমোর নিকট থেকে মিলনকে পরিশোধের কথা বলেন। এ জন্য তিনি সাতদিন সময়ও বেঁধে দেন।
সংবাদ সম্মেলনে দীনবন্ধু বলেন সালিশ বৈঠকের পরদিন ওসি থানায় ডেকে পাঠিয়ে আমাকে আমার জমির মধ্য থেকে ছয় বিঘা ছেড়ে দিতে বলেন এবং মিলন খন্দকারকে বেড়ি বাঁধ দিয়ে জমি দখলের নির্দেশ দেন। আমি হতবাক হয়ে এর প্রতিবাদ করলে তিনি আমাকে হাজতের ভাত খাওয়ানোর হুমকি দেন। এরপরই মিলন খন্দকার ও পূর্ব নলতার জিএম সাইফুল ইসলামের নেতৃত্বে শতাধিক ভাড়াটিয়া সন্ত্রাসী আমার মধ্য থেকে ৮ বিঘা জমি দখল করে নেয়। এ বিষয়ে ওসিকে জানালেও তিনি তাতে কান দেন নি। দীনবন্ধু বলেন তিনি কালিগঞ্জ সার্কেলের এএসপির কাছে অভিযোগ দিয়েছেন। এরপরও মিলন ও সাইফুল তাদের গুন্ডাপান্ডা নিয়ে আমাদের খুন জখম করার হুমকি দিচ্ছেন।
তিনি বলেন আমি শান্তি চাই। আমি আমার জমি ফেরত চাই , ক্ষতি পূরন চাই। সংবাদ সম্মেলনে তার ছেলে উত্তম ঘোষও উপস্থিত ছিলেন।
দীনবন্ধু ঘোষ এ ব্যাপারে সাতক্ষীরা পুলিশ সুপারের দৃষ্টি আকর্ষন করেছেন।